বড়লেখায় কবরস্থান কে'টে পরিবেশ বিপর্যয় ও জবর দখলের অ'ভিযোগ

আব্দুর রবঃবড়লেখা উপজে'লার নিজ বাহাদুরপুর ইউনিয়নের পকুয়া গ্রামের আলতাব হোসেন, আনোয়ার হোসেন ও টিপু নামক ৩ ব্যক্তির বি'রুদ্ধে জো'রপূর্বক কবরস্থানের টিলা কে'টে পরিবেশ বিপর্যয়, পুরাতন কবর নিশ্চিহ্ন ও ভুমি জবর দখলের অ'ভিযোগ পাওয়া গেছে।

থা'নায় দায়েরকৃত লিখিত অ'ভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজে'লার পকুয়া গ্রামের মৃ'ত হোছন আলীর ছে'লে তাজুল ইস'লাম অন্যান্য অংশীদারের সাথে যৌথভাবে পকুয়া মৌজার ৮০০ নং দাগের কবরস্থান (প্রাকৃতিক টিলা) শ্রেণীর ২৭ শতাংশ ভুমির মৌরসী মালিক। সম্প্রতি আলতাব হোসেন, আনোয়ার হোসেন ও টিপু কবির জো'রপূর্বক কবরস্থানের প্রায় ৩ শতাংশ ভুমির টিলা কে'টে মাটি নিয়ে নিজের নিচু ভুমি ভরাট করেন এবং নানা প্রজাতির ২০-২৫টি গাছ কে'টে নেন। এতে কবরস্থানের ১০-১৫ জনের পুরাতন নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। উপড়ে পড়ার আশংকা রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির আরো ২৫-৩০টি গাছ।

ভুক্তভোগী তাজুল ইস'লাম অ'ভিযোগ করেন, বাধা নিষেধ উপেক্ষা করে গায়ের জো'রে আলতাব হোসেন গংরা তার মালিকানাধীন কবরস্থানের ১০-১২ হাত উঁচু টিলা কে'টে গাছ-গাছালি ধংস করেছে। দাদা-দাদী, ছোট বোন ও প্রতিবেশীসহ অন্তত ১৫ জনের পুরাতন কবর নিশ্চিহ্ন করেছে। স্থানীয় বিচার-সালিশ কোন কিছুই সে মানেনি। নিরুপায় হয়ে তিনি থা'নায় লিখিত অ'ভিযোগ দিয়েছেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক জানান, বাদী-বিবাদীর মানিত ও ১ জন নিরপেক্ষসহ ৩ জন আমিন (সার্ভেয়ার) যৌথভাবে সরেজমিনে জরিপ করে নিশ্চত হন, আলতাব হোসেন গংরা তাজুল ইস'লামের মালিকানাধীন কবরস্থানের টিলা ভুমি অ'বৈধভাবে কে'টেছেন, বেশ কয়েকটি পুরাতন কবর নিশ্চিহ্ন করেছেন। কিন্তু তিনি সালিশগনের দেয়া সমাধান মানেননি।

আলতাব হোসেন জানান, ওই কবরস্থানের তিনিও একজন অংশীদার। বাড়ি তৈরীর স্বার্থে তিনি তার অংশের ভুমি (টিলা ও পুরাতন কবর) কে'টেছেন। এ ভুমির সীমানা নিয়ে বিরোধ চলছে। সঠিক সমাধান না দেয়ায় তিনি স্থানীয় সালিশগনের সিদ্ধান্ত না মেনে আ'দালতের শরনাপন্ন হয়েছেন।