সিলেট

জাফলংয়ের জিরো পয়েন্টে ছবি তুলে পরিবার চালান ৪৬৭ জন ফটোগ্রাফার

জাফলং থেকে ফিরে, মহসিন রনিঃ ইন্টারনেট এর যুগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে আম রা প্রতিদিন কতই না রঙ বেরঙ এর ছবি আপলোড করি কোনো না কোনো ছবির কারিগরি এর একটি দুর্দান্ত ক্লিকের কারনে। তবে তাদেরও একটা ব্যাক্তিগত জীবন আছে ক’জন জানে তাদের গল্প তাদের দুঃখ।

সিলেটের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র গোয়াইনঘাট উপজে লার জাফলং যেখানে প্রতিদিন দেশ বিদেশ থেকে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে ছুটে আসেন কয়েক হাজার দর্শনার্থী, আর এসব দর্শনার্থীদের ছবি তুলার জন্য জাফলংয়ের পিকনিক স্পটে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছেন ৪৬৭ জন ফটোগ্রাফার। যার মধ্যে ১৪৭ জন রয়েছে তাদের কমিটিতে নিবন্ধিত বাকিরা আবেদন করেছেন। প্রতিদিন ছবি তুলে যে টাকা আয় করেন তা দিয়ে সংসার চালান এ সব ছবির কারিগররা।

করো নাকালে পরিবার নিয়ে ছিলেন মহা সংকটে তবে পর্যটন কেন্দ্র খোলায় কিছুটা হলেও হাসি ফুটেছে তাদের মুখে। তাদের এই হাসির আড়ালে আছে অনেক আক্ষেপ আধুনিকতার ছোয়ায় মানসম্মত মোবাইল ক্যামেরার আবিষ্কার হওয়ায় অনেকেই এখন ডিএসএলআর ক্যামেরায় ছবি তুলতে চাননা। যার ফলে পেশা হিসেবে ছবি তুলা এখন পেন্ডুলামের মত ঝুলছে।

সাইফুর রহমান নামের এক ফটোগ্রাফার বলেন, আমাদের এখানে প্রায় ৪৬৭ জন ফটোগ্রাফার আছে যার মধ্যে ১৪৭ জন কমিটির আওতায় রয়েছে বাকিরা আবেদন করেছে। প্রতিদিন ছবি তুলে যা পাই তা দিয়ে সংসার চলে তবে আগের তুলনায় মানুষ এখন ছবি তুলছে চায় না।

জাকির হোসেন নামের আরেক ফটোগ্রাফার বলেন, করো নাকালে একটা ধাক্কা খেয়েছি অনেক ক ষ্টে সংসার চালিয়েছে সেই অধ্যায়কে পেছনে ফেলে কিছুটা স্বস্তিতে আছি ।

জাফলং বডার গার্ড কার্যালয় থেকে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার জুড়ে এদের আনাগোনা পরিবারের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য পেশা হিসেবে ছবি তুলাকেই বেছে নিয়েছেন। কেই বা জানে একদিন হয়তো মোবাইল ক্যামেরার দাপটে হারিয়ে যাবে ফটোগ্রাফি পেশা।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!