পদ্মায় হেলে পড়া ম'সজিদে নামাজ আদায়

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজে'লার দিঘীরপাড় ইউনিয়নের হাইয়ারপাড় গ্রামের একমাত্র জামে ম'সজিদ হাইয়ারপাড় আল-ম'দিনা জামে ম'সজিদে ঝুঁ'কি নিয়ে নামাজ আদায় করছেন মু'সল্লিরা।

বিগত ভরা বর্ষায় উপজে'লার পদ্মা পারের হাইয়ার গ্রামসহ আশপাশের গ্রামের প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ভাঙ্গন শুরু হয়।

এতে হাইয়ার পাড় ম'সজিদটির পিছনের বেশ কিছু অংশের মাটি পদ্মায় বিলীন হয়ে গেলে ম'সজিদটি নদীর দিকে কিছুটা হেলে পরে। কিন্তু বর্তমানে পদ্মা'র পানি দ্রুত কমতে শুরু করায় ওই ম'সজিদটি ইতিমধ্যে পদ্মা নদীর দিকে অনেকটা হেলে পরেছে।

ওই অঞ্চলে আর কোনো ম'সজিদ না থাকায় হেলে পড়া ম'সজিদে জীবনের ঝুঁ'কি নিয়ে নামাজ আদায় করছেন মু'সল্লিরা। শুধু জীবনের ঝুঁ'কি নয়, নামাজে দাঁড়ানোর সময় নিজে সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারলেও, সেজদায় গিয়ে দেহের ভারসাম্য রাখা অনেক ক'ষ্টের হয়ে পরে। রুকুতে গেলে কিছুটা হেলে পড়তে হলেও সেজদায় গেলে মনে হয় পুরো দেহ একেবারে গড়িয়ে পরবে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পদ্মা'র গ্রাসে ম'সজিদের মেঝের অংশসহ বিভিন্ন অংশে বড় বড় ফাটল দেখা দিয়েছে।

ওই ম'সজিদের ঈ'মাম আবদুল হাই জানান, নামাজের জন্য জামাত বাঁ'ধা হলে সেই সময় মু'সল্লিদের মনে বিপদের শ'ঙ্কা না থাকলেও স্বজনরা উৎকণ্ঠায় থাকেন। সব কিছু ছাপিয়ে পাঁচ ওয়াক্তেই জামাতের ব্যবস্থা হয় প্রতিদিন। তবে সেই জামাতে মু'সল্লির সংখ্যা আগের চেয়ে কিছুটা কমেছে।

মু'সল্লি খালেক শেখ বলেন, দিনের পর দিন যেভাবে ম'সজিদটি হেলে পরছে তাতে যে কোনো সময় পুরোটা ধসে পরতে পারে পদ্মা'র বুকে।

মজজিদ কমিটির সভাপতি লতিফ হাওলাদার বলেন, নতুন করে অন্য জায়গায় কোনো রকমে একটি ম'সজিদ নির্মাণ করার পরিকল্পনা রয়েছে। কিন্তু অর্থাভাবে তা করা সম্ভব হচ্ছে না। মাত্র চার বছর আগে আধুনিক আদলে তৈরি করা মজজিদ ভবনটি এতো অল্প সময়ে পদ্মা'র থাবায় ভেঙ্গে পরবে, ভাবতে পারেনি।

টঙ্গীবাড়ী উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা হাসিনা আক্তার জানান, ম'সজিদ এলাকায় ভাঙ্গন শুরু হলে আম'রা বেশ কিছু বালু ভর্তি ব্যাগে ম'সজিদ রক্ষায় ওই স্থানে ফেলেছি। সরেজমিনে পরিদর্শন করে আম'রা ওই এলাকার মু'সল্লিদের জন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।