দুই হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন দুই ভাই

নিউজ ডেস্ক- গত ১০ বছরে ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও তার ভাই ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেল অ'বৈধভাবে অর্জিত দুই হাজার কোটি টাকা হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেছেন।

পু'লিশের অ'প'রাধ বিভাগের (সিআইডি) ত'দন্তে এ তথ্য উঠে এসেছে। এ ঘটনায় ঢাকার কাফরুল থা'নায় তাদের বি'রুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে একটি মা'মলা করা হয়েছে।

পু'লিশের অ'প'রাধ ত'দন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক এসএম মিরাজ আল মাহমুদ বাদী হয়ে গত শুক্রবার (২৬ জুন) ঢাকার কাফরুল থা'নায় মা'মলা'টি করেন। মা'মলায় দুই ভাইয়ের বি'রুদ্ধে দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদ অ'বৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অ'ভিযোগ আনা হয়। ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন সংশোধনী ২০১৫-এর ৪(২) ধারায় এ মা'মলা'টি করা হয়।

মা'মলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২০১০ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত ফরিদপুরের এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল পরিমাণ অ'বৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন বরকত ও রুবেল। এছাড়া মা'দক কারবারি এবং ভূমি দখল করে অ'বৈধ সম্পদ করেছেন তারা। এসি ও নন-এসিসহ ২৩টি বাস, ড্রাম ট্রাক, বোল্ডার ও পাজেরো গাড়ির মালিক হয়েছেন। সেই সঙ্গে দুই হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেন তারা।

মা'মলার এজাহারে আরও উল্লেখ করা হয়, প্রথম জীবনে দুই ভাই রাজবাড়ীর এক বিএনপি নেতার সঙ্গী ছিলেন। তখন তাদের সম্পদ বলতে কিছুই ছিল না। ১৯৯৪ সালের ২০ নভেম্বর ওই এলাকায় এক আইনজীবী খু'ন হন। ওই হ'ত্যা মা'মলার আ'সামি ছিলেন বরকত ও রুবেল।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কাফরুল থা'না পু'লিশের ভা'রপ্রাপ্ত কর্মক'র্তা (ওসি) মো. সেলিমুজ্জামান বলেন, মা'মলা'টি করেছে সিআইডি। মা'মলার ত'দন্তকাজ সিআইডি পরিচালনা করবে।

সিআইডির পরিদর্শক এসএম মিরাজ আল মাহমুদ বলেন, মানি লন্ডারিংয়ের মা'মলায় দুই ভাইকে গ্রে'ফতার দেখানো হবে। পরে আ'দালতে তাদের ১০ দিন করে রি'মান্ডের আবেদন জানানো হবে।

তিনি বলেন, ১৮ জুন এ ঘটনার ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা নিযু'ক্ত হয়ে ত'দন্ত শুরু করি। প্রাথমিক ত'দন্তে জানতে পারি গত ১০ বছরে অন্তত দুই হাজার কোটির অধিক টাকা অ'বৈধ উপায়ে উপার্জন করেছেন বরকত ও রুবেল। এরই মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন দুই ভাই।

এদিকে রোববার (২৮ জুন) ফরিদপুরে দুটি পৃথক মা'মলায় সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ইমতিয়াজ হাসান রুবেলকে আরও দুদিন করে রি'মান্ড মঞ্জুর করেছেন আ'দালত। এ নিয়ে পাঁচ দফায় দুই ভাইয়ের মোট ২২ দিন রি'মান্ড মঞ্জুর হলো। ইতোমধ্যে চারটি মা'মলায় ২০ দিন রি'মান্ডে ছিলেন দুই ভাই।

রোববার বিকেলে রি'মান্ড আবেদনের শুনানি শেষে দুই ভাইয়ের দুদিন করে রি'মান্ড মঞ্জুর করেন ফরিদপুরের এক নম্বর আমলি আ'দালতের বিচারিক হাকিম মো.ফারুক হোসাইন।

ফরিদপুর বিআরটিসি বাসের কাউন্টার পরিচালক দুলাল লস্করের করা চাঁদাবাজির মা'মলায় বরকতের দুদিন এবং সদর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম চৌধুরীর করা চাঁদাবাজির মা'মলায় হাসানের দুদিন রি'মান্ড মঞ্জুর করেন আ'দালত।

এর আগে একটি অ'স্ত্র মা'মলায় ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের এবং চাঁদাবাজি মা'মলায় সাজ্জাদ হোসেন বরকতের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানব'ন্দি গ্রহণ করেন একই আ'দালত।

রি'মান্ড শুনানির আগে দুপুরে সাজ্জাদ হোসেন ও ইমতিয়াজ হাসানকে কড়া পু'লিশ পাহারায় আ'দালতে নিয়ে আসা হয়। শুনানি শেষে রি'মান্ড মঞ্জুর হওয়ার পর বিকেলে একই নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে তাদের কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

ফরিদপুরের অ'তিরিক্ত পু'লিশ সুপার জামাল পাশা বলেন, রোববার দুপুরে বরকত ও রুবেলকে আ'দালতে হাজির করে দুটি পৃথক মা'মলায় ১০ দিন করে রি'মান্ডের আবেদন জানায় পু'লিশ। শুনানি শেষে দুজনের দুদিন করে রি'মান্ড মঞ্জুর করেন আ'দালত।

গত ১৬ মে রাতে জে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে দুই দফা হা'মলার ঘটনা ঘটে। সুবল সাহার বাড়ি শহরের গোয়ালচামট মহল্লার মোল্লা বাড়ি সড়কে অবস্থিত। এ ঘটনায় গত ১৮ মে সুবল সাহা অ'জ্ঞাতদের আ'সামি করে ফরিদপুর কোতোয়ালি থা'নায় একটি মা'মলা করেন।

গত ৭ জুন রাতে জে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হা'মলা মা'মলার আ'সামি হিসেবে শহরের বদরপুরসহ বিভিন্ন মহল্লায় অ'ভিযান চালিয়ে অ'স্ত্র, মা'দকসহ বরকত, রুবেল ও রেজাউল করিমসহ মোট নয়জনকে গ্রে'ফতার করে পু'লিশ।