বিয়ানীবাজারে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ৯০ জাতের ভর্তায় সুস্বাদু চিতল পিঠা

আশফাক জুনেদঃবিয়ানীবাজার পৌর শহরে বিভিন্ন প্রকার ভর্তা দিয়ে চিতল পিঠা বিক্রি করছেন ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ী সুলেমান আহম'দ। একটি ভ্যান গাড়ির মাধ্যমে বিয়ানিবাজার পৌর শহরের কলেজ রোডের পাশে তিনি দাড়িয়ে পিঠা বিক্রি করেন।

চিতল পিঠার সাথে সামনে সাজিয়ে রাখেন বিভিন্ন প্রকার ভর্তা।আর সাধারন মানুষেরা ১০ টাকা দামে চিতল পিঠা কিনে যার যার পছন্দ মত ভর্তা দিয়ে আয়েশ করে পিঠার স্বাদ নেন।

দুর দুরান্ত থেকে মানুষেরা পিঠার সাথে ভর্তার স্বাদ নিতে ছুটে আসছেন বিয়ানীবাজারের সুলেমান আহম'দের দোকানে।এরই মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এই চিতল পিঠার সাথে বিভিন্ন প্রকার ভর্তা। পিঠা দিয়ে বিভিন্ন ট'ক ঝাল ভর্তার স্বাদ নিতে প্রতিদিনই বিয়ানিবাজার কলেজ রোডস্থ অস্থায়ী সুলেমান আহম'দের দোকানে ভিড় করেন সাধারন মানুষেরা।

শীতের শুরুতে ৪২ জাতের ভর্তা দিয়ে চিতল পিঠা পরিবেশন করা হলেও এখন তা বাড়িয়ে ৯০ জাতের ভর্তা করা হয়েছে।ভর্তার সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে বিক্রিও।সন্ধ্যার পর দোকান খুলার সাথে সাথে ভিড় লেগে যায় সুলেমান আহম'দের দোকানে। অনেকে দাঁড়িয়ে চিতল পিঠা দিয়ে ভর্তার স্বাদ নিচ্ছেন আবার অনেকে পার্সেল করে পরিবারের জন্য নিয়ে যাচ্ছেন।

পিঠা খেতে আসা রফিক উদ্দিন নামের এক যুবক বলেন,৯০ জাতের ভর্তার সাথে চিতল পিঠার স্বাদ অসাধারণ।ট'ক ঝাল ভর্তার সাথে চিতল পিঠা খেতে দারুন মজা লাগছে।

সাফি আহম'দ নামের আরও এক তরুণ বলেন,ভর্তা দিয়ে চিতল পিঠা খেতে দারুণ লাগে।আমি প্রতিদিনই এই ভর্তা দিয়ে পিঠার স্বাদ নেই।

এ বিষয়ে সুলেমান আহম'দ বলেন,আমি প্রথমে ৪২ জাতের ভর্তার সাথে পিঠা পরিবেশন করি।এখন তা বাড়িয়ে ৯০ জাতের ভর্তা করেছি।ক্রেতারা পিঠার সাথে ফ্রি ভর্তা খেতে পারেন।দারুন সাড়া পাচ্ছি।প্রতিদিনই ৮-১০ হাজার টাকার পিঠা বিক্রি করতে পারছি।