চীনের জন্য উদার হাতে বর্ডার খুলে দিলো নেপাল, ভা'রত দুশ্চিন্তায়

চীনের সঙ্গে বাণিজ্যের জন্য নিজের সীমান্ত খুলে দিল নেপাল। নির্মাণ কাজের কাঁচামাল, জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র ও বিমানবন্দর নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহের জন্য সীমান্ত খুলে দেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যে জানা গেছে।

করো'নাভাই'রাস সংক্রমণের জন্য চীনের সঙ্গে নিজেদের দুটি সীমান্ত টাটোপানি ও রসুয়াগাড়ি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। ৮ এপ্রিল খুলে দেওয়া হয় টাটোপানি সীমান্ত। এবার খোলা হল রসুয়াগাড়ি সীমান্ত। নেপাল-চীনের মধ্যে এক তরফা সরবরাহের জন্য বিশেষ চুক্তি হয়েছে। সেই প্রেক্ষিতেই সীমান্ত খুলে দেওয়ার এই সিদ্ধান্ত। তবে কাঠমান্ডু পোস্টের প্রতিবেদনে ঠিক কবে সীমান্ত খুলে দেওয়া হচ্ছে, তার উল্লেখ নেই।

রাসুয়া এলাকার মুখ্য জে'লা কর্মক'র্তা হরি প্রসাদ পন্ত জানান দুই দেশের মধ্যে সদর্থক আলোচনার পরই সীমান্ত খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তনেওয়া হয়েছে। বুধবার এই আলোচনা হয়। দুই দেশের মধ্যে এই আলোচনা হয় মৈত্রী ব্রিজ বা ফ্রেন্ডশিপ ব্রিজে। চুক্তি অনুযায়ী চীনের কার্গো ট্রাক নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য নেপাল সীমান্তে নামিয়ে দেবে।
চীনের কার্গো ট্রাক ফিরে গেলে নেপালি চালক ও খালাসিরা সেই পণ্য ফের দেশের ভিতরে নিয়ে যাবে। প্রাথমিকভাবে দিনে মোট চারটি ট্রাক যাতায়াত করবে। পরে ধীরে ধীরে সেই সংখ্যা বাড়ানো হবে। ভৈরবাহা ও পোখারা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তৈরির জন্য কাজ দ্রুত গতিতে চালাচ্ছে নেপাল।

জুলাই মাসের মাঝামাঝি এই কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও লকডাউনের জন্য সময়সীমা বেড়ে গেছে। চীনের সঙ্গে নতুন করে সখ্যতা হওয়ার পর ভা'রতের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াচ্ছে নেপাল। কথায় বলে সরব শত্রুর থেকে নীরব বন্ধু অনেক বেশি ক্ষতিকারক। নেপাল ঠিক সেই কাজটাই করে চলেছে।

ভা'রতের সে'নাপ্রধান এমএন নারাভানে আগেই স'ন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন নেপালের দ্বিচারিতার পিছনে বেইজিংয়ের বড় ভূমিকা রয়েছে। সেই স'ন্দেহকে সত্যি প্রমাণ করে একের পর এক ভা'রতবিরোধী পদক্ষেপ নিয়ে চলেছে কাঠমান্ডু। এবার ভা'রত-নেপাল সীমান্ত লাগোয়া গ্রামগুলো সূত্রে চাঞ্চল্যকর খবর মিলছে।

জানা গেছে, নেপালের রেডিও স্টেশনগুলো সীমান্তজুড়ে ভা'রতবিরোধী প্রচার চালাচ্ছে। কালাপানি, লিপুলেখ ও লিম্পিয়াধুরা যে নেপালেরই অংশ এবং এই বিষয়ে ভা'রত যে মিথ্যা দাবি করছে, সেই বক্তব্য তুলে ধরে প্রচার চালাচ্ছে নেপালের রেডিও স্টেশনগুলো বলে খবর।

ভা'রত নেপাল সীমানা লাগোয়া পিথোরাগড় দারচুলা মহকুমা'র দান্তু গ্রামে বসবাসকারী এক বাসিন্দা জানান বেশ কয়েকটি নেপালি রেডিও স্টেশন ভা'রতবিরোধী বার্তা প্রচার করছে বিভিন্ন নেপালি গানের সম্প্রচারের ফাঁকে ফাঁকে। নেপালি নেতাদের ভা'রতবিরোধী বক্তব্যও প্রচার করা হচ্ছে। নয়া নেপাল ও কালাপানি রেডিও নামে দুটি স্টেশন এই প্রচার চালাচ্ছে। সূত্র: কলকাতা২৪