মায়ের বিলাপঃ আমা'র কি অ'প'রাধ কি ছিল ? আমা'র মাসুম বাচ্চার কি অ'প'রাধ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি-পিতা,মাতা আর পাড়াপ্রতিবেশী, স্বজনের আহাজারীতে এক হ্নদয়বিধায়ক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে তাহিরপুর উপজে'লার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বাঁশতলা তোফাজ্জল হোসেন গ্রামের বাড়িতে। চারপাশে যে কেবলেই শুন্য। বাকরুদ্ধ মা বার বার মূর্চা যাচ্ছে। বাবা জুবায়েল মিয়া সন্তান হা'রানো ক'ষ্ট বুকে চাপা দিয়ে বলেন আমি দিন মজুর মানুষ আমা'র কি অ'প'রাধ কি ছিল ? আমা'র মাসুম বাচ্ছার কি অ'প'রাধ। আমি ত কারো কোন ক্ষতি করিনি। ঘা'তকরা টাকা চেয়েছিল ধারদেনা করে টাকারও জোগার করেছিলাম তবুও যদি আমা'র বাবাটাকে ফেরৎ পেতাম।

আমা'র ছে'লেটাকে হ'ত্যা করল,হ'ত্যা করেই খান্ত হয়নি,তাকে হ'ত্যা করে তার ডান চোখটিও খুলে নেয় হাত ভেঙ্গেদেয় হ'ত্যাকারীরা। কি ভাবে পাড়ল এভাবে একটা মাসুম বাচ্চা কে খু'ন করতে। এদিকে ভাইয়ের মৃ'ত্যু মেনেনিতে পারছে না নি'হত তোফোজ্জলের ৪বছর বয়সী ছোট বোন হুমায়রা। সে বলছে তার ভাই ফিরে আসবে এই কথা বলেই কা'ন্নায় ভেঙ্গে পরে জুবায়েল। তিনি বলেন,আমাদের ছে'লের হ'ত্যার সাথে যারা জ'ড়িতদের সে আমা'র ভাই হউক আর যেই হউক সবাইকে আইনের আওতায় এনে ফাঁ'সির দাবী জানাই।
তোফাজ্জল হ'ত্যার পর থেকে সীমান্ত এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

সবার কথা একটাই কিভাবে এই ছোট শি'শুটিকে নৃ'শংস ভাবে হ'ত্যা করল। মানুষ হয়ে কিভাবে পশুর মত আচরন করল এভারে নৃ'শংস ভাবে হ'ত্যা করল হ'ত্যাকারীদের খোঁজে বের করে প্রকাশ্যে ফাসিঁতে ঝুলানোর দাবী সর্বস্থরের জনতার। আর হ'ত্যার পিছনে পারিবারিক বিরোধে শি'শুটিকে হ'ত্যা করেছে দাবী সচেতন মহল,স্থানীয় এলাকাবাসী।

সন্তার হা'রানো মা বাবাকে সন্তানা দিতে ও পাশে দাড়াঁতে সোমবার রাতে যান তাহিরপুর উপজে'লা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল। তিনি খু'নিদের দ্রুত খোঁজে বের করতে এবং কঠিন শাস্থির দাবী জানান আইশৃংখলা বাহিনীর প্রতি। তিনি বলেন,মানুষ মানুষের মাঝে শত্রুতা থাকতে পারে এটার সমাধানও আছে তাই বলে এভাবে একটি শি'শুকে হ'ত্যা করল পাষন্ডরা তা মেনে নেওয়া যায় না।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজে'লায় উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী নি'হত তোফাজ্জল বাশঁতলা গ্রামের জুবায়েল হোসেনের ছে'লে এবং বাঁশতলা হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্র।

এবিষয়ে তাহিরপুর থা'নার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আতিকুর রহমান জানান,শি'শু তোফাজ্জল অ'পহ'রণ ও হ'ত্যাকা'ন্ডের মা'মলায় স'ন্দেহভাজন দাদা,চাচা,ফুফু,ফুফাসহ ৭জনকে রবিবার দুপুর ১২টায় সুনামগঞ্জ আ'দালতের মাধ্যমে জে'ল হাজতে পাঠানো হয়। সোমবার আ'দালত ফুফা সেজাউল কবির(২৫)তার বাবা কালা মিয়া(৫০)কে ৫দিন ও শি'শু তোফাজ্জলের চাচা হাফেজ সালমান হোসেন(২২),লোকমান হোসেন(২০),ফুফু শিউলি আক্তার(১৮),হাবিবুর রহমান (৬৫)তার ছে'লে রাসেল(২০)কে ৩দিন করে রি'মান্ড মঞ্জুর করেন। এই হ'ত্যা সংক্রান্ত অনেক আলামত আম'রা জব্ধ করেছি। দুপুরে রি'মান্ড শুনানি শেষ ৭জনকে সন্ধ্যায় তাহিরপুর থা'নায় আনা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে আশা করি খুব শ্রীঘ্রই এশি'শু অ'পহ'রণ ও হ'ত্যা র'হস্য উন্মোচিত হবে।

সুনামগঞ্জ জে'লার পু'লিশ সুপার মোহাম্ম'দ মিজানুর রহমান জানান,শি'শুটির নি'র্মম হ'ত্যাকা-ের ঘটনায় জ'ড়িতদের সনাক্ত ও এর র'হস্য উদঘাটনের জন্য পু'লিশ ৭আ'সামিকে আ'দালতের মাধ্যমে রি'মান্ডে নিয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হবি মিয়ার ছে'লে রাসেল মিয়ার বসতঘর থেকে লুঙ্গি ও দু’টি বালিশের কভার জ'ব্দ করা হয়। শি'শু তোফাজ্জল হোসেন হ'ত্যাকা-ও দ্রুততম সময়ে অধিক তদর্ন্তের মাধ্যমে চার্জশিট গঠন করা হবে। খু'নিদের কেউ রেহাই পাবে না।

নিতহ তোফাজ্জলের বাবা জুবায়েল হোসেন আরো জানান,একই গ্রামের কালা মিয়ার ছে'লে সেজাউল কবিরের কাছে ছোট বোন শিউলির সাথে ভালবাসার সর্ম্পক ছিল। তারা দু জনেই পালিয়ে যেতে চেয়েছিল পরে পারিবারিক ভাবে সবার সম্মতি নিয়ে কোট ম্যারিজ করিয়ে দেই। পরে তারা দুজন ঢাকায় চলে যায়। গত ৬মাস পূর্বে বাড়ি ফিরে আসে। নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে তার বোনকে যৌতুকের জন্য সেজাউল মা'রপিট করে বাড়িতে রেখে যায়। এরপর আর নেয়নি। চিকিৎসা করিয়ে আ'দালতে মা'মলা দায়ের করি। এরপর উল্টো আমাদেরকে হুমকি-ধামকি দিয়েছে সেজাউলের বাবা,মা ও তার পরিবারের সদস্যরা। তার স'ন্দেহ সেজাউল ও তার বাবা তার ছে'লেকে হ'ত্যা করে বস্তাব'ন্দি করে রেখেছে।

তিনি আরো জানান,গত ০৮জানুয়ারি বুধবার বিকাল ৫টার সময় তোফাজ্জল তার দাদা জুবেল হোসেনের বাড়ীর উঠানে খেলা করার এক ফাকেঁ গ্রামের মাঠে ওয়াজ মাহ্ফিল থাকায়(রাতে)বিকালে শি'শু তোফাজ্জল ওয়াজ মাহ্ফিলের মাঠে যায়। সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত নামলেও তোফাজ্জল হোসেন বাড়ি না ফেরায় গভীর রাত পর্যন্ত প্রতিবেশী,তাদের আত্মীয় স্বজন ও তোফাজ্জলের বন্ধুদের বাড়ীতেও খোঁজাখুজি করে তার কোন সন্ধান না পাওয়ায় তোফাজ্জলের দাদা জয়নাল আবেদীন ০৯জানুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে তাহিরপুর থা'নায় একটি সাধারণ ডায়রি(জিডি) করেন। জিডি নং ২৬০। এনিয়ে সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

জিডি করারপর শুক্রবার ভোর রাতে বাড়ির বসতঘরে তোফাজ্জলের একজোড়া জুতা ও একটি চিঠি পায় পরিবারের লোকজন। চিঠিতে লেখা ছিলো-তোমাদের ছে'লে ভালো আছে,টেকেরঘাটে আমা'র বন্ধুর বাড়িতে তাকে রেখে এসেছি। ৮০হাজার টাকা দিলে তাকে ফিরিয়ে দেয়া হবে। বাড়ির গোয়াল ঘরে রাত ৪টায় টাকা নিয়ে থাকবে। কথা মত এলাকাবাসীর পরার্মশ নিয়ে দিন মজুর পিতা শুক্রবার রাতে টাকা অ'পহ'রণ কারীদের কথা মত গোয়াল ঘরে টাকা রেখে অ'পেক্ষা করে নিজেদের ঘরে দরজা টা একটু ফাঁকা করে।

কখন জানি ছে'লেটিকে রেখে যায় না হয় আবারও চিঠি দিবে কোথাও ছে'লেকে রেখেছে নিয়ে আসতে সেই আশায় তার ভাই সালমান হোসেন কে নিয়ে। রাত সাড়ে ৪টা পর্যন্ত না আসায় সালমান নামাজ আদায় করার জন্য ওযু করতে যায়। এসময় গোয়ালঘরের সামনে শব্দ শোনা যায়। সালমান এগিয়ে দেখে সিমেন্টের মূখ বদ্ধ বস্তা। পরে বস্তার মুখ খুলে দেখা যায় তোফাজ্জলের লা'শ। পরে পরিবারের সবাই এসে পু'লিশকে খবর দেয়। পরে প্রতিবেশি তোফাজ্জলের ফুফা সেজাউল কবির ও তার বাবা কালা মিয়াকে স'ন্দেহ'জনকভাবে পু'লিশে দেয় তারা। এই খবর জানাজানি হলে,নি'হত শি'শুর লা'শ দেখতে উৎসুক জনতা ভিড় জমায় তোফাজ্জে'লের বাড়িতে।