আন্তর্জাতিক

ব্রিটেনের প্রতিটি ইউনিভা’র্সিটি করো’নায় আতঙ্ক

করো’নাভাই’রাস মহামা’রি এবার আ’ঘাত হানতে শুরু করছে ইউনিভা’র্সিটিগু’লিতে। প্রতিদিনই বাড়ছে করো’না পজেটিভ রোগীর সংখ্যা। প্রতিটি ইউনিভা’র্সিটি এখন করো’না আতংকে আতংকিত। শুধু ম্যানচেস্টার মেট্রোপলিটান ইউনিভা’র্সিটিতেই ১৭০জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯৯ জনের করো’না শনাক্ত হয়েছে।

ইউনিভা’র্সিটির এক মূখপাত্র বলেন, “আম’রা মনে করি ইউনিভা’র্সিটিগু’লি এখন পুরোপুরি লক ডাউন করা উচিত। ক্লা’শে না এসে বাসায় আইসোলেশনে থেকে অন লাইনের মাধ্যমে লেখা পাড়াকে আরো গ্রহন যোগ্য করে তুলতে হবে।”

এখন সময় এসেছে ইউনিভা’র্সিটিগু’লির স্টাফ ও শিক্ষার্থীদের রক্ষা করতে মন্ত্রীদের ও ইউনিভা’র্সিটিগুলোর জরুরি পদক্ষেপ। ইতিমধ্যে ফাউন্ডেশন বিষয়ে অনলাইনে ক্লাস শিফট করেছে ম্যানচেস্টার মেট্রোপলিটন ইউনিভা’র্সিটি।

ইউনিভা’র্সিটি এ্যান্ড কলেজ ইউনিয়নের জেনারেল সেক্রটারি জো গ্রাডি বলেন, “করো’নাভাই’রাস মহামা’রি একটি কঠিন। একে মোকাবেলা করতে হবে সতর্কতার সাথে। যার যার অবস্থান থেকে সতর্ক থাকতে হবে। এ সময় ক্লাসে না আসা আমাদের সবার জন্য ভালো।” তিনি আরো বলেন, “সারাদেশে হাজার হাজার শিক্ষার্থীকে শিক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিতে অনুমতি দেয়া হয়। এতে যে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে এ বিষয়ে আম’রা আগেই সতর্ক করেছিলাম।”

করো’না ভাই’রাস সংক্রমণ নতুন করে বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে একই রকম ব্যবস্থা নিয়েছে গ্লাসগো এবং এডিনবার্গ ন্যাপিয়েরে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। সেখানেও বাধ্যতামুলকভাবে আইসোলেশনে রাখা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এরপর ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক হাজার শিক্ষার্থীকে আইসোলেশনে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এরমধ্যে রয়েছে ম্যানচেস্টার মেট্রোপলিটন ইউনিভা’র্সিটির বারলে ক্যাম্পাস এবং কেমব্রিজ হলের প্রায় ১৭০০ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ৯৯ জনই করো’না পজেটিভ । তাদেরকে আগামী ১৪ দিন রুমের বাইরে যেতে বারণ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে করো’নার কোনো লক্ষণ না থাকলেও এ নির্দেশ মানতে বলা হয়েছে।

ওদিকে স্কটল্যান্ডে শিক্ষার্থীদেরকে পাব এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে। ২৫ শে সেপ্টেম্বর স্কাই নিউজের হাতে যেসব তথ্য এসেছিল, সেমতে, বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার পর থেকে কমপক্ষে ৫১০ জন শিক্ষার্থী ও স্টাফ আ’ক্রান্ত হয়েছেন।

ম্যানচেস্টার সিটি কাউন্সিলের নির্বাহী সদস্য কাউন্সিলর বেভ ক্রেইগ বলেছেন, এ পরিস্থিতি মানিয়ে নেয়া যুব সমাজের জন্য অবশ্যই কঠিন কাজ। এ সময়ে আম’রা বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্য সরকারি সেবা সার্ভিসগুলোর সঙ্গে কাজ করছি। এর মধ্য দিয়ে আম’রা নিশ্চিত করতে চাইছি যে, যেকোনো আ’ক্রান্ত শিক্ষার্থী যেন তার প্রয়োজন অনুযায়ী সেবা পান। এই শিক্ষার্থীরাই আমাদের সমাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

২২শে সেপ্টেম্বর প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে ১৮৫.৬ জন করো’নায় আ’ক্রান্ত হয়েছেন ম্যানচেস্টারে। এ সময়ে করো’না পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ২৬ জন। আগের সপ্তাহের তুলনায় এই সংখ্যা প্রায় দ্বিগুন। আগের সপ্তাহে প্রতি এক লাখে আ’ক্রান্তের হার ছিল ৯৩.২। অর্থাৎ মোট ৫১৫ জন আ’ক্রান্ত হয়েছেন। এ অবস্থায় তড়িঘড়ি করে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার জন্য সরকারকে দায়ী করেছেন লিবারেল ডেমোক্রেট নেতা স্যার এড ডাভে।

ম্যানচেস্টার ইউনিভা’র্সিটি এন্ড কলেজ ইউনিয়ন বলেছে, এই সংক্রমণ এক সপ্তাহের মধ্যে সর্বশেষ বিপর্যয়। এমনটাই পূর্বাভাষ করা হয়েছিল। কোভিড-১৯ বা করো’নাভাইরস মহামা’রি ইউনিভা’র্সিটির স্টুডেন্টদের ফাঁকা করে দিয়েছে।

৩২ টি ইউনিভা’র্সিটি স্টুডেন্টরা করো’নায় আ’ক্রান্ত।এখন লক ডাউনের ঝুঁ’কিতে ব্রিটেনের সকল ইউনিভা’র্সিটি।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!