কবর দেওয়ার জায়গা নেই:সুনামগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার লা'শ দাফনের জায়গা দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

হাসান আহম'দ, ছাতক প্রতিনিধি::সুনামগঞ্জের ছাতকে মুক্তিযোদ্ধা মফজ্জুল অালীর (৭০) দাফন সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার বেলা ৩টায় উপজে'লার গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের তকিপুর গ্রাম সংলগ্ন মাঠে জাযানা নামায শেষে রাষ্ট্রিয় ম'র্যাদায় তার লা'শ দাফন করা হয়।

তিনি উপজে'লার দক্ষিন খুরমা ইউনিয়নের মনিরজ্ঞাতি-কুম্বায়ন গ্রামের মৃ'ত ইসকন্দর অালীর পুত্র। রোববার রাত ৩টায় নিজ বাড়িতে শেষ নি:শ্বা'স ত্যাগ করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভোগছিলেন। মৃ'ত্যুকালে স্ত্রী', এক পুত্র ও ছয় কন্যাসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

এদিকে ভ'য়াবহ ব'ন্যার কারণে নিজ গ্রাম ও এলাকায় কবর দেয়ার মতো জায়গা পাওয়া যায়নি। পরিবারের লোকজন স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের সাথে যোগাযোগ করার পর তাকে বাঁশতলায় কবর দেয়ার কথা জানানো হয়। অবশেষে গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অাখলাকুর রহমানের সম্মতিতে তকিপুরস্থ তাঁর পারিবারিক কবরস্থানে এ মুক্তিযোদ্ধার লা'শ দাফন সম্পন্ন হয়। তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন, উপজে'লা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাপস শীল।

জানাযার নামাযে ই'মামতি করেন, তকিপুর জামে ম'সজিদের ই'মাম মা'ওলানা রোকন উদ্দিন। এসময় থা'নার এসঅাই ইমতিয়াজ সরকার, গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অাখলাকুর রহমান, উপজে'লা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার অানোয়ার রহমান তোতা মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা সিরাজ উদ্দিন ও অাক্রম অালী, জসিম উদ্দিন মেম্বার, দক্ষিন খুরমা ইউপি ভা'রপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সোহেল অাহম'দ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজে'লা নির্বাহী অফিসার মো. গো'লাম কবির বলেন, ব'ন্যার কারণে মুক্তিযোদ্ধার গ্রাম বা এলাকায় কবরস্থ করার জায়গা পাওয়া যায়নি। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কোন অাপত্তি না থাকায় বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অাখলাকুর রহমানের তকিপুরস্থ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করার সুযোগ দেয়ায় তিনি অাখলাক চেয়ারম্যানের ভূয়সী প্রশংসা করেন।##