এবার উইঘুর মু'সলিম'দের ম'সজিদ বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দিল চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:সাম্রাজ্যবাদী চীনের জিংজিয়াং প্রদেশে বসবাসরত উইঘুর মু'সলিম সম্প্রদায়ের ওপর দেশটির সরকারের নীরব নি'র্যাতন অব্যাহত রয়েছে। ব্যাপক গ্রে'ফতার অ'ভিযান ও ধ'র্মীয় নি'পীড়নের পাশাপাশি চীনের কমিউনিস্ট সরকার সংখ্যালঘু এ জাতির স্বাধীনতা হ'রণ করার অসংখ্য সংবাদ খবরের কাগজের শিরোনাম হচ্ছে প্রতিনিয়ত। অ'তি সম্প্রতি জিংজিয়াংয়ে উইঘুরদের একটি ম'সজিদ গুড়িয়ে দিয়েছে চীনা কতৃপক্ষ।

আজ বৃহস্পতিবার প্রভাবশালী আরবি গণমাধ্যম আল উম্মাহর এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, উইঘুর অধ্যুষিত পূর্ব তুর্কিস্তানের (জিংজিয়াং) একটি ম'সজিদ বুলডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে চীনের সেনাবাহিনী। গুড়িয়ে ফেলা ম'সজিদটির সংক্ষিপ্ত একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে আল উম্মাহ, তাতে দেখা গেছে, আশপাশের দেয়াল ও মূল স্থাপনার বৃহৎ একটি অংশের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

উল্লেখ্য, চীনে সংখ্যালঘু উইঘুর মু'সলিম'দের ওপর নি'পীড়ন ও নি'র্যাতনের কারণে চীনা সরকারের তীব্র সমালোচনা হচ্ছে বিশ্ব জুড়ে। চীন সরকারের বি'রুদ্ধে অ'ভিযোগ উঠেছে যে তারা বিপুল সংখ্যক উইঘুর মু'সলিমকে কতোগুলো বন্দী শিবিরের ভেতরে আ'ট'কে রেখেছে।

গত অগাস্ট মাসে জাতিসংঘের একটি কমিটি জানতে পেরেছে যে ১০ লাখের মতো উইঘুর মু'সলিমকে পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে কয়েকটি শিবিরে বন্দী করে রাখা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, এসব ক্যাম্পে তাদেরকে ‘নতুন করে শিক্ষা’ দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু বেইজিং সরকারের পক্ষ থেকে এসব অ'ভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। কিন্তু একইসাথে শিনজিয়াং প্রদেশে বসবাসকারী লোকজনের ওপর চীন সরকারের নি'পীড়নমূলক নজরদারির তথ্যপ্রমাণ ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে।

এর আগে জাতিসংঘ জানিয়েছে, ১০ লাখেরও বেশি উইঘুর মু'সলিমকে আ'ট'ক রেখে তাদের ধ'র্ম পালনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। বলপূর্বক তাদের কমিউনিস্ট পার্টির মতাদর্শে বিশ্বা'স স্থাপন করানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রকাশ্যে নিজ ধ'র্মের সমালোচনা করতে তাদের ওপর বলপ্রয়োগ করা হচ্ছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের শপথ করতে হচ্ছে বস্তুবাদে বিশ্বা'সী ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির প্রতি আনুগত্যের, যা ইস'লামের বিশ্বা'সের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। সেই ধারাবাহিকতায় সরকার ইস'লামকে তাদের কথিত সমাজতন্ত্রের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ করতে উদ্যোগী হয়েছে। এর অংশ হিসেবেই মু'সলিম'দের ওপর ধরপাকড়ের পাশাপাশি চীন থেকে আরবি ভাষা ও ইস'লামি প্রতীক মুছে দিতে উদ্যোগ নিয়েছে বেইজিং।