সিলেটের অ'পুর সাথে মাহিয়া মাহি্র বিচ্ছেদের গুজব!বিস্মিত দুজনই

নিউজ ডেস্কঃ জীবনে প্রচুর হুট-হাট সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মাহিয়া মাহি। ক'ষ্ট পেয়ে অ'ভিনয় ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণাও যেমন দিয়েছেন, তেমনি বিয়েটাও হুট করে করে ফেলেছিলেন। বিয়ে করে অন্য আর দশটা তারকার মত কোন লুকোচাপা করেননি। বেশ বড় করেই করেছিলেন বিয়ের অনুষ্ঠান।

২০১৬ সালের ২৪ মে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অ'পুকে বিয়ের পর শুটিং, টিভি অনুষ্ঠান সর্বত্র নিয়ে গেছেন স্বামীকে। বেশ সুখি দম্পতি হিসেবেই দেখা গেছে।মাঝে প্রায় বছর খানেক তাদের দুজনকে একত্রে দেখা যাচ্ছে না। ফেসবুকের ছবিতেও নেই তারা। সবমিলিয়ে চলচ্চিত্রপাড়ায় জো'র গুঞ্জন ওঠে মাহি-অ'পুর বিচ্ছেদ হয়েছে। অথবা হওয়ার পথে।

প্রতিবেদক এ নিয়ে কথা বলতে সরাসরি মাহি ও তার স্বামী অ'পুর ফোনে কল দেয়। তারা দুজনেই পুরো বিষয়টি নিয়ে বেশ বিস্ময় ও একই সাথে বির'ক্তি প্রকাশ করেন।

মাহি বিষয়টিতে বেশ বির'ক্তি প্রকাশ করে বলেন, ‘আমা'র অনেক ‘শুভাকাঙ্ক্ষী’ আছেন! আমা'র ধারণা তারাই এমন খবর ছড়াচ্ছেন। কিছু বলার নেই।’

তাই বলে বিচ্ছেদের খবর?
এমন প্রশ্নে অ'ভিমান ঝরে পড়ে মাহির কণ্ঠে। ‘অ'পু আমাকে ভালোবাসে, আমি অ'পুকে শ্রদ্ধা করি। এবং এরকম একটা ভালো মানুষকে যে ছেড়ে দিতে চায়, সে হচ্ছে অস্তো একটা বোকা মে'য়ে। এরকম একটা শ্বশুরবাড়ি যে ছেড়ে দিতে চায় সেও আস্তো একটা বোকা মে'য়ে। আমি ওইরকম বোকা মে'য়ের দলে যেতে চাই না’— বলেন মাহি।

অন্যদিকে মাহির স্বামী পারভেজ মাহমুদ অ'পুও পুরো বিষয়টি নিয়ে বির'ক্ত। তিনি বলেন, ‘আমি খুব বির'ক্ত। প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ জন সাংবাদিকের ফোন ধরতে হচ্ছে। একই প্রশ্ন। আমাদের মাঝে বিচ্ছেদ হয়ে গেছে! এটা কেমন কথারে ভাই! আমাদের সঙ্গে কথা না বলেই আমাদের বিচ্ছেদ ঘটিয়ে দেওয়া হচ্ছে!

‘ধরেন কাউকে অফিস থেকে পোস্টিং করা হলো ঢাকার বাইরে। এর জন্য তাকে পরিবার-পরিজন ছেড়ে ওখানে থাকতে হলে কি তার সংসার ভেঙ্গে যাবে? আমা'র এখানে ব্যবসা আছে। সেটাতে অনেক সময় দিতে হচ্ছে। তাই আমি সিলেটে বেশি থাকি।’

আপনারা দুজন তো একসাথে থাকছেন না কিংবা ফেসবুকেও ছবি দিচ্ছে না অনেকদিন। বিচ্ছেদ না হোক, এতে কি আমাদের মাঝে দূরত্ব কিংবা মনোমালিন্যের ইঙ্গিত করে না?
অ'পু বলেন, ‘না না এরকমই কিছু না। আমি তো গত সপ্তাহেই ৮দিন ঢাকায় থেকে এলাম। আমা'র শরীরটাও খা'রাপ। এর মাঝে এই অদ্ভুত ঝামেলা।’

পারভেজ মাহমুদ অ'পু  জানালেন খুব শিগগিরই তারা দুজন একসাথে ফেসবুকে ছবি দেবেন। আশা করছেন তখন সকল সমালোচনার জবাব মিলবে।