এখন এক অন্যরকম ঝড়ের মুখে আ’লীগ

নিউজ ডেস্ক::টানা ৩ মেয়াদে ক্ষমতায় আছে আওয়ামী লীগ, রাজনৈতিক কোন চাপ নেই, নেই প্রতিপক্ষের হু'মকি-ধামকি। এই পরিস্থিতির মধ্যেও আওয়ামী লীগ এক অন্যরকম ঝড়ের মুখে পড়েছে। করো'না পরিস্থিতি যত খা'রাপ হচ্ছে, তত যেন আওয়ামী লীগ আ'ক্রান্ত হচ্ছে। আওয়ামী লীগের অনেক নেতা এই করো'নাকালে আ'ক্রান্ত হয়েছেন, মা'রাও গেছেন অনেকে। আর এই পরিস্থিতিতে হঠাৎ করে এক ঝড়ের সামনে পড়েছে আওয়ামী লীগ। যেই ঝড় অজানা, যে ঝড় মোকাবেলার কৌশল এখনো আওয়ামী লীগ জানেনা।

আওয়ামী লীগের জন্য করো'না ছিল একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ এবং কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য শুরু থেকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ল'ড়াইটা ভালোই করছিলেন। জীবন এবং জীবিকাকে পাশাপাশি রেখে মানুষ যেন অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে না পড়ে সেটাকে দেখাই ছিল তাঁর কৌশলের প্রধান দিক। এরকম পরিস্থিতির মুখে সংগঠন হিসেবে আওয়ামী লীগ এক অন্যরকম সঙ্কটের মধ্যে পড়েছে।

আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতা আবুল হাসনাত আবদুল্লাহর স্ত্রী' শাহানারা আবদুল্লাহ মা'রা গেছেন। মৃ'ত্যুবরণ করেছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্ম'দ নাসিম। গতকাল রাতে মা'রা গেলেন ধ'র্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ। এখনো করো'নায় অ'সুস্থ হয়ে আছেন মুক্তিযু'দ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী, সিলেটের সাবেক মেয়রসহ আরো অনেকে। আওয়ামী লীগের যারা বর্ষীয়ান নেতা রয়েছেন তাঁরা আতঙ্কে ঘরব'ন্দি হয়ে আছেন। অজানা আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হৃদরোগী, করো'না সংক্রমণ শুরুর পর থেকে তিনি ঘর থেকে বের হচ্ছেন না সঙ্গত কারণেই। আর ঘরে থেকেই তিনি যেটুকু পারছেন করছেন, তাঁকে নিয়েও নেতাকর্মীদের ভ'য়।

আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট নেতাদের মধ্যে তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু- উভ'য়েই বর্ষীয়ান। কদিন আগেই তোফায়েল আহমেদ স্ট্রোক থেকে সুস্থ হয়ে বাসায় এসেছেন। এখনো তিনি ঘরে বসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ের তদারকি করছেন। আমির হোসেন আমুকে নিয়েও শ'ঙ্কা রয়েছে।

এই সমস্ত বয়:প্রবীণরা যদি করো'নায় আ'ক্রান্ত হন তাহলে তাঁদের স্বাস্থ্য চরম ঝুঁ'কিতে পড়বে, এটা তাঁরা যেমন বোঝেন, তেমনি বোঝেন জনগণ। আওয়ামী লীগের এমন অনেক নেতাই অ'সুস্থ হয়ে পড়ছেন এবং করো'নায় আ'ক্রান্ত হচ্ছেন। করো'নার শুরু থেকেই সরকার রাজনৈতিক উদ্যোগের বদলে আমলাতান্ত্রিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছিল। কিন্তু রাজনীতিবিদরা কি ঘরে বসে থাকতে পারেন? রাজনীতিবিদরা স্ব-উদ্যোগেই এলাকায় গেছেন, জনগনের পাশে দাঁড়িয়েছেন। যে যেভাবে পেরেছেন ত্রাণ সহায়তা করেছেন, অন্যান্য সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন। এর ফলে আওয়ামী লীগে আ'ক্রান্তের সংখ্যা অন্যান্য রাজনৈতিক দলের থেকে অনেক বেশি।

এই আ'ক্রান্ত সংখ্যা দ্বারা একটি বিষয় প্রমাণিত হয় যে, করো'না সঙ্কটের সময় আওয়ামী লীগই একমাত্র রাজনৈতিক দল যারা জনগণের পাশে ছিল এবং জনগণের জন্য কাজ করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু এর চরম মূল্য দিতে হচ্ছে। আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা ৭৫ এর ১৫ই আগস্টের পর থেকেই নানারকম নি'র্যাতন, নি'পীড়নের শিকার এবং স্বাভাবিকভাবেই তাঁদের দেহে নানা রোগশোক বাসা বেঁধেছে।

৭৫ এর পর তোফায়েল আহমেদ দীর্ঘদিন কারাবরণ করেছেন, মতিয়া চৌধুরী দীর্ঘদিন কারাবরণ করেছেন, বেগম সায়েদা চৌধুরী নি'র্যাতন ভোগ করেছিলেন, আমির হোসেন আমুও সাম'রিক স্বৈরাচারের নি'পীড়নের শিকার হয়েছিলেন, যেমন শিকার হয়েছিলেন মোহাম্ম'দ নাসিম। এখন করো'নায় যদি তাঁরা আ'ক্রান্ত হন, তাহলে সেটা হবে তাঁদের জন্য ভ'য়ঙ্কর।

আবার ২০০১ সালে বিএনপি-জামাত ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের মধ্যস্তরের নেতাকর্মীরাও নি'পীড়িত হয়েছেন, নির্যাতিত হয়েছেন, শারীরিকভাবে লা'ঞ্ছিত হয়েছেন। বাহাউদ্দিন নাছিমসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতা বিএনপি-জামাত জোটের নি'র্মমতার শিকার হয়েছিলেন। এদেরকে নিয়েও এখন ভ'য়। কারণ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যেন জলে থাকা মাছের মতোন। মাছ যেমন জল ছাড়া বাঁচতে পারে না, তেমনি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও জনবিচ্ছিন্ন হয়ে থাকতে পারেন না।

আর এই পরিস্থিতিতে করো'নার যে ভ'য়াল থাবা, সেই থাবায় ঝড়ের মুখে পড়েছে জনবান্ধব এই দলটি। আর সামাজিক দুরত্ব রেখে আওয়ামী লীগের নেতারা ঘরে থাকবে- এটা আওয়ামী লীগের অনেক নেতার কাছেই অসম্ভব ব্যাপার। কিন্তু দলের এই সিনিয়র নেতারা, যাদের হাতে এই দেশ, যারা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে রাজনীতি করেছেন, যারা এই দেশে গণতন্ত্র ফেরাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন- তাঁদের সুরক্ষা করা আওয়ামী লীগের জন্য এক চ্যালেঞ্জ। আওয়ামী লীগ যেন এখন এক অন্যরকম ঝড়ের মুখে।