লন্ডন ব্রিজ হা'মলাকারি উসমান খানের গ্রুপের ২ সদস্য বাংলাদেশী

যুক্তরাজ্যের লন্ডন ব্রিজে হা'মলাকারী জ'ঙ্গি উসমান খানের নেতৃত্বে পরিচালিত ৯ সদস্যের জ'ঙ্গি চক্রের দুইজন বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া ব্রিটিশ নাগরিক। তবে কোনও দুজন তা জানা যায়নি।

২৯ নভেম্বর রাতে রাতে লন্ডন ব্রিজের উত্তরের অংশে একটি হলে চলতে থাকা অনুষ্ঠানে হা'মলার সূত্রপাত হয়। ছু'রি নিয়ে কয়েকজন ব্যক্তির ওপর হা'মলার পর কিছুক্ষণের মধ্যেই পু'লিশের গু'লিতে স'ন্দেহভাজন হা'মলাকারী নি'হত হয়। ছু'রিকাঘাতে নি'হতদের একজন পুরুষ ও অ'পরজন নারী। এই ঘটনায় আরও তিনজন আ'হত হয়েছে।

লন্ডন পু'লিশ দাবি করেছে, শনিবার (৩০ নভেম্বর) স্ট্যাফোর্ডশায়ারের বাসিন্দা ২৮ বছর বয়সী পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক উসমানকে লন্ডন ব্রিজের হা'মলাকারী হিসেবে চিহ্নিত করেছে তারা। যুক্তরাজ্যের লন্ডনে জন্মগ্রহণ করা উসমানের কৈশোর কে'টেছে পাকিস্তানে। কোনও প্রাতিষ্ঠানিক সনদ নেই তার। মা অ'সুস্থ হওয়ায় ওই সময় সে পাকিস্তানে অবস্থান করেন। পরে লন্ডনে ফিরে ইন্টারনেটে উগ্রবাদ প্রচারে নামে। পু'লিশের দাবি, উসমান আফগানিস্তানভিত্তিক সশস্ত্র গোষ্ঠী আল-কায়েদার ভাবাদর্শে বিশ্বা'সী।

এই জ'ঙ্গি চক্রের বেশিরভাগ সদস্য লন্ডন স্ট'ক এক্সচেঞ্জে বো'মা হা'মলা ও তৎকালীন লন্ডন মেয়র বরিস জনসনের মতো ভিআইপির লক্ষ্য করে হা'মলার পরিকল্পনার অ'ভিযোগে ২০১২ সালে দোষী সাব্যস্ত হয়েছে। এদের অধিকাংশ পাকিস্তানি বংশোদ্ভুত হলেও দুজনের জন্ম বাংলাদেশে।

এই জ'ঙ্গি চক্রকে ‘নাইন লায়ন’ হিসেবে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ করা হয়েছে। ওই সময় জ'ঙ্গি গোষ্ঠী আল-কায়েদার অনুপ্রেরণায় জ'ঙ্গিবাদে জড়ালেও সংগঠনটির সদস্য ছিল না তারা।

এই জ'ঙ্গিদের বি'রুদ্ধে রায় ঘোষণার সময় বিচারক সবাইকে ইস'লামি উগ্রবাদী হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। কিন্তু উসমান খানকে আলাদা করে বিপজ্জনক অ'ভিহিত করা হয় রায়ে। শুক্রবার লন্ডন ব্রিজে হা'মলার সময় পু'লিশের গু'লিতে সে নি'হত হয়েছে।

ওই রায়ে বিচারক অ্যালান উইলকি বলেছেন, আমা'র বিবেচনায় দীর্ঘ কারাবাস শেষেও জনগণের জন্য ঝুঁ'কি হিসেবে বিরাজ করবে এই আসামীরা। তারা এতই ঝুঁ'কিপূর্ণ যে শুধু অনির্দিষ্ট সাজাই হতে পারে উপযুক্ত।

হা'মলার পর জানা গেছে, অনির্দিষ্ট সাজার বি'রুদ্ধে আপিল করে খান এবং ইলেক্ট্রনিক ট্যাগসহ আগাম মুক্তি পায়। এই ঘটনায় উসমান খানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী নাজাম হোসাইনকে কারাগারে ডা'কা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থা বিপজ্জনক কয়েদিদের বিষয়ে পর্যালোচনা শুরুর পর এই উদ্যোগ নেওয়া হয়।