এবার ভা'রতের দাবি'কৃত ভূখণ্ড মানচিত্রভুক্ত করেছে চীন, নতুন উত্তে'জনা

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ বিতর্কিত এলাকাকে নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করে আবারও দুই দেশের মধ্যে উত্তে'জনার আ'গুনকে উসকে দিল চীন। প্যাংগংয়ের বিতর্কিত এলাকাকে নিজেদের বলে দাবি করে চিহ্নিতও করল জিনপিংয়ের দেশ।

দখলে ম'রিয়া হয়ে চীন এখন চাইছে যেকোনও ভাবেই হোক ভা'রতীয় জমি অধিগ্রহণ করতে। টহলদারী সীমান্ত নিয়ে বরাবরই ভা'রত ও চীনের মধ্যে চাপা উত্তে'জনা ছিল। ভা'রত বিশ্বা'স করে ‘ফিঙ্গার ১’ থেকে ‘ফিঙ্গার ৮’ পর্যন্ত টহল দেয়ার অধিকার রয়েছে তাদের এবং চীন মনে করে যে ‘ফিঙ্গার ৮’ থেকে ‘ফিঙ্গার ৪’ পর্যন্ত টহল দেয়ার অধিকার রয়েছে তাদেরই। তথ্যসূত্র : এনডিটিভি

গত ১৫ জুন এই ‘ফিঙ্গার ৪’ এলাকাতেই উভয় পক্ষের সে'নার মধ্যে সহিং'স সং'ঘর্ষ বাঁধে। পরে উভয় পক্ষের সীমানা যেখানে কয়েক হাজার ভা'রতীয় সৈন্যকে লা'ঠির মা'থায় কাঁ'টাতার লাগানো অ'স্ত্র দিয়ে আক্রমণ করা হয়েছিল।

‘ফিঙ্গার ৪’-এ এই জন্যেই উল্লেখযোগ্য হারে সে'নার সংখ্যা বাড়িয়েছে চীন যাতে ভা'রতীয় সে'নারা আর ‘ফিঙ্গার ৮’ এর দিক দিয়ে টহল দেয়ার সুযোগ না পায়।

উপগ্রহ চিত্র থেকে যে ছবিগুলো পাওয়া গেছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে এই অঞ্চলে চীনের সে'নাবাহিনী অনেক বেশি সংখ্যায় মোতায়েন রয়েছে। তারাই ভা'রতীয় সে'নাদের টহল দেয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

যে এলাকাটি চীন ইতোমধ্যেই দখল করার চেষ্টা করছে, উপগ্রহ চিত্রে দেখা গেছে সেখানে কমপক্ষে ১৮৬টি সে'না ছাউনি, আশ্রয়কেন্দ্র এবং বিভিন্ন আকারের তাঁবু স্থাপন করা হয়েছে।

গত রোববার ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদি ভা'রত-চীন উত্তে'জনার বিষয়ে বলেন, ‘লাদাখে ভা'রতের দিকে যারা চোখ তুলে তাকিয়েছে তারা যোগ্য জবাব পেয়েছে। ভা'রত যদি বন্ধুত্ব করতে জানে, তবে কী'ভাবে পাল্টা চ্যালেঞ্জ জানানো উচিত সেটাও জানে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কারওকে ভা'রত মাতার সম্মান খর্ব করার অনুমতি যে দেওয়া হবে না, তা স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন আমাদের সাহসী জওয়ানরা। এমনকী' যে জওয়ানরা শহিদ হয়েছেন তাদের পরিবার বীর সন্তানদের আত্মত্যাগের জন্যে গর্ব অনুভব করছেন। এটাই দেশের শক্তি।’

গত ১৫ জুন ভা'রত ও চীনের সে'নাদের মধ্যে সং'ঘর্ষে প্রা'ণ যায় এক কর্নেল সহ ২০ জন ভা'রতীয় সে'নার এবং আ'হত হন ৭০ জনেরও বেশি সে'না। তারপর থেকেই দু’দেশের মধ্যে সীমান্তে উত্তে'জনা যেন আরও বাড়ছে।