হবিগঞ্জ

মোটরবাইকে চড়ে বিয়ের কাজ সারলেন বাইকার জুয়েল

বরযাত্রী থেকে শুরু করে বাড়িতে নতুন বউ আনা পর্যন্ত সবই হয়েছে মোটরসাইকেলে। তাই বিয়েটি এখন মাগুরার শালিখায় সর্বত্র আলোচনায়।

বর শালিখা উপজে’লার আড়পাড়া এলাকার জুয়েল মুন্সী (২৫)। তিনি ওই এলাকার মহর আলী মুন্সীর ছে’লে।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) তিনি মাগুরা সদরের ইছাখাদা এলাকার আক্কাস মোল্যার মে’য়ে লিমাকে বিয়ে করেন। তার দাবি, এখানে তিনিই প্রথম মোটরসাইকেলে বিয়ের এমন আয়োজন করলেন। আ’লোচিত এই বিয়ে এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখন ব্যাপক আ’লোচিত হচ্ছে।

জুয়েল জানান, এলাকায় তিনি জুয়েল বাইকার নামে পরিচিত। পড়ালেখা বলতে কলেজের গন্ডি পার হয়ে তিনি মালয়েশিয়া যান। ৬ বছর থেকে দেশে ফেরেন। এখন ব্যবসার সাথে যু’ক্ত। মোটরসাইকেল চালানো আর নতুন মডেলের বাইক পরিবর্তন করাই তারর শখ। জুয়েলের মা’থায় আসে তিনি বিয়ে করবেন মোটরবাইকে। সে ইচ্ছে থেকেই বিয়ের আগে নতুন মডেলের তিন লাখ টাকা দিয়ে টারো জিপি ১ নামের একটি মোটরবাইক কেনেন।

জুয়েল জানান, হবু বধূ লিমা’র সাথে তার সাত বছর ধরে প্রে’মের স’ম্পর্ক ছিল। পরে পারিবারিকভাবে বিয়ের দিন তারিখ নির্ধারিত হয়। সোমবার বিকেলে ২৭টি মোটরবাইকে চড়ে বন্ধু আত্মীয় স্বজন নিয়ে মাগুরার ইছাখাদা কনের বাড়িতে বরযাত্রী যান। বিয়ের সব কাজ শেষ করে নতুন বউ নিয়ে তিনি মোটরবাইকে শোভাযাত্রা করে নিজের বাড়ি নিয়ে আসেন।

অ’ভিনব এই বিয়েতে এলাকায় বেশ সাড়া পড়ে। রাস্তার দুই পাশে লোকজন ভিড় করেন বর-কনেকে দেখতে। মাগুরা বাইকার নামে ফেসবুক গ্রুপে ছবি ও ভিডিও পোস্ট করা হয়। এখানে গ্রপের সদস্যরা এই দম্পতিকে শুভ কা’মনা জানান।

জুয়েল দাবি করেন, দেশে তিনিই প্রথম বিয়ে করে মোটরবাইকে বউ আনলেন। এটা তার দীর্ঘ দিনের শখ ছিল। দুই পক্ষের মুরব্বীরা এভাবে বিয়ে করতে কেউ রাজি হচ্ছিলেন না। এনিয়ে অনেক ঝামেলা হচ্ছিল। কয়েকবার বিয়ের দিনও পাল্টানো হয়েছে। অবশেষে বাইকে বিয়ে করতে পেরে তার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।

জুয়েল মুন্সীর বন্ধু ইম’রান হোসেন, মানিক মাহামুদ ও বিএম জিসান জানালেন, বাইক প্রে’মিক বন্ধু জুয়েল বাইকে করে বিয়ে করতে পারায় তার সাথে আম’রাও আনন্দিত। তাদের সামনের দিনগুলো ভালো কাটুক-জানান তারা।

ফেসবুকে মাগুরা বাইকার গ্রুপের পরিচালক ফয়সাল বলেন, জুয়েলের বাইকে অ’ভিনব বিয়ের বিষয়টি তাদের গ্রুপে সাড়া ফেলেছে।

জুয়েলের বাবা মহর আলী মুন্সী জানান, আমাদের সমাজে মোটরসাইকেলে বিয়ে করার রেওয়াজ নেই। বিষয়টি অনেকেই অন্যভাবে নিচ্ছেন। তারপরও ছে’লে নাছোড়। তার শখ পূরণ করতেই এমন আয়োজন।

শালিখা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ আলী মোল্যা জানান, তার ইউনিয়নের আড়পাড়া এলাকার জুয়েলের মোটরবাইকে বিয়ের খবরটি তিনি শুনেছেন। বিষয়টি এলাকায় বেশ সাড়া ফেলেছে।

শালিকা থা’নার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. তরীকুল ইস’লাম জানান, মোটরবাইকে বিয়ের বিষয়টি তিনি শুনছেনে। তবে বিয়ের মতো বিষয়ে বরযাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে নিরাপত্তার কারণে এভাবে মোটরবাইক ব্যবহারকে তিনি নিরুৎসাহীত করেন।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!