১৭ বছর ধরে ব্রিটিশ সরকারের ভুলের মাশুল দিচ্ছেন বাংলাদেশী সাইফুল

মুনজের আহম'দ চৌধুরী, লন্ডনঃ হোম অফিসের (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়) ভুলে দীর্ঘ ১৭ বছর আইনি ল'ড়াই করতে হয়েছে পটুয়াখালী থেকে যু'ক্তরাজ্যে পাড়ি জমানো সাইফুল ইস'লামকে। যৌন হয়'রানির সেই মিথ্যা মা'মলায় এরইমধ্যে নির্দোষ প্রমাণিত হলেও তাকে সেদেশে রাখতে রাজি নয় ব্রিটিশ সরকার। বৈধ কাগজপত্র থাকা সত্ত্বেও ভুলের খেসারত হিসেবে সাইফুলকে মাত্র ৬ হাজার পাউন্ড দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চাইছে তারা। মিথ্যা মা'মলা আর ভেগান্তির মধ্যে জীবনের ১৭টি বছর পার করে দেওয়া সাইফুল এখন নিঃস্ব। তারপরও হাল ছাড়েননি তিনি। ব্রিটিশ হোম অফিসের এ অন্যায্য আচরণের বি'রুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে যাচ্ছেন তিনি। রবিবার (২৮ জুন) বাংলা ট্রিবিউনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সাইফুল জানিয়েছেন তার সেই দুঃসহ অ'ভিজ্ঞতার কথা।

সাইফুল ইস'লামের বাড়ি পটুয়াখালীর কলাপাড়া থা'নায়। জীবিকার তাগিদে ২০০৩ সালে ব্রিটেনে পাড়ি জমান। শেফ হিসেবে যোগ দেন একটি রেস্তোরাঁয়। তবে ভাগ্য বেশিদিন সহায় হয়নি। পড়ে যান যৌ'ন হয়'রানির মিথ্যা মা'মলার কবলে। এ নিয়ে ১৮ টি মা'মলা ল'ড়তে হয় সাইফুলকে। শেষ পর্যন্ত ব্রিটেনের আ'দালতে প্রমাণিত হয়, হোম অফিসে সাইফুলের জমা থাকা কয়েকটি কাগজ ভুল করে মিশে যায় অন্য তিন অ'প'রাধীর কাগজের সাথে। এতেই বাঁধে বিপত্তি। দীর্ঘ আইনি ল'ড়াইয়ের পর ব্রিট্রিশ হোম অফিস কর্তৃপক্ষ এর জন্য সাইফুলের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা'ও চেয়েছে।

২০১৯ সালে সাইফুলকে বাংলাদেশে ফেরার নির্দেশ দেয় ব্রিটিশ সরকার। ভুলের ক্ষতিপূরণ হিসেবে সাইফুলকে ৫ হাজার পাউন্ড দেওয়ার নির্দেশ দেন আ'দালত। রায়কে অন্যায্য আখ্যা দিয়ে আ'দালতের বাইরে, ব্রিটিশ পার্লামেন্ট ও ব্রিটিশ সুপ্রিম কোর্ট, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে হ্যান্ড মাইক হাতে বিক্ষোভ করেন সাইফুল। এরই মধ্যে হাউস অব কমন্সের একাধিক সদস্য, ওয়েলসের ফাস্ট মিনিস্টারসহ অনেকে তার প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে চিঠি দিয়েছেন।

সাইফুলের প্রতি এ অন্যায্যতা নিয়ে ব্রিটেনের মুলধারার সংবাদমাধ্যম বিবিসি, স্কাই নিউজ ও গার্ডিয়ানে খবর প্রকাশিত হয়। এরপর হোম অফিসের পক্ষ থেকে সেই পাঁচ হাজার পাউন্ডের সঙ্গে অ'তিরিক্ত এক হাজার পাউন্ড ক্ষতিপূরণের প্রস্তাব দেওয়া হয় তাকে।

সাইফুল ইস'লাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ভুল অ'ভিযোগে ১৮টি মা'মলা ল'ড়তে গিয়ে জীবনের ১৭টি বছর হারিয়ে গেছে আমা'র জীবন থেকে। আমি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।’ এই দীর্ঘ সময়ে একবারও দেশে ফিরতে পারেননি তিনি। ব্রিটেনে তার কোন আত্মীয়ও নেই। সাইফুল আক্ষেপ করে বলেন, ব্রিটিশ সরকার তার জীবনের এই ১৭টি বছরের মূল্য নির্ধারণ করেছে ৬ হাজার পাউন্ড। তবে তিনি তা মানতে নারাজ। ল'ড়তে চান সরকারের এই অমানবিক সিদ্ধান্তের বি'রুদ্ধে।

লন্ডনে আসার আগে সর্বশেষ ঢাকার মৌচাকে ইউরো গার্ডেন নামে একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন সাইফুল। তিনি বলেন, ‘ব্রিটেনে আসার আগে এক যুগ দক্ষ শেফ হিসেবে ঢাকার বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় কাজ করেছি। ব্রিটিশ সরকার আমাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠিয়ে দিলেও কাজ করে খেতে পারব। এ দেশে থাকলেও কাজ করেই খেতে হবে। সেটা কোন বিষয় না। ব্রিটেনের হোম অফিসের অবহেলা, ভুল, দীর্ঘসুত্রিতার কারণে বহু বাংলাদেশির পরিবার, সংসার বিপর্যস্ত হয়েছে। মানুষ সীমাহীনভাবে ভুক্তভোগী। মানুষ হাল ছেড়ে দেয়। কিন্তু আমি হাল ছাড়িনি।’

সাইফুল আরো বলেন, ‘এ ল'ড়াই আমা'র একার না। হোম অফিস মানেই ব্রিটেনের অ'ভিবাসীদের কাছে একটা আতঙ্কের নাম। সরকারের সেবাদাতা একটি প্রতিষ্ঠান কেন জনগনের জন্য আতঙ্কের কারণ হবে? আমি ল'ড়াই করেছি অন্যায়ের বি'রুদ্ধে। আ'দালতের সকল নথি, চিঠিপত্র ও রায় প্রকাশ্যে আনার একমাত্র কারণ প্রতিবাদ করা।’

লন্ডনে ইমিগ্রেশন আইন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আইনি সেবা দিচ্ছেন সলিসিটর, কলাম লেখক বিপ্লব কুমা'র পোদ্দার। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সাইফুলের বিষয়টি হোম অফিস মানবিকভাবে দেখতে পারত। হোম অফিস বা অন্য যে কারও ভুলের দায়ে একজন অ'ভিবাসীর জীবনের ১৭ বছরের ক্ষতিপূরণ মাত্র ছয় হাজার পাউন্ড হতে পারে না।’ সৌজন্যঃবাংলা ট্রিবিউন