সাড়ে তিন কোটি টাকা নিয়ে ভু'য়া কোম্পানী উধাও

বরগুনার আমতলীতে পন্য বিক্রি ও টাকা জামানত রাখার নামে সাড়ে তিন কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে ‘মোনাবী অল বাংলাদেশ’ নামের একটি ভু'য়া কোম্পানী। সোমবার দুপুরে আমতলী পৌর শহরের হাসপাতাল সড়কের ওই কোম্পানীর অফিস ভাংচুর করেছে কর্মী ও গ্রহকরা। পরে পু'লিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও ক্ষতিগস্তরা জানায়, ‘মোনাবী অল বাংলাদেশ’ নামের একটি ভু'য়া কোম্পানী গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে আমতলীতে পণ্য বিক্রি ও অধিক মুনাফার লো'ভ দেখিয়ে গ্রাহকের কাছ থেকে আমানত সংগ্রহ করে। প্রথমে আমতলী পৌর শহরের সাকিব প্লাজার তিন তলায় অফিস ভাড়া নেয় তারা। গ্রাহক সংগ্রহের জন্য আমতলী উপজে'লায় ২০৫ জন প্রতিনিধি নিয়োগ দেয় প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান জামাল হোসেন মুকুল। প্রত্যেক প্রতিনিধির কাছ থেকে জামানত বাবদ সত্তর হাজার টাকা নেয়। প্রত্যেক প্রতিনিধি বিশ হাজার টাকা দামের একটি এলইডি টিভি বিক্রি করতে পারলে কোম্পানী এক হাজার পাচ’শ একচল্লিশ টাকা ফেরত দেয়। টিভি না নিয়ে টাকা জমা দিলেও তাকে ওই পরিমান টাকা ফেরত দেয়। অধিক মুনাফার আশায় আমতলী উপজে'লার বিভিন্ন এলাকার প্রায় এক হাজার গ্রাহক এভাবে টাকা জমা দিয়েছেন।

এছাড়াও এক লাখ টাকায় মাসে সাত হাজার সাত’শ আট টাকা লাভ দিবে বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করে ওই কোম্পানী। এভাবে প্রায় এক হাজার গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করেছে এই প্রতারক চক্র। ওই প্রতারক চক্র গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে জানা যায়। সোমবার ২০৫ জন প্রতিনিধিদের বেতন দেয়ার কথা ছিল। ওইদিন সকালে ওই প্রতিনিধিরা অফিসে বেতন নিতে আসেন।

এ সময় অফিসের মাকেটিং অফিসার আনিস মিয়া, হিসাব রক্ষক আল আমিন, স্টোর ইন চাজ জামাল মিয়া ও প্রশাসনিক কর্মক'র্তা দীপক চন্দ্র শীল উপস্থিত ছিল। সকাল গড়িয়ে দুপুর হয়ে গেলেও চেয়ারম্যান জামাল হোসেন মুকুলের দেখা নেই। এক সময় অফিসের কর্মক'র্তারা সকলে সট'কে পড়েন। পরে উপস্থিত গ্রাহক ও প্রতিনিধিরা অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুর করে। খবর পেয়ে আমতলী থা'না পু'লিশ ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এদিকে কোম্পানী টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে কয়েক শত গ্রাহক অফিসের সামনে জড়ো হয়। অনেক গ্রাহক ও প্রতিনিধি টাকা হারিয়ে অ'জ্ঞান হয়ে পরে। এ ঘটনার পরপর কোম্পানীর চেয়ারম্যান জামাল হোসেন মুকুলসহ অফিসের সকল কমকতাদের মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে।

সেখানে উপস্থিত নার্গিস বেগম, লিজা, জান্নাতি, মেঘলা ও মো: জিয়া উদ্দির জুয়েল বলেন, সরল বিশ্বা'সে এ কোম্পানীতে লাখ লাখ টাকা জমা দিয়েছি। প্রতিমাসে প্রতিমাসে লাখপতি ৭ হাজার টাকা মুনাফা দিতো। এভাবে গত তিন মাস পেয়েছি। এখনতো আমা'র সবই গেল। আম'রা নিঃস্ব হয়ে গেলাম। আমাকে এখন পথে বসতে হবে।

মোনাবী অল বাংলাদেশ আমতলী শাখার স্টোর ইনচার্জ জামাল মিয়া বলেন, কোম্পানীর চেয়ারম্যান প্রতারক জামাল হোসেন মুকুল আমতলীর বিভিন্ন গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে।

আমতলী থা'নারওসি ত'দন্ত মনোরঞ্জন মিস্ত্রি বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পু'লিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। অ'ভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।