রাজপথ দখল নেয়ার চেষ্টা নিয়ে ডিসেম্বরেই কঠোর আন্দোলনে নামছে বিএনপি

নিউজ ডেস্কঃ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, সরকারের পদত্যাগ ও নতুন নির্বাচনের দাবিতে আগামী ডিসেম্বরেই কঠোর আন্দোলনে রাজপথে নামছে বিএনপি। ইতোমধ্যে এর প্রস্তুতিও সম্পন্ন করছে দলটির নেতাকর্মীরা। তবে এই আন্দোলনের জন্য অ'পেক্ষা করবে আগামী ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত। কারণ ওইদিন দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আদেশের দিন ধার্য রয়েছে। ওইদিন চেয়ারপার্সনের জামিন না হলেই লাগাতার কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দলটির হাইকমান্ড।

দলীয় নেতা-কর্মীরা বলেছেন, তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। যা হারাবার তা হারিয়েছেন। এখন আর বাকি কিছু নেই। লাখ লাখ নেতাকর্মী ঘর ছাড়া। মা'মলা-হা'মলায় বাড়ি ঘরে যেতে পারেন না। আর কতদিন এভাবে চলবে। এ থেকে মুক্তির জন?্য এবার সব পিছুটান ফেলে মাঠে নামবেন নেতা-কর্মীরা। দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে কারো প্রতি কারো ক্ষোভ বা মতানৈক্য থাকলেও আন্দোলনের ব্যাপারে এবং তাদের নেত্রীর মুক্তির ইস্যুতে তারা এক।

আগামী ৫ ডিসেম্বর সর্বোচ্চ আ'দালতে কারাব'ন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন না হলে লাগাতার সরকার পতনের আন্দোলনের হুমকি দিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আগামী ৫ ডিসেম্বর বেগম খালেদা জিয়ার জামিন শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। ওইদিন যদি বেগম জিয়ার জামিন না হয় তাহলে আম'রা বুঝতে পারবো- সরাসরি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে এটি হচ্ছে না। আর ওইদিন জামিন না হলে দেশনেত্রীর মুক্তির দাবিতে বিএনপি লাগাতার সরকার পতনের আন্দোলনে যাবে। গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় প্রধান অ'তিথির বক্তব্যে তিনি এ ঘোষণা দেন।

ইতোমধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কয়েকটি বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেসব সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতাদের ভাষণের সময়ে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা বৃহৎ কর্মসূচি চাই বলে সস্নোগান দিয়েছেন। স্থানীয় অনেক নেতা-কর্মীও তাদের বক্তৃতায় বৃহৎ কর্মসূচির দাবি জানিয়েছেন। কেন্দ্রীয় নেতারাও বুঝেছেন তৃণমূল প্রস্তুত আছে।

বেশকিছু দিন ধরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস?্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় রাস্তায় নামা'র ব?্যাপারে তাগিদ দিয়ে আসছেন। তিনি বলেন, আইনি প্রক্রিয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে না। রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনতে হবে। তাহলেই গণতন্ত্র মুক্তি পাবে।

সর্বশেষ ২৪ নভেম্বর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইস'লাম আলমগীরও কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আর কোনো সভা সেমিনারে অনুমতি চাওয়া হবে না। যখন প্রয়োজন তখনই সভা সমাবেশ করবেন। তার সেই বক্তব্যের একদিন পরই ২৬ নভেম্বর রাস্তায় নামে বিএনপি নেতা-কর্মী।

হাইকোর্টের সামনে সড়ক অবরোধ করে, বিক্ষোভ করে। এসময় পু'লিশের সাথে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এর আগে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, আজকে রাস্তায় নামাটা অসাংবিধানিক নয় এবং আইন বিরোধী ও ক্ষমতার মালিক হওয়া সত্ত্বেও সবকিছু থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। দেশে বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। পেঁয়াজ, চাল, তেল জনগণের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। এসব বিষয় নিয়ে আমাদের আন্দোলন করার অধিকার আছে। জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার জন্য আন্দোলন করার অধিকার আমাদের আছে।

দেশের মানুষ পরিবর্তন চায় মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, ১১ বছর হয়ে গেছে এই সরকারের। দেশের মানুষ এখন অ'তিষ্ঠ, তারা পরিবর্তন চায়। এই পরিবর্তন যত শিগগিরই আসবে, দেশের জন্য ততই মঙ্গল হবে। বাংলাদেশের মানুষ আন্দোলনের জন্য প্রচুর পরিমাণে চাপ দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির এই সিনিয়র নেতা।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, আওয়ামী লীগ এখন জনগণের শত্রুতে পরিণত হয়েছে। তাদের সময় শেষ, এবার ক্ষমতা ছাড়তে হবে আওয়ামী লীগকে। আলাল বলেন, ২০০৯ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ জোর করে এই ১২ বছর ক্ষমতায় থেকে যেভাবে মানুষের শত্রুতে পরিণত হয়েছে তা?তে এই সরকার আর বেশিদিন ক্ষমতায় থাকতে পার?বে না।

আওয়ামী লীগ যতদিন পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকবে ততদিন পর্যন্ত মানুষ প্রাপ্য অধিকার পাবে না বলেও মন্তব্য করেন আলাল। আলাল আরো বলেন, চলমান পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পেতে ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে শুধু বিএনপি নেতা-কর্মীই নয়, সচেতন সব মানুষেরও এই আন্দোলনে শামিল হওয়া দরকার।

বিএনপিরসহ তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী বলেন, জনগণ ও গণতন্ত্রকে জি'ম্মি করে অধিকার হ'রণ করে গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে দমন করতেই বেগম খালেদা জিয়াকে আ'দালত ব্যবহার করে বন্দী করে রাখা হয়েছে। দেশের মানুষকে জি'ম্মি করে রাখা হয়েছে। আজ সীমাহীন ক'ষ্টের মধ্যে রয়েছে এদেশের জনগণ। এ থেকে উত্তরণ করতে হলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দীদের মুক্ত করতে হবে। এজন্য আন্দোলনের বিকল্প নেই।

প্রসঙ্গত, আগামী ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে আপিল বিভাগে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে জানতে মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট দাখিল করতে বলা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের ৬ সদস্যের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মা'মলায় বেগম জিয়ার জামিন আদেশ বিষয়ে আগামী ৫ ডিসেম্বর আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছেন আ'দালত।

সুত্র: দৈনিক জনতা