শুক্রবারকে ছুটির দিন ঘোষণা করে সুনাম কুড়িয়েছিলেন এরশাদ

দেশের রাজনীতিতে আ'লোচিত নাম হুসেইন মুহম্ম'দ এরশাদ। সেনাপ্রধান থেকে ক্ষমতা দখল। এরই ধারাবাহিকতায় রাষ্ট্রপতি হিসেবে নয় বছরের শাসন। অ'তপর রাজনীতিতে টিকে থাকা। ১৯৮২ সাল থেকে টানা ৩৭ বছরের ইতিহাসে যুক্ত হয়েছে তার ভালো-মন্দের নানা দিক। কোনো কোনো কাজের তীব্র সমালোচনা থাকলেও উন্নয়নসহ বেশ কিছু কাজের কথা এখনও দেশের মানুষ মনে রেখেছে।

২০১৯ সালের ১৪ জুলাই হুসেইন মুহাম্ম'দ এরশাদ ৯০ বছর বয়সে রাজধানী ঢাকার সম্মিলিত সাম'রিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃ'ত্যু বরণ করেন। তিনি হিমোগ্লোবিন-স্বল্পতা, ফুসফুসে সংক্রমণ ও কিডনির জটিলতায় ভুগছিলেন। তাঁর জন্ম ১ ফেব্রুয়ারি ১৯৩০ সালে।

এরশাদের স্ত্রী' রওশন এরশাদ (১৯৫৬–২০১৯) ও বিদিশা এরশাদ (বিয়ে: ২০০০; বিচ্ছেদ. ২০০৫) সন্তান: সাদ এরশাদ, এরিক এরশাদ, আরমান এরশাদ ও জেবিন।

হুসেইন মুহাম্ম'দ এরশাদের ৯ বছরের শাসনামলে জনগণের পছন্দনীয় যে কাজগুলো রয়েছে তার মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো-

১। ইস'লামকে বাংলাদেশের রাষ্ট্র ধ'র্ম করেছিলেন।

২। শুক্রবারকে ছুটির দিন ঘোষণা করেছিলেন।

৩। ম'সজিদ মাদ্রাসার বিল মওকুফ করেছিলেন।

৪। টিভিতে আজান প্রচারের নিয়ম করেছিলেন।

৫। উপজে'লা পদ্ধতি চালু করেছিলেন।

 

৬। গুচ্ছগ্রামের প্রবর্তন করেছিলেন।

৭। বলেছিলেন ৬৮ হাজার গ্রাম বাঁচলে বাংলাদেশ বাচবে

৮। শাসনামলে দু'র্নীতি, ধ'র্ষণ, খু'ন, রাহ'জানি, প্রকাশ্যে কোপাকুপি, এগুলো দুরূহ ছিল।

১৯৮২ সালের ২৪ মা'র্চ প্রত্যুষে বাংলাদেশে সাম'রিক আইন জারি করে জেনারেল হুসেইন মুহাম্ম'দ এরশাদ একটি র'ক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুস সাত্তারকে সরিয়ে দেশের কর্তৃত্ব নেন।

সাম'রিক ফরমান জারি করার পর জাতীয় সংসদ ও প্রেসিডেন্টসহ মন্ত্রিপরিষদ বাতিল করে সংবিধানের কার্যকরিতা স্থগিত ঘোষণা করেন জেনারেল এরশাদ। এর পর বাংলাদেশের ইতিহাসে শুরু হয় এক নতুন অধ্যায়ের।

১৯৯০ সালের এই দিনে, ৬ই ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়েছিলেন সাবেক সাম'রিক শাসক হুসেইন মুহাম্ম'দ এরশাদ। দিনটিকে আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্র মুক্তি দিবস’, বিএনপি ‘গণতন্ত্র দিবস’ এবং এরশাদের জাতীয় পার্টি ‘সংবিধান সংরক্ষণ দিবস’ হিসেবে পালন করে থাকে। কোনো কোনো রাজনৈতিক দলগুলো এই দিনকে ‘স্বৈরাচার পতন দিবস’ হিসেবেও পালন করে থাকে।

‘দেশের জন্য যা করেছি এবং আগামীতে যা করতে চাই’ জাতীয় পার্টির প্রচার ও প্রকাশনা সেল থেকে প্রকাশিত গ্রন্থে এরশাদ বলেন, এক বিপর্যস্ত বাংলাদেশের দায়িত্ব আমাকে গ্রহণ করতে হয়েছিল। তারপর অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে নয়টি বছর কে'টে গেছে। এই সময়ের মধ্যে আমি আপ্রা'ণ চেষ্টা করেছি একটি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার। সেখানে কতটুকু সফল হয়েছি বা বিফল হয়েছি- তার মূল্যায়ন করতে হলে পরবর্তী সময়ের সঙ্গে আমা'র আমলের যোগবিয়োগ করার প্রয়োজন হবে। আমা'র মনে হয়, দেশের মানুষ সে অঙ্কটি নির্ভুলভাবে করতে পেরেছে।

এরশাদ বলেন, ‘…আমি যেহেতু একজন সর্বক্ষণিক রাজনীতিবীদ সেহেতু আমা'র চিন্তা-চেতনা-ভাবনায় রাজনৈতিক প্রসঙ্গ প্রাধান্য পেয়ে থাকে। …আমি ’৯০-এর ডিসেম্বরে রাজনৈতিক চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে বিরোধী রাজনৈতিক দলসমূহ এবং একজন প্রধান বিচারপতিকে বিশ্বা'স করে স্বেচ্ছায় ক্ষমতা ছেড়েছিলাম। তারপর উভ'য়পক্ষের রাজনৈতিক বিশ্বা'সঘা'তকতার ফলশ্রুতিতে আমাকে জে'লে যেতে হয়েছে। অ'তপর জনতার আ'দালতে আমি সুবিচার পেলেও ক্ষমতার আ'দালত আমাকে মুক্তি দেয়নি। একনাগাড়ে ছয় বছর জে'লে দুর্বিসহ দিন কাটিয়ে বাইরে এসে দেখলাম, আমা'র এই একান্ত প্রচেষ্টায় গড়া এক সমৃদ্ধ নতুন বাংলাদেশ আবার তামাটে হয়ে গেছে। গত দেড় দেশকে ক্রমান্বয়ে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে চলে যাচ্ছে।

১৯৩০ সালের দুই জানুয়ারি রংপুর জে'লার দিনহাটায় জন্ম নেন হুসেইন মুহম্ম'দ এরশাদ। ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৮৫ সালে প্রথম উপজে'লা পরিষদ নির্বাচন করেন তিনি। ১৯৮৬ সালে জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে এই দলের মনোনয়ন নিয়ে ৫ বছরের জন্য রাষ্ট্রপতি হন। ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর তাকে কারাগারে যেতে হয়। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৭ সালের ৯ জানুয়ারি জামিনের মধ্য দিয়ে তার কারামুক্তি হয়। ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে তিনি কারাগার থেকে নির্বাচন করে পাঁচটি আসনে বিজয়ী হন। ২০০০ সালে তার দল জাতীয় পার্টি ভেঙে তিন টুকরো হয়। এরশাদ বিরোধী আন্দো ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর ডা. শামসুল আলম মিলনকে হ'ত্যা করে পু'লিশ। প্রতিবছর যথাযোগ্য ম'র্যাদায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক, সাংস্কৃতিকসহ পেশাজীবী সংগঠন দিবসটি পালন করে। এই ঘটনার মধ্য দিয়েই এরশাদের পতনের যাত্রা শুরু হয়। তথ্যসূত্র: বিবিসি, জনকণ্ঠ