সুনামগঞ্জ

ত্রিভুজ প্রে ম: বোনের হাতেই খু ন হন সুনামগঞ্জের পাপিয়া

নিউজ ডেস্ক- ত্রিভুজ প্রে মের জের ধরে বোনের হাতেই খু ন হন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের হলদিপুর গ্রামের পাপিয়া। নারায়ণগঞ্জ জে লা পিবিআইয়ের ত দন্তে ঘটনার ছয় মাস পর ওই হ ত্যা র হস্য উদ্‌ঘাটিত হয়।

রবিবার দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় নারায়ণগঞ্জ পিবিআই কার্যালয়ে এক সাংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পিবিআই পু লিশ সুপার মনিরুল ইস লাম।

পিবিআই জানায়, আড়াইহাজার থা না-পু লিশ চলতি বছরের ২৮ মে অ জ্ঞাত নামা এক নারীর লা শ উ দ্ধার করে। এ ঘটনায় আড়াইহাজার থা নায় মা মলা হয়। এ সময় পিবিআই নারায়ণগঞ্জ জে লার ক্রা ইমসিন টিম অ জ্ঞাতনামা নারীর লা শের আঙুলের ছাপ থেকে ভিকটিমের নাম পরিচয় উদ্‌ঘাটন করে জানতে পারে যে মৃ ত নারীর নাম পাপিয়া বেগম। সে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের হলদিপুর গ্রামের জয়নাল মিয়ার মে য়ে। এ ঘটনায় জয়নালকে গ্রে প্তারও করা হয়।

কিন্তু এতেও ঘটনার কোন কুল কিনারা করতে না পারায় পু লিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশে মা মলা টির ত দন্ত পিবিআই, নারায়ণগঞ্জ জে লাকে দেয়া হয়। পিবিআই গত ২৩ জুলাই এসআই মো. তৌহিদুল ইস লামকে ত দন্ত কর্মক র্তা নিযু ক্ত করে। ত দন্তের একপর্যায়ে গত মঙ্গলবার ঘটনার সঙ্গে জ ড়িত থাকার অ ভিযোগে মো. আরিফুল ইস লামকে গ্রে প্তার করা হয়। আরিফুল বিজ্ঞ আ দালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানব ন্দি প্রদান করেন।

জবানব ন্দিতে জানা যায়, আরিফুলের সাথে পাপিয়ার প্রে মের স ম্পর্ক ছিল। কিন্তু এই স ম্পর্ক তার বোন শাম্মি মেনে নিতে পারেনি। শাম্মি আরিফুলকে ভালোবাসত। বিষয়টি পাপিয়া জানতে পারলে দুজনের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়।

ঘটনার দিন আরিফুল, পাপিয়া এবং তার বোন শাম্মি সিদ্ধিরগঞ্জের নয়াআটির বাসায় অবস্থান করছিল। দুজনের ঝগড়ার কারণে আরিফুল তার পরিচিত একই বিল্ডিং এর ২য় তলায় জনৈক সামিয়ার বাসায় চলে যায়। কিছুক্ষণ পর আরিফুল আবার পাপিয়ার ঘরে এসে তার লা শ ঘরের বিছানার ওপর পড়ে থাকতে দেখতে পায়। এ সময় পাপিয়ার গলায় ওড়না প্যাঁচানো ছিল এবং শাম্মি ঘর থেকে বের হয়ে পালানোর চেষ্টা করছিল।

পরে তারা একজন স্থানীয় ডাক্তারকে ডেকে এনে জানতে পারে পাপিয়া মা রা গেছে। শাম্মির মাধ্যমে তার বাবা জয়নাল পাপিয়ার মৃ ত্যুর খবর জানতে পেরে ঘটনাস্থলে আসে।

পরে ভিকটিমের পিতা জয়নালের পরিকল্পনায় আরিফুল, জয়নালের ছে লে মামুন এবং শাম্মি মিলে পাপিয়ার লা শ ভৈরব ব্রিজ থেকে নদীতে ফেলে দেওয়ার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনামতো তারা সবাই মিলে একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে মৃ ত পাপিয়াকে নিয়ে রওনা হয়। কিন্তু পথিমধ্যে পু লিশের চেক পোস্ট থাকায় তারা আড়াইহাজার থা নার শিমুলতলায় রাস্তার পাশে জঙ্গলের ভেতরে পাপিয়ার লা শ ফেলে দিয়ে চলে যায়।

গ্রে প্তারকৃত পাপিয়ার পিতা জয়নাল মিয়াকে দুই দিনের পু লিশ রি মান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি আ দালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানব ন্দি প্রদান করেন।

মা মলার ত দন্ত কর্মক র্তা তৌহিদুল ইস লাম জানান, মা মলার অ পরাপর আ সামিদের গ্রে প্তারে অ ভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!