তিন মাস পর মালয়েশিয়ার ম'সজিদে নামাজের অনুমতি

নিউজ ডেস্ক-টানা তিন মাসপর মালয়েশিয়ার ম'সজিদগুলোতে নামাজ আদায়ের অনুমতি দেয়া হয়েছে। দেশটির সেলাঙ্গর রাজ্যের সুলতান শরাফউদ্দিন ইদ্রিস শাহ এ আদেশ দিয়েছেন। বুধবার (১ জুলাই) সেলাঙ্গর সুলতানের দাতুক মোহামাদ মুনির বানির একান্ত সচিব স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলেছেন এই অনুমোদন শুক্রবার থেকে কার্যকর হবে।

সেলাঙ্গর রয়্যাল অফিসের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, দৈনিক স্ট্যান্ডার্ড অ'পারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) মেনে ৩ জুলাই শুক্রবার থেকে জুমা'র নামাজের মধ্যদিয়ে পাচঁ ওয়াক্তি নামাজ আদায়ে খোলে দেয়া হবে ম'সজিদ ও সূরাউগু'লি।রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিচালক, ধ'র্মীয় কাউন্সিল (এমএআই'এস), মুফতি বিভাগ এবং ধ'র্মীয় বিভাগ (জেএআই'এস) -এর কোভিড -১৯ স'ম্পর্কিত নতুন ঘটনা স'ম্পর্কে ব্রিফিংয়ের পরে এই আদেশ জারি করা হয়েছে।

সুলতানের একান্ত সচিব মোহামাদ মুনির সাংবাদিকদের বলেছেন, সুলতান আদেশ দিয়েছেন, রাজ্যের তিনটি ম'সজিদে যে কোনও এক সময় শুক্রবারের নামাজ ও পাচঁ ওয়াক্তি নামাজ আদায় করতে পারবেন তাদের সংখ্যা এক হাজারের বেশি হবে না।

ম'সজিদগু'লি হলো, শাহ আলমের ম'সজিদ, সুলতান সালাহউদ্দিন আবদুল আজিজ শাহ, বুকিট জে'লুটংয়ের ম'সজিদ, টেংকু আম্পুয়ানজেমাহ এবং সাইবারজায়া ম'সজিদ রাজা হাজী ফি সাবিলিল্লাহ।

এছাড়া অন্যান্য সকল ম'সজিদে শুক্রবারের নামাজ ও ওয়াক্তি নামাজে উপস্থিতির সংখ্যা ৫০০-এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। সুরাওয়ের ক্ষেত্রে, শুক্রবারের নামাজ ও ওয়াক্তি নামাজে উপস্থিতির সংখ্যা ৪০ জন নির্ধারণ করা হয়েছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, জামাতে নামাজ আদায়কারী প্রত্যেককে জেএআই'এসের নির্ধারিত এসওপি মেনে চলতে হবে, বিশেষত বাড়িতে ওযুকরে নেওয়া, নিজের নামাজের চাটাই সাথে নিয়ে আসা, ম'সজিদ ও সূরাতে মাস্ক পরা এবং সামাজিক দূরত্ব অনুশীলন করা। আর যাঁরা ভাল নন, তাঁদের ম'সজিদ ও সূরাউয়ে মোটেই নামাজ আদায়ের অনুমতি নেই।

এদিকে সেলাঙ্গর সুলতান হারি রায়া ঈদুল আদহায় পশু কোরবানি (ইবাদাহ কোরবান) কেবল ম'সজিদেই পরিচালনা করার আদেশ দিয়েছেন।

সুলতানের এ আদেশ বাস্তবায়ন ও প্রশাসনিক বিষয় জেএআই'এসের পরিচালক, ম'সজিদ এবং সূরাউ স'ম্পর্কিত কমিটি দ্বারা জারি করা হবে বলে একান্ত সচিব মোহাম্ম'দ মুনির জানিয়েছেন।