মৌলভীবাজারে সন্তানদের পি'টুনিতে আ'হত সেই মায়ের মৃ'ত্যু

টাইমস ডেস্কঃ সম্পত্তির লো'ভে সন্তানদের পি'টুনিতে আ'হত মায়া বেগম নামে এক নারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা'রা গেছেন বলে অ'ভিযোগ পাওয়া গেছে। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে এ ঘটনা ঘটে।শনিবার সকালে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক মাস ২৮ দিন ধরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মা'রা যান।এ ঘটনায় মায়ার ছে'লে জাফর আলী তার সৎ ভাই আছিদ আলীসহ আরো নয়জনকে আ'সামি করে শ্রীমঙ্গল থা'নায় ১ ডিসেম্বর মা'মলা করেন। মা'মলা'টি বর্তমানে সিআইডিতে ত'দন্তাধীন রয়েছে।জাফর আলী অ'ভিযোগ করেন, আমা'র সৎ ভাই আছিদ আলী ও তার ভাইবোনেরা সম্পত্তির লো'ভে গত বছরের ১৫ নভেম্বর বিকেলে আমা'র মাকে লোহার রড দিয়ে পি'টিয়ে আ'হত করে।

পরে স্থানীয়রা তাকে দ্রুত শ্রীমঙ্গল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। অবস্থার অবনতি দেখে ওই দিনই মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান তার অবস্থা অ'পরিবর্তিত থাকলে রাতেই সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মা'রা যান। আ'সামিরা মা'মলা তুলে নেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে। নিরুপায় হয়ে নিজের ও পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ৮ জানুয়ারি শ্রীমঙ্গল থা'নায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছি।এরই মধ্যে ৮ আ'সামি আ'দালতে আত্মসম'র্পণ করে জামিন নেন।এদিকে, পি'টুনিতে আ'হত হয়ে চিকিৎসাধীন থাকলেও মায়া বেগমের মৃ'ত্যুর পর ময়নাত'দন্তের প্রতিবেদন তৈরির জন্য ওসমানী মেডিকেল থেকে থা'নায় দেয়া রিপোর্টে মৃ'ত্যুর কারণ হিসেবে ট্রাকের ধাক্কার কথা বলা হয়েছে।

থা'নায় প্রেরিত এ রিপোর্ট দেখে নি'হতের ছে'লে জাফর ও বোন রুবিনা চ্যালেঞ্জ করলে তা ওসমানী মেডিকেল কর্তৃপক্ষ সংশোধন করে।
রোববার মায়া বেগমের ম'রদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছেন বলে জানিয়েছেন সিলেট কোতোয়ালি থা'নার এস আই দেলোয়ার হোসেন।
শ্রীমঙ্গল থা'নার পরিদর্শক (ত'দন্ত) সোহেল রানা বলেন, মায়া বেগম সিলেট ওসমানী হাসাপাতালে মা'রা গেছেন বলে জানতে পেরেছি। রিপোর্ট হাতে পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেব।