আন্তর্জাতিক

যু’ক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে সশস্ত্র বি’ক্ষোভ ট্রা’ম্পপন্থীদের

যু’ক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠান যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। শপথ অনুষ্ঠানের আগে ট্রা’ম্পপন্থীদের সশস্ত্র বি’ক্ষোভের যে আশ’ঙ্কা করা হয়েছিল, তা অনেকটাই সত্যি হয়েছে। গত রবিবার দেশটির বিভিন্ন স্টেট হাউসের (রাজ্য আইনসভা) সামনে বিক্ষিপ্ত বি’ক্ষোভ করেছে ট্রা’ম্পপন্থীরা। বি’ক্ষোভকারীদের মধ্যে অনেকেই ছিল সশস্ত্র।

এদিকে আরেকটি আশ’ঙ্কার কথা শুনিয়েছেন যু’ক্তরাষ্ট্রের সাম’রিক বাহিনীর কর্মক’র্তারা। তাঁরা বলছেন, শপথ অনুষ্ঠানের দায়িত্বে থাকা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সদস্যই হা’মলা চালিয়ে বসেন কি না, সে বিষয়টি নিয়েও দুশ্চিন্তা রয়েছে। এ জন্য শপথ অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার দায়িত্বে যাঁরা থাকবেন, তাঁদের অ’তীত ঘেঁটে দেখতে এফবিআইকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আগামীকাল বুধবার যু’ক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন জো বাইডেন। তাঁর শপথের দিনে কিংবা আগে ট্রা’ম্পপন্থীরা দেশজুড়ে সশস্ত্র বি’ক্ষোভ করতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছিল এফবিআই। আর সেই বি’ক্ষোভ ১৭ জানুয়ারি হতে পারে বলেও জানিয়েছিল তারা।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত রবিবার বিভিন্ন স্টেট হাউস বা রাজ্য আইনসভা’র সামনে বি’ক্ষোভকারীদের ছোট ছোট দল দেখা গেছে, যাদের কেউ কেউ ছিল সশস্ত্র। টেক্সা’স, ওরেগন, মিশিগান, ওহাইওসহ আরো কিছু রাজ্যের স্থানীয় কংগ্রেস ভবনের সামনেও সশস্ত্র বি’ক্ষোভ হয়েছে।

এর আগে গত ৬ জানুয়ারি কংগ্রেস ভবনে হা’মলা চালায় ট্রা’ম্পপন্থীরা। তাতে পু’লিশের এক কর্মক’র্তাসহ নি’হত হয় পাঁচজন। মূলত ওই ঘটনা এবং এফবিআইয়ের সতর্কবার্তার পর সব অঙ্গরাজ্যেই নিরাপত্তাব্যবস্থা জো’রদার করা হয়। বিভিন্ন শহরে বসানো হয় ব্যারিকেড। মোতায়েন করা হয় ন্যাশনাল গার্ডের হাজার হাজার সদস্য। বন্ধ করে দেওয়া হয় উগ্র ট্রা’ম্পপন্থীদের অনলাইনভিত্তিক বিভিন্ন গ্রুপ।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওহাইও অঙ্গরাজ্যের কলাম্বাসে স্টেট হাউসের সামনে প্রায় ২৫ বি’ক্ষোভকারী জড়ো হয়েছিল। সবার হাতেই আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। মিশিগানে যারা বি’ক্ষোভ করেছে, তাদের কয়েকজনের হাতে ছিল রাইফেল। বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এক বি’ক্ষোভকারী বলে, ‘আমি সহিং’সতা দেখাতে আসিনি এবং আমা’র মনে হয় না কেউ সহিং’সতা দেখাতে চায়।’

বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠান হবে ওয়াশিংটনের ক্যাপিটল হিলে। ওয়াশিংটন শহরের নিরাপত্তায় এরই মধ্যে ২৫ হাজারের বেশি ন্যাশনাল গার্ড সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। তবে এই ২৫ হাজার সদস্যের মধ্যে থেকে কেউ সহিং’সতা ঘটান কি না, তা নিয়ে আশ’ঙ্কা প্রকাশ করেছেন সাম’রিক কর্মক’র্তারা। গত রবিবার বার্তা সংস্থা এপিকে আর্মি সেক্রেটারি রায়ান ম্যাককার্থি বলেন, ‘বাহিনীর ভেতরের কোনো সদস্যকে হু’মকি মনে হয় কি না, সে বিষয়ে কমান্ডারদের সতর্ক করা হয়েছে। আম’রা বিষয়টি নিয়ে খুবই সতর্ক আছি। শপথ অনুষ্ঠানের দায়িত্ব পাওয়া কর্মীদের জীবনবৃত্তান্ত খুঁটিয়ে দেখা হচ্ছে।’ বাহিনীর ভেতরে স’ন্দেহভাজন কেউ থাকলে তাঁকে কিভাবে শনাক্ত করা হবে, সে বিষয়েও সংশ্লিষ্ট কর্মক’র্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে বলে জানান রায়ান।

এদিকে বিদায়ের আগে শতাধিক সাধারণ ক্ষমা’র আদেশে স্বাক্ষর করতে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রা’ম্প। এদের মধ্যে হ’ত্যা মা’মলা থেকে শুরু করে ধ’র্ষণ মা’মলার আ’সামিও আছে। যারা ক্ষমা পেতে যাচ্ছে, তাদের বেশির ভাগই শ্বেতাঙ্গ। সিএনএন জানায়, গত রবিবার হোয়াইট হাউসের বিশেষ এক সভায় সাধারণ ক্ষমা পাওয়া ব্যক্তিদের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!