খেলাধুলা

এবার ৪ মিনিট ১৯ সেকেন্ডের কথোপকথন, নেট দুনিয়া তোলপাড়

‘ব্যাড বয়’ হিসেবে ক্রিকেটপাড়ায় আলাদা একটা পরিচয় আছে অনেকদিন জাতীয় দলের বাইরে থাকা স্পিনিং অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের। সেটা অবশ্য নিজের বিভিন্ন ‘বিতর্কিত’ বিভিন্ন কর্মকা’ণ্ডের কারণেই। সম্প্রতি বিয়ে করেছেন আ’লোচিত এই ক্রিকেটার। তার বিয়ে নিয়েও শোনা যাচ্ছে নানা কথা।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে বিয়ের খবর দিয়েছিলেন নাসির। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কনেসহ ছবি পোস্ট করে দোয়া চেয়েছিলেন ভক্তদের কাছে। কিন্তু সপ্তাহখানেক না যেতেই শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক।

জানা গেছে, নাসিরের স্ত্রী’ তামিমা তাম্মির এটি দ্বিতীয় বিয়ে। প্রথম বিয়ে করেছিলেন ২০১১ সালে। ছয় বছরের একটি কন্যাসন্তানও আছে। শোনা যাচ্ছে, প্রথম স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ প্রক্রিয়া না করেই নাকি নাসিরকে বিয়ে করেছেন তামিমা। এ বিষয়ে আইনি সহায়তা চেয়েছেন তামিমা’র প্রথম স্বামী রাকিব। সাধারণ ডায়রিও (জিডি) করেছেন তিনি।

এরই মধ্যে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাই’রাল হয়ে পড়েছে একটি ফোনালাপের অডিও ক্লিপ। তাতে যে দু’জনকে কথা বলতে শোনা গেছে, তারা দু’জনে নিজেদের নাসির এবং রাকিব হিসেবেই পরিচয় দিয়েছেন। ৪ মিনিট ১৯ সেকেন্ডের এই কথোপকথনে নাসিরকে তামিমা’র প্রথম স্বামী জিজ্ঞাসা করছেন, নাসির কেন না জেনেই প্রথম স্বামী বর্তমান থাকা সত্ত্বেও তামিমাকে বিয়ে করেছেন।

পাঠকদের জন্য নাসির হোসেন ও রাকিবের কথোপকথনটি হুবহু তুলে ধ’রা হলো—

নাসির: হ্যালো, আমি নাসির হোসেন বলছিলাম।

রাকিব: কোথা থেকে?

নাসির: আমি ক্রিকেটার নাসির হোসেন বলছিলাম।

রাকিব: ওহ…

নাসির: এটা রাকিবের নাম্বর না?

রাকিব: হ্যাঁ, আমি রাকিব বলছিলাম।

নাসির: আপনি সেই রাকিব কিনা….

রাকিব: সেই রাকিব মানে?

নাসির: আমি আপনাকেই চাচ্ছিলাম, ভালো আছেন আপনি? ভাইয়া, আমি তামিমা’র ব্যাপারে কিছু কথা বলার জন্য আপনাকে ফোন দিয়েছি।

রাকিব: হ্যাঁ, বলুন…

নাসির: আপনি যা করলেন… আপনি নাকি জিডি করছেন?

রাকিব: হ্যাঁ, করছি। বলেন

নাসির: এগুলা করে কী’ পাচ্ছেন আপনি, আমাকে একটু বলবেন?

রাকিব: কিছু পাচ্ছি না। আচ্ছা আপনি কী’ তামিমা’র স’ম্পর্কে সবকিছু জানেন?

নাসির: আমি সবকিছুই জানি ভাইয়া।

রাকিব: কী’ কী’ জানেন আপনি?

নাসির: ওর বাচ্চা আছে, বিয়ে হয়েছে, বয়ফ্রেন্ড ছিল… আমি ওর সবকিছুই জানি। আমি জেনেশুনেই বিয়ে করেছি। এখন আপনি কি চান না তামিমা হ্যাপি থাকুক?

রাকিব: হ্যাঁ, তামিমা তো হ্যাপি থাকতেছে। আমি তো আর ডিসটার্ব করছি না। জিডি করেছি কারণ তামিমা তো আমাকে কোনো পেপার দেয়নি। তামিমা’র সঙ্গে আপনার যখন কথা হয়, তখন আমি ওকে জিজ্ঞাসা করলাম যে তামিমা, নাসির কে? সে বলল, আমা’র ফ্রেন্ড, বার্থডেতে আসছিল…। জাস্ট ফ্রেন্ড…

নাসির: ভাইয়া শোনেন…

রাকিব: আপনি আমা’র কথা শোনেন। আপনি সবই জানেন (বিয়ে, বাচ্চা), জেনেশুনে আরেকজনের বউকে বিয়ে করে ফেললেন! সে যদি আমাকে বলত, রাকিব তোমা’র সঙ্গে থাকতে আমা’র ভালো লাগে না, চলে যাব। ওকে, চলে যাবে। আমা’র কোনো সমস্যা ছিল না। তো আসত, আমা’র সঙ্গে বসত, আমাকে কাগজ দিত, স’ম্পর্ক ছিন্ন করত। ভবিষ্যতে আমিও তো বিয়ে করব, তাই না? সো, আমা’রও তো কাগজের দরকার আছে। সে এসব কিছু না করেই আপনাকে বিয়ে করল।

নাসির: সে কিন্তু চলে গেছে, সেটা দেখেই বিয়ে করছি আমি। ঠিক আছে?

রাকিব: ভাই দেখেন, আপনি কী’ দেখে বিয়ে করছেন, আমি জানি না। আমি আট বছর আগে বিয়ে করছি। আমা’র মে’য়ের বয়স ছয় বছর। আমি তার জন্য কী’ করছি না করছি, আপনি কিছুই জানেন না। আপনি বললেন যে আমি চাই কি না যে তামিমা সুখে থাক। তো আমি আপনাকে জিজ্ঞাসা করছি, আপনি চান না যে আমি আর তামিমা সুখে থাকি? আপনি সেটা কী’ভাবে করলেন? একজনের মে’য়ে আছে, সংসার আছে…।

নাসির: আপনার সঙ্গে তো তার সংসার নাই, বুঝছেন না? ভাই, আমি এত ঘুরিয়ে পেচিয়ে কথা বলতে পছন্দ করি না। আমি শুধু এতটুকু জানতে চাই যে আপনি কি চান না যে তামিমা সুখে থাক? যদি চান, তাহলে এটা নিয়ে আর কিছুই কইরেন না। যদি তামিমা আপনার সঙ্গে হ্যাপি থাকত, তাহলে আপনার কাছেই থাকত।

রাকিব: আচ্ছা, আপনি আমাকে ফোন দিয়েছেন কেন? আমি তো আপনাকে চিনি না। ফোন তো আমাকে দেবে তামিমা।

নাসির: তামিমা কেন ফোন দেবে?

রাকিব: অবশ্যই তামিমা ফোন দেবে। তামিমা’র সমস্যা, সে আমাকে ফোন দেবে। নাকি এখন আপনার সমস্যা? আপনি কি জানেন, আপনি যে বাসায় থাকতেছেন সেই বাসার ফার্নিচারগুলোও আমা’র?

নাসির: তাই! আমি জানি সবকিছুই জানি।

রাকিব: আপনাকে যদি আপনার স্ত্রী’ বলে… সে করো’নার আগে যখন গেল, গিয়ে আ’ট’কা পড়ল, তার আগেও তো আমা’র সঙ্গে দেখা করে আমা’র সঙ্গে থেকেছে।

নাসির: আচ্ছা… ভাই আমা’র কথাটা আপনি শোনেন।

রাকিব: আপনার সে কিভাবে গার্লফ্রেন্ড হলো, বলেন তো? ভাই আমি এখন আসরের নামাজে যাব। আমি এখন আপনার সঙ্গে কথা বলতে পারতেছি না বলে দুঃখিত।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!