সিলেট

রায়হান বারবার মূর্ছা গেলেও দয়া হয়নি এসআই আকবরের

সিলেট মহানগরের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নিয়ে রায়হানকে অমানুষিক নি’র্যা’তন করা হয়। অ’তিরিক্ত আ’ঘাতে শরীরের মাংস থেঁতলে যায়। বারবার মূর্ছা যান রায়হান। তারপরও একটু দয়া হয়নি এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়ার। অবশেষে মা’রা যান তিনি। সর্বশেষ ফরেনসিক রিপোর্টেই এমন তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শনিবার সন্ধ্যায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. শামসুল ইস’লাম বলেন, ফরেনসিক রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১১ আ’ঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। আ’ঘাতের ৯৭টি নীলা ফোলা আ’ঘাত ও ১৪টি জ’খমের চিহ্ন ছিল।

ডা. শামসুল ইস’লাম বলেন, আ’ঘাতগুলো লা’ঠি দিয়েই করা হয়েছে। আ’ঘাতে শরীরের মাংস থেঁতলে যায়। আর অ’তিরিক্ত আ’ঘাতে বারবার মূর্ছা যান রায়হান। রগ ফেটে গিয়ে অ’তিরিক্ত র’ক্তক্ষরণেই মা’রা যান তিনি। আ’ঘাত করার সময় রায়হানের স্টমাক খালি ছিল। স্টমাকে ছিল কেবল এসিডিটি লিকুইড।

তিনি আরো বলেন, ফরেনসিক রিপোর্টটি পিবিআই’র কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রোববার সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে রায়হান মা’রা যান।

এর আগে, ১৫ অক্টোবর দ্বিতীয় ময়নাত’দন্ত শেষে ডা. শামসুল ইস’লাম জানান, রায়হানের শরীরে অসংখ্য আ’ঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তাকে প্রচণ্ড মা’রধর করা হয়েছে। অ’তিরিক্ত আ’ঘাতের কারণেই তার মৃ’ত্যু হয়।

ওইদিন রায়হানের লা’শ কবর থেকে তুলে দ্বিতীয়বার ময়নাত’দন্ত শেষে বিকেলে আখালিয়া নবাবী ম’সজিদ সংলগ্ন কবরস্থানে ফের দাফন করা হয়।

১১ অক্টোবর ভোরে পু’লিশ ফাঁড়িতে নি’র্যা’তন করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে নেয়ার পর রায়হানের মৃ’ত্যু হয়। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থা’নায় হ’ত্যা মা’মলা করেন নি’হতের স্ত্রী’ তাহমিনা আক্তার তান্নি। এরপর বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চার পু’লিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একইসঙ্গে তিন পু’লিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়। ঘটনার পর রোববার থেকে আকবর পলাতক রয়েছেন।

মা’মলা’টি পু’লিশ সদর দফতরের নির্দেশে পিবিআইতে স্থা’নান্তর হয়। ত’দন্তভা’র পাওয়ার পর পিবিআই’র টিম ঘটনাস্থল বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ি, নগরীর কাস্টঘর, নি’হতের বাড়ি পরিদর্শন করে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!