বর্তমান করো'না পরিস্থিতি, করনীয় ও ম'সজিদে জামাতে নামাজ প্রসঙ্গে

মহামা'রি করো'না ভাই'রাস কোভিড-১৯ প্রায় ২মাস পূর্বে বাংলাদেশে হানা দেওয়ার পর মা'র্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে সরকারের টনকনড়ে। মুজিব বর্ষ পালনে সর্বোচ্চ মহল থেকে শুরু করে উপজে'লা ও ইউনিয়ন পর্যন্ত যেভাবে সরকারের সকল কর্মক'র্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি, দলীয় নেতা-কর্মীরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন যার কারনে আমাদের পূর্ব প্রস্তুতি নিতে দেরি হয়ে যায়। চীন থেকে দ্রুত ইউরোপিয়ান বিভিন্ন দেশসহ আ'মেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশ ভা'রত-পা'কিস্তানেও দ্রুত করো'না বিস্তার লাভ করায় স্ব স্ব দেশে সরকারি ছুটিসহ লকডাউন ঘোষণা করছে দেখে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিব বর্ষ পালনের ১৭ই মা'র্চের আরম্ভড়পূর্ণ অনুষ্ঠান স্থগিত করে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়কে করো'না ভাই'রাস প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ প্রদান করেন।

পরে ২৬মা'র্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের বিভিন্ন কর্মসূচী বাতিল করে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেন যা অদ্যাবধি চলমান আছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রীর বিদেশে অবস্থান এবং পরবর্তীতে দেশে আসলেও প্রথম'দিকে সমন্বয়হীনতার অভাবে চিকিৎসা ক্ষেত্রে স্থবিরতা পরিলক্ষিত হয়। যদিও কোনো কোনো মন্ত্রী করো'নার চেয়েও নিজেদের বেশি শক্তিশালী বলে মন্তব্য করে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে তারা করো'নাকে মোকাবিলা করে ফেলবেন। ইতোমধ্যে করো'না রোগের প্রাদুর্ভাব ভ'য়াবহ রূপ ধারণ করায় সারাদেশে লকডাউন ঘোষণা করে পু'লিশ, র‌্যা'­ব, সে'নাবাহিনী দিয়ে সাধারণ মানুষকে ঘরে রাখার সর্বত্মক চেষ্টা স্বত্বেও অভাবের তাড়নায় মানুষকে ঘরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না।

এ সময়ে গরীব ও অসহায় মানুষের মধ্যে সরকারের খাদ্য সামগ্রী বিতরণের চেষ্টা স্বত্বেও স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বার ও দলীয় কিছু নেতা-কর্মীদের চৌর্যবৃত্তির কারনে সাধারণ মানুষ খাদ্য সামগ্রী প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। যদিও বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান মানুষকে সাহায্য করার চেষ্টা করছে। যেভাবে আ'ক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত গতীতে বাড়ছে এবং চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত ডাক্তার-নার্স, পু'লিশসহ সাধারণ মানুষ আ'ক্রান্ত হয়ে মা'রা যাচ্ছে, ডাক্তার-নার্সদের সুরক্ষা সামগ্রী মাস্ক, গ্লাভস, পিপিই ইত্যাদির অ'প্রতুলতাসহ চিকিৎসা সামগ্রীর সংকট সচেতন মহলকে ভাবিয়ে তুলছে। বিশ্বব্যাপী এ মহা দু'র্যোগে সমগ্র জাতিকে একই প্লাটফর্মে এনে ঐক্যবদ্ধ না করলে এবং এ সংকট দীর্ঘায়িত হলে আমাদের পক্ষে তা কাটিয়ে উঠা অ'ত্যন্ত দুরূহ হয়ে পড়বে। এ লেখাটি যখন লেখছি, এসময়ে বাংলাদেশে করো'না আ'ক্রান্ত হয়ে ১৭৫জন মানুষ মা'রা যান ও প্রায় ৯হাজার মানুষ আ'ক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

যেখানে উন্নত দেশগুলো সর্বাত্মক চেষ্টা করে তা দমনে ব্যর্থ হয়ে রাষ্ট্র প্রধান বলছে আকাশের দিকে তাকাও। সমগ্র মু'সলিম বিশ্বকে যেখানে খোদায়ি গজব করো'না মহামা'রি থেকে পরিত্রাণ পেতে মহান আল্লাহর দরবারে বেশি করে পানাহ চাওয়ার জন্য ম'সজিদে ম'সজিদে প্রার্থনা করা প্রয়োজন; সেখানে আল্লাহর ঘর পবিত্র কাবা শরীফ ও ম'সজিদে নববীকে বন্ধ করে দিয়ে এরই ধারবাহিকতায় সমগ্র বিশ্বের ম'সজিদে শুক্রবারের জামাতসহ পাঁচ ওয়াক্ত জামাতে নামাজ আদায়ে মু'সল্লীদের উপস্থিতি সংকুচিত করার সিদ্ধান্তকে স্বাভাবিকভাবে মেনে নিয়ে মু'সলিম ধ'র্মীয় স্কলাররা গৃহে আবদ্ধ থাকা'টা বোধগম্য হচ্ছে না।

বর্তমান হারামাইন শরীফাইন এর রক্ষক তথা সৌদি আরবের শাসকরা আ'মেরিকার তাবেদারী করতে গিয়ে যেভাবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রা'ম্পকে সৌদি আরবে নিয়ে সৌদি বাদশাসহ অন্যান্যদের নাচানাচি করতে দেখা গেছে; যেখানে ‘ম'ক্কা-ম'দিনা মু'সলমান জাতির হৃদয়ের স্পন্দন’ সেখানে সিনেমা, সী-বিচ ইত্যাদি মু'সলমানদের জন্য হারাম, অ'নৈতিক ও অ'বৈধ কাজ চালু করেছে সেই সৌদি শাসকদের ফরমানকে অনুসরণ করে বিশ্বের মু'সলিম দেশগুলোতে ম'সজিদে জামাত আদায়কে সংকুচিত করার এই সিদ্ধান্তকে পুনর্বিবেচনা করে ‘আল্লাহর ঘর পবিত্র কাবা শরীফ যেখানে ১ রাকাত নামাজে লক্ষ রাকাত ও ম'সজিদে নববীতে ১ রাকাতে ৫০হাজার রাকাতের ছোয়াব হাছিল হয়’ সেখানে জামাতে নামায চালু করার দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য স্ব স্ব দেশের সরকার প্রধানদের উপর চাপ প্রয়োগে বিশ্বের আলেম-উলামাদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি।

৯০ভাগ মু'সলমানদের দেশে নাস্তিক-মুরতাদরা সরকার প্রদানসহ নীতনির্ধারনী মহলকে নানাভাবে কুট-কৌশলের মাধ্যমে ইস'লামী আক্বিদা বিশ্বা'সের সাথে সঙ্গতি রেখে সিদ্ধান্ত নিতে বাঁ'ধা প্রদান করে তা আম'রা উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হচ্ছি। তা না হলে কিভাবে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে মানুষ মা'রা গেলে পুড়িয়ে ফেলা যায় কি না তা বলার ধৃষ্টতা দেখিয়ে এখনও চাকরিতে বহাল তবিয়তে আছে। সামাজিক ও নিরাপদ দুরত্ব বজায় রাখার প্রচার-প্রচারণা ও নির্দেশনা স্বত্বেও শহর-বন্দরে, রাস্তা-ঘাটে এর উল্লেখযোগ্য বাস্তবায়ন পরিলক্ষিত হচ্ছেনা। উপরন্ত সরকারের সাথে সংশ্লিষ্ট কতিপয় মন্ত্রী-এমপি ও দলীয় বড় বড় নেতা-কর্মীদের সামাজিক দূরত্ব না মানাসহ গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির নারী-পুরুষ নির্বিশেষে জটলা পা'কিয়ে হাজার-হাজার কর্মীর অবাধ চলাচল লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

ইদানিং গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি খুলে দিয়ে ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে লাভবান করার উদ্যোগ তথাকথিত সমাজ সচেতন ব্যক্তি যারা ধ'র্মীয় কোন আচার-অনুষ্ঠানের জমায়েতে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে মাস্ক পরে উপস্থিতিকেও ‘জাত গেল জাত গেল বলে’ এতে করো'না ভাই'রাস মহামা'রী আকার ধারণ করবে বলে চেঁচিয়ে উঠে কিন্তু এসময়ে ওইসব রতি-মহারতিদের নীরব থাকতে দেখা যায়। সরকার কঠোর হয়ে সামাজিক ও নিরাপদ দূরত্বের গুরুত্ব সাধারণ জনগণকে বুঝাতে সক্ষম না হলে জনগণের অবাধ চলাচল বন্ধ করা সম্ভব হবেনা।

তাছাড়া দেশে ৬০ভাগের অধিক মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ এক ক্রান্তিকাল অ'তিক্রম করছে। ওই মানুষগুলো না পারছে কারো কাছে হাত পাততে না পারছে অন্য কোনো ভাবে তা থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজতে। এসময়ে সাধারণ শ্রমিক ও কর্মহীন মানুষসহ নিম্ন মধ্যবিত্তের মাঝে বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণসহ টিসিবির মাধ্যমে চাল, ডাল, তেল, পেয়াজ, লবন ইত্যাদি জরুরি ভিত্তিতে বিক্রি শুরু করে তা তদারকির দায়িত্ব দ্রুত সে'নাবাহিনীর উপর ন্যস্ত না করলে সরকারকে অচিরেই এর খেসারত দিতে হবে। অন্যদিকে পবিত্র এ রমজান মাসে লক্ষ লক্ষ মাদ্রাসা শিক্ষক, ম'সজিদের ই'মাম-মোয়াজ্জিন, খাদেম, হাফেজে কোরআনদের প্রতি সরকার সুদৃষ্টি প্রদান না করলে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়েও করতে হবে মানবেতর জীবন-যাপন।

করো'না ভাই'রাসের এই মহামা'রী থেকে মুক্তি পেতে সচেতনতার পাশাপাশি খোদায়ী ম'দদ আবশ্যক। এই পবিত্র রমজান মাসে বেশি বেশি ইবাদত বন্দেগীর দ্বার উন্মুক্ত করা অ'ত্যন্ত জরুরী। ফলে ম'সজিদে জামাতে নামায আদায়ে উপস্থিতি বাড়ানোর তাগিদ অনুভব করে প্রত্যেক ম'সজিদ কমিটিকে কিছু বাড়তি দায়িত্বসহ মু'সল্লীদেরকে সচেতন এবং সতর্ক থাকতে হবে বলে আমি মনে করি। এরই লক্ষ্যে প্রতিদিন জামাত শেষে ম'সজিদ ধৌত করা, ম'সজিদে হাত ধৌত করার ব্যবস্থা রাখা, মু'সল্লিদের বাড়ি থেকে অজু করে জায়নামাজ সাথে নিয়ে মাস্ক এবং গ্লাভস পরে আসা, অধিক বয়স্ক, অ'সুস্থ ব্যক্তি এবং বাচ্চাদের ম'সজিদে না আসা, ম'সজিদে মু'সল্লিদের ৩ফুট দূরত্বে দাঁড়ানো ও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে মু'সল্লিদের ম'সজিদে আসার নির্দেশ নিশ্চিত করা।

সর্বশেষ মু'সল্লী, ম'সজিদ কমিটির সদস্য ম'সজিদে ঢুকে প্রয়োজনে গেটে তালা ঝুলিয়ে জামাতে শরিক হওয়া, প্রশাসনের পক্ষথেকে তদারকি (মনিটরিং) করা ইত্যাদি। এ বিষয়টিকে ভেবে দেখার জন্য আমি দেশের শীর্ষস্থানীয় বরেণ্য আলেম-ওলামা, বুদ্ধিজীবী ও ধ'র্ম মন্ত্রীর মাধ্যমে দেশের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তা পবিত্র মাহে রমজানের মহিমান্বিত শবে ক্বদরের রাতকে সামনে রেখে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য জো'র দাবি জানাচ্ছি।

লেখক-
আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন তালুকদার,
প্রবীণ সাংবাদিক ও কলামিষ্ট
সভাপতি, ছাতক প্রেসক্লাব, সুনামগঞ্জ।