অন্যায়ের প্রতিবাদে ব্রিটেনে ১৬ বছর ধরে ল'ড়ছেন বাংলাদেশী

অন্যায়ের প্রতিবাদ করে ব্রিটেনে ১৬ বছর ধরে যু'দ্ধ করে যাচ্ছেন এক প্রবাসী। নি'র্দোষ হয়েও কর্তৃপক্ষের ভুলে যৌ'ন অ'প'রাধের জন্য অ'ভিযুক্ত হওয়ার কারণে যুক্তরাজ্য থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার বি'রুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন এই শেফ (রাঁধুনী)।

জানা যায়, ৪৪ বছর বয়সী সাইফুল ইস'লাম ২০০৩ সালের জানুয়ারি মাসে ব্রিটেনে এসেছিলেন এক রেস্তোরাঁয় কাজ করতে। তিনি থাকেন কার্ডিফে। কিন্তু সরকারি দপ্তরে থাকা তার কাগজপত্র কোনোভাবে মিশে গিয়েছিল অন্য তিনজন লোকের সাথে- আর তার ফলে কোনো দোষ না করেও সাইফুল ইস'লাম ফেঁ'সে যান এক অ'প'রাধের দায়ে। ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বা ‘হোম অফিস’ ইতিমধ্যেই এ ভুলের জন্য সাইফুল ইস'লামের কাছে দু:খ প্রকাশ করেছে। কিন্তু এর পরও তাকে ব্রিটেনে স্থায়ীভাবে থাকার অধিকার দেয়া হচ্ছে না। তারই ফলশ্রুতিতে ১৬ বছর ধরে আইনি লড়াই করে যাচ্ছেন তিনি।

সমস্যার সূত্রপাত ২০০৫ সাল থেকে। তিনি তখন রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন। তার পরিবেশ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন। এর পরই পু'লিশ এবং হোম অফিস ব্যাপারটি নিয়ে সক্রিয় হয়ে ওঠে। সে বছরই তার পারমিটের মেয়াদ কমিয়ে দেয়া হয়, কিন্তু তাকে কোন নোটিশ দেয়া হয় নি। অ'ভিবাসীদের অধিকার সংক্রান্ত নেটওয়ার্কের প্রধান নির্বাহী ফিজা কুরেশি বলেন, ‘সাইফুল যদি ১৬ বছর ধরে মা'মলা লড়ে না যেতেন তাহলে তার জানাই হতো না যে হোম অফিস তার কাগজপত্র গু'লিয়ে ফেলেছে এবং তাকে ভুলভাবে একজন অ'প'রাধী হিসেবে চিহ্নিত করেছে।’

হোম অফিস আরও জানায়, এর পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ সাইফুল যেভাবে তার নিয়োগদাতার শোষণ স'ম্পর্কে খবর দিয়েছে তার প্রশংসা করতেও ব্যর্থ হয়েছে। তা না করে উল্টো তার বি'রুদ্ধেই ব্যবস্থা নিয়েছে এবং তাকে বহিষ্কার করতে চাইছে – যদিও সে সাহসী ও নি'র্দোষ। এরই এক পর্যায়ে তিনি তথ্য কমিশনারের মাধ্যমে তার ফাইল দেখার সুযোগ পান এবং তাতে ভুল ধ'রা পড়ে। ২০১৯ সালে তার কাছে এ জন্য পূর্ণভাবে দু:খপ্রকাশ করা হয়। সাইফুল বলেন, হোম অফিস আমাকে মানুষ বলে মনে করেনি। তারা এমন আচরণ করেছে যেন আমি একজন অ'প'রাধী। আমি এ জন্য অনেকগুলো বছর হারিয়েছি, আমা'র স্বাস্থ্য ও অর্থ হারিয়েছি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বিচার অনুযায়ী এ সংক্রান্ত এক বিচারবিভাগীয় পুনর্বিবেচনার রায়ে বলা হয়, ব্রিটেনে স্থায়ীভাবে থাকার জন্য সাইফুল ইস'লামের আবেদন প্রত্যাখ্যান করার ক্ষেত্রে ভিত্তি ছিল ২০০৮ সালের একটি প্রত্যাখ্যাত আবেদন। কারণ সে সময় তার কোন ওয়ার্ক পারমিট ছিল না। হোম অফিসের ভুল এর ওপর কোন প্রভাব ফেলে নি। কিন্তু সাইফুল ইস'লাম দাবি করেন, ২০০৮ সালে তার কোন ওয়ার্ক পারমিট না থাকার কয়েকটি কারণ ছিল। একটি হচ্ছে তাকে ভুলভাবে অ'প'রাধের জন্য অ'ভিযুক্ত করা। তা ছাড়া তার ফাইলের কিছু অংশ নষ্ট করে ফেলা হয়েছে এবং অন্য একটি মা'মলায় তা আ'দালতে উত্থাপন করা হয় নি। তিনি যে আইনসঙ্গতভাবে ব্রিটেনে প্রবেশ করেছিলেন – তার প্রমাণ হিসেবে তার পাসপোর্টের প্রাসঙ্গিক পৃষ্ঠাগুলোও আ'দালতকে দেয়া হয় নি। এ বিষয়ে বিচারপতি জ্যাকসন রুলিং দেন যে – সাইফুল ইস'লামের আবেদনের ক্ষেত্রে অ'তীতে বেশ কিছু ভুল ও অবিচার করা হয়েছে, কিন্তু ‘এগুলোই তার বর্তমান অবস্থার কারণ’ বলে সাইফুল ইস'লাম যে দাবি করছেন তা দলিলপত্রে প্রমাণ হয় না। রুলিংএ আরো বলা হয়, ‘এমন কোন নিশ্চয়তাও নেই যে তাকে কোন একটি বিশেষ পদে নিযুক্ত রাখা এখনো প্রয়োজনীয়।’

তবে সাইফুল বলছেন, তিনি এ রায়ের বি'রুদ্ধে আইনি লড়াইয়ের পরিকল্পনা করছেন। এ নিয়ে এ পর্যন্ত ১৮টি মা'মলা এবং হোম অফিসের সাথে বিপুল পরিমাণ চিঠিপত্র বিনিময় হয়েছে। হোম অফিস বলছে, তারা কোন চলমান আইনি প্রক্রিয়া নিয়ে মন্তব্য করবে না তবে তারা এটা নিশ্চিত করেছে যে সাইফুল ইস'লামের বিবরণের সাথে অন্য তিনজন লোকের বিবরণ ‘ভুলক্রমে’ যুক্ত হয়ে গেছে। হোম অফিস আরও বলেছে যে ব্রিটেনে বসবাসের প্রতিটি আবেদনই স্বতন্ত্রভাবে অ'ভিবাসন আইন অনুযায়ী বিবেচনা করা হয়, এবং কারো এদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি না থাকলে এটাই আশা করা হয় তিনি স্বেচ্ছায় চলে যাবেন। তারা তা না করলে তাদের এদেশ ছেড়ে যেতে বাধ্য করা হবে।