করো'না ভাই'রাস থেকে মুক্তির পথে বিয়ানীবাজার!

মহসিন আহম'দ রনিঃ করো'না ভাই'রাস চিনের উহান প্রদেশ থেকে শুরু হওয়া ভাই'রাসটি তাক লাগিয়ে দিয়েছে পুরো বিশ্বকে পৃথিবীর সিংহভাগ দেশে তা'ন্ডব চালিয়েছে অদৃশ্য এই ভাই'রাসটি। বাংলাদেশে ভাই'রাসটি প্রবেশের সময় চিন্তায় চিলেন সিলেট তথা বিয়ানীবাজারবাসী। কারণ ৭৪২ জন প্রবাসী করো'নাকালে প্রবাস থেকে বাড়ি ফিরেছেন তবে সেই শ'ঙ্কা বাস্তবে রূপ নিতে না পারলেও টাঙ্গাইল ফেরত এক জুয়েলারি কর্মচারীর মাধ্যমে প্রবাসী অধ্যুষিত বিয়ানীবাজার করো'না প্রবেশ করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ নানা যায়গা কম সমালোচিত হোন নি আ'ক্রান্ত আকবর হোসেন তার সংস্প'র্শে এসে বাড়ির কেয়ারটেকার আলম হোসেনও আ'ক্রান্ত হোন। তবে ভাগ্যের লিখন খন্ডায় কে এমন চরনটি সত্য হলো আ'ক্রান্ত আকবর ও আলমের ক্ষেত্রে। তারা উভ'য়ই এখন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

আ'ক্রান্ত প্রথম ব্যাক্তি আকবর ও আলম সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং আ'ক্রান্ত আরো তিনজন সুস্থ হওয়ার পথে।

২৪ এপ্রিল সকালে বিয়ানীবাজারবাসীর জন্য একটি স্ম'রণীয় দিন হয়ে থাকবে। ঐ দিন প্রথম করো'না শনাক্ত হয় প্রবাসী অধ্যুষিত এই অঞ্চলে। দেশে প্রতিদিন রোগীর সংখ্যা হাজার ছাড়ালেও বিয়ানীবাজারে সেই সংখ্যা এখনো বাড়েনি। আ'ক্রান্ত ৫ জনের মধ্যে ২ জন সুস্থ বাকি তিনজন দ্বিতীয় ধাপে নেগেটিভ আসার অ'পেক্ষায় ফলে অনেকটা করো'না মুক্ত হতে যাচ্ছে বিয়ানীবাজার সেটা নিঃস'ন্দেহে বলা যেতে পারে।

তবে করো'নাকালে বিয়ানীবাজারের সেচ্ছাসেবী সংগঠন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রবাসীর স্বতঃস্ফূর্ত সাড়াতে এই অঞ্চলের দরিদ্রদের মুখে অনেকটাই হাসি ফুঠেছে। প্রতিদিন হাজার হাজার ত্রান ও উপহার সামগ্রী বিতরনের মধ্য দিয়ে অনন্য নজীর স্থাপন করেছেন এই অঞ্চলের বিত্তবানরা। ডাক্তার সাংবাদিক থা'না পু'লিশরাও পিছিয়ে ছিলেননা সামনে থেকে করো'নার ভ'য়কে জয় করে বস্তু নিষ্ট সংবাদ পরিবেশন কিংবা রোগী ও বিয়ানীবাজারকে নিরাপদ রাখতে কাজ করে গেছেন এই শ্রেণির মানুষ গুলো।

হয়তো বাকি ৩ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ আসতে পারে নেগেটিভ আসলে করো'না মুক্ত হবে বিয়ানীবাজার তবে ঝুঁ'কি কমবে না এমনটা মনে করেম উপজে'লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করো'না যু'দ্ধা ডাঃ আবু ইসহাক আজাদ।

তবে বহিরাগতদের প্রবেশ বন্ধ করলে করো'না থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি পাবে বিয়ানীবাজার এমনটা আশা করা যেতেই পারে।

লেখক
নিজস্ব প্রতিবেদক, বিয়ানীবাজার টাইমস।