চলে গেলেন বায়ান্নর ভাষাসৈনিক সিলেটের রওশন আরা বাচ্চু

নিউজ ডেস্ক:চলে গেলেন বায়ান্নর ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চু (ইন্নালিলাহি… রাজিউন)। মঙ্গলবার (০৩ ডিসেম্বর) ভোরে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বা'স ত্যাগ করেন। মৃ'ত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রওশন আরা বাচ্চুর মে'য়ে তাহমিদা বাচ্চু বলেন, মা বেশ কয়েকদিন ধরেই অ'সুস্থ ছিল। অ'সুস্থ অবস্থায় তাকে অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার ভোরে তিনি মা'রা যান।

রওশন আরা বাচ্চুর প্রতি নাগরিক শ্রদ্ধা জানাতে তার ম'রদেহ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটায় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে আনা হবে।

ভাষাসৈনিক রওশন আরা বাচ্চুর মৃ'ত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

১৯৫২ সালের ভাষা আ'ন্দোলনের সময় রওশন আরা বাচ্চু ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযের (ঢাবি) ছা'ত্রী। ২১ ফেব্রুয়ারি যেসব ছাত্রনেতারা ১৪৪ ধারা ভঙ্গের পক্ষে ছিলেন, তিনি তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনি জনমত সম'র্থনের জন্যও ব্যাপক তৎপরতা চালান।

তিনিই সেসময় ইডেন মহিলা কলেজ এবং বাংলাবাজার বালিকা বিদ্যালয়ের ছা'ত্রীদের সংগঠিত করে আমতলার সমাবেশস্থলে নিয়ে আসেন। সেখান থেকেই ছাত্রনেতারা ১৪৪ ধারা ভঙ্গের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নেন। তারা ব্যারিকেড টপকিয়ে মিছিল নিয়ে এগোনোর চেষ্টা করেন।

কিন্তু পু'লিশের বাধার মুখে ব্যারিকেড টপকানো বেশ কঠিন ছিল। রওশন আরা বাচ্চু তার দলের সবাইকে নিয়ে পু'লিশের তৈরি ব্যারিকেড ভেঙ্গে ফেলেন। এরপর পু'লিশ লা'ঠিচার্জ শুরু করে দেয়। এতে অনেকেই হতাহত হন। সেসময় রওশন আরা বাচ্চুও আ'হত হয়েছিলেন।

রওশন আরা বাচ্চু ১৯৩২ সালের ১৭ ডিসেম্বর সিলেটের কুলাউড়া থা'নার উছলাপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম এ এম আরেফ আলী ও মায়ের নাম মনিরুন্নেসা খাতুন।

১৯৪৭ সালে পিরোজপুর গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করে বরিশাল ব্রজমোহন কলেজ থেকে ১৯৪৮ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন রওশন আরা। এরপর ১৯৫৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শনে অনার্স করে ১৯৬৫ সালে বিএড ও ১৯৭৪ সালে ইতিহাসে এমএ করেন।

রওশন আরা বাচ্চু সলিমুল্লাহ মু'সলিম হল ও উইম্যান স্টুডেন্টস রেসিডেন্সের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি গণতান্ত্রিক প্রোগ্রেসিভ ফ্রন্টের সঙ্গে ছাত্র রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করেন।

যুক্ত ছিলেন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গেও। যার মধ্যে রয়েছে- ঢাকার আনন্দময়ী স্কুল, লিটন অ্যাঞ্জে'লস, আজিমপুর গার্লস স্কুল (খন্ডকালীন), নজরুল একাডেমি, কাকলি হাই স্কুল এবং আলেমা একাডেমিতে। সবশেষে ২০০০ সালে বিএড কলেজের অধ্যাপক হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন।