করো'নায় মৃ'ত বাবার কপালে সন্তানের শেষ আদর, চিকিৎসকের স্ট্যাটাস ভাই'রাল

মহামা'রি করো'না ক্ষণে ক্ষণে জন্ম দিচ্ছে নানা হৃদয়বিদারক দৃশ্যের। মা থেকে যেমন আলাদা করে দিচ্ছে সন্তান ও তার পরিবারকে, তেমনই করো'নায় মৃ'ত ব্যক্তির লা'শ দেখা থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে মৃ'তের পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের। নিরাপত্তার কারণে করো'না ভাই'রাসে আ'ক্রান্ত হয়ে মা'রা যাওয়া ব্যক্তিদের লা'শ দাফন করা হয় সরকারি ব্যবস্থাপনায়।

তেমনই এক হৃদয়বিদারক দৃশ্য ধ'রা পড়লো চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতা'লে। করো'না ভাই'রাসে মা'রা যাওয়া বাবাকে অনেকটা লুকিয়েই শেষ বিদায় দিতে এসেছিল তার সাত বছরের একমাত্র সন্তান। প্রা'ণহীন বাবার কপালে আর দু’গালে শেষবারের মতো আদরের পরশ বুলিয়ে দিয়ে যায় সে।

শুক্রবার (২২ মে) সকালে বেদনাবিধুর বাস্তবতা নিয়ে ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করেন চিকিৎসক বিদ্যুৎ বড়ুয়া। মুহূর্তেই ভাই'রাল হয়ে যায় ভিডিওটি।

ভিডিওটির নিচে ক্যাপশনে চিকিৎসক বিদ্যুৎ বড়ুয়া লিখেন,

চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতা'লে বেদনাবিধুর বাস্তবতা:

সন্তানের শেষ আদর বাবাকে-

স্ট্যাটাসে তিনি লিখেন, গত ২০ মে ৪০ বছরের রোগী জীবনের শেষ মুহূর্তে চিকিৎসা নিতে এসেছিল আমাদের চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতা'লে। রোগীকে প্রথম দেখায় বুঝতে পেরেছিলাম জীবনের সময় বেশি নেই। তবু চেষ্টা করেছিলাম আমাদের সাম'র্থ্য নিয়ে রোগীকে বাঁ'চাতে।রোগীর অ'ভিভাবকও বুঝতে পেরেছিল রোগীর পরিণতি। করো'না টেস্ট হয়নি কিন্তু সকল লক্ষণ করো'না ভাই'রাস জনিত। অবশেষে মা'রাও গেলেন ১৩.৩০ ঘণ্টা পর। রোগীর অ'ভিভাবক হিসেবে সাথে ছিলেন তার স্ত্রী'। স্ত্রী' কে জিজ্ঞেস করতেই বললো তাদের ৭ বছরের সন্তান আছে। সাধারণত করো'না জনিত লক্ষণে মা'রা গেলে সিভিল সার্জন অফিসে জানাতে হয়। পরে সিভিল সার্জন নির্ধারিত প্রক্রিয়ায় দ্রুত দাফন করা হয়।

কিন্তু আত্মীয় স্বজন কেউ মৃ'ত ব্যক্তিকে দেখার সুযোগ হয় না। আমি মৃ'ত রোগীর অ'ভিভাবক স্ত্রী'কে বললাম আপনাদের সন্তানকে তার বাবাকে দেখবে না? উত্তরে বললো বাসায় কেউ নাই আর কিভাবে আসবে। পরে সিভিল সার্জন কর্তৃপক্ষ নিয়ে গেলে সন্তান বাবাকে দেখতে পারবে না। আমি বললাম আপনি বাসায় গিয়ে আপনাদের সন্তানকে নিয়ে আসেন আমাদের হাসপাতা'লের গাড়ি নিয়ে। তাই হলো মা সন্তানকে আমাদের গাড়িতে করে নিয়ে আসলো। সন্তান বাবা কে তার শেষ স্প'র্শ আদর দেওয়ার মুহূর্ত – (তাদের সন্তান এর সাথে আলাপে তার বাবা সন্তানের অনেক কিছু জানা হলো – ক'ষ্ট হলো অনেক ৭ বছরের সন্তান তার বাবা কে হারালো)

পরিচালক বিদ্যুৎ বড়ুয়া বলেন, এমন ঘটনা এই হাসপাতা'লে প্রথম। রোগীকে বাঁ'চানোর জন্য যা করা দরকার আম'রা করেছি। বিষয়টি আসলে আমাকেও নাড়া দিয়েছে। শি'শুটির সাথে আমি কথা বলেছি। তাকে নিয়ে তার বাবার মা'থায় হাত বুলিয়ে দিয়েছি।

তিনি আরেও বলেন, এটি হয়তো একটি শি'শুর গল্প। কিন্তু আরও অনেক গল্প আমাদের আশে পাশে প্রতিনিয়ত ঘটছে আম'রা তার কোন খবরও রাখছি না।এই বাস্তবতা মেনেই আমাদের চলতে হচ্ছে।