সিলেটে করো'নার পাগলা ঘোড়া থামাতে কারফিউ ছাড়া বিকল্প নেই

টাইমস ডেস্কঃ সিলেটে করো'না কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ভ'য়াবহ আকার ধারণ করেছে। সিলেট জুড়ে বর্তমানে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলার কোন বালাই নেই। সব কিছু চলছে বাধাহীনভাবে। এ যেন তীরে ভিড়ে তরী ডুবে যাওয়া। থামানো যাচ্ছেনা করো'না সংক্রামনের পাগলা ঘোড়া। প্রতি দিন বাড়ছে আ'ক্রান্তে সংখ্যা। অথচ বিষয়টি যেন কেউই আমলে নিতে চাচ্ছে না।

শুক্রবার (২২ মে) পর্যন্ত সিলেট করো'না আ'ক্রান্তের সংখ্যা ৬০৪ জন। এর মধ্যে সিলেটে ২৩৬ জন, হবিগঞ্জে ১৫৬ জন, সুনামগঞ্জে ৮৮ জন ও মৌলভীবাজারে ৮৩ জন। করো'না আ'ক্রান্ত হয়ে
ইতোমধ্যে মা'রা গেছেন ১১ জন।

সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আ'ক্রান্ত হচ্ছেন বিশিষ্ট জনেরা, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল করো'না ভাই'রাসে আ'ক্রান্ত হয়েছেন। সিলেট মেট্রোপলিটন পু'লিশের উপকমিশনার সুজ্ঞান চাকমা আ'ক্রান্ত হয়েছেন গত সপ্তাহে। এছাড়া আ'ক্রান্তের তালিকায় রয়েছেন বিশিষ্ট চিকিৎসকরা।

সড়কে যানবাহনের প্রচন্ড চাপ। জিন্দাবাজার, বন্দরবাজারে ট্রাফিক জ্যাম। বেসামাল লোকজনের মনে নেই করো'নাভীতি।

এ অবস্থা দেখে বিচলিত সবাই সুধি মহল। তারা বলছেন যে হারে প্রতিদিন করো'না আ'ক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, তাতে চলতি মাসের শেষে সিলেট অঞ্চলে করো'না রোগীর সংখ্যা হাজারের উপরে ছাড়িয়ে যাবে।

ঈদকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষের এই অনিয়ন্ত্রিত চলাফেরা এবং শপিং করার ফলে ঈদ পরবর্তি সময়ে সিলেট জুড়ে করো'নার মহামা'রি দেখা দেবার সমুহ সম্ভাবনা রয়েছে।

এ অবস্থায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন ঈদের পর দিন থেকে সিলেটের মানুষদের কমপক্ষে ১৫ দিনের জন্য বাসা বাড়িতে আ'ট'কে রাখতে হবে। কোন অবস্থায় বের হতে দেয়া যাবেনা। আর এটি সম্ভব হবে কারফিউ অথবা ১৪৪ ধারা জারি করার মাধ্যমে।  সৌজন্যঃদৈনিকসিলেট