ইলিয়াস কাঞ্চনকে নিয়ে যারা নোংরামি করছে, তারা দেশের শত্রু : জায়েদ খান

নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে গত কয়েকদিন বাংলাদেশের বাস-ট্রাক শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালন করেছেন। ইলিয়াস কাঞ্চন বিভিন্ন ট'ক-শো ও সংবাদমাধ্যমে এই আইনকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। ঠিক এই সময় ইন্টারনেট-ভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া বিভিন্ন ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ইলিয়াস কাঞ্চনের ছবি সম্বলিত ব্যানার টাঙিয়ে কিংবা কুশপুত্তলিকা তৈরি করে জুতার মালা পরানো হয়েছে। শ্রমিকদের ঘৃণ্য এই কর্মকা'ণ্ড ইলিয়াস কাঞ্চনকে ভীষণ ক'ষ্ট দিয়েছে।

তিনি মানসিকভাবে আ'ঘাত পেয়েছেন জানিয়ে বলেন, ‘যাদের জন্য আমি সবকিছু জলাঞ্জলি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছি; কোনো কিছু পাওয়ার আশায় নয়। দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আমা'র ক্যারিয়ারে সময় না দিয়ে নিরাপদ সড়কে সময় দিয়েছি। যখন দেখি এই বিষয়টি নিয়ে বাজে মন্তব্য হচ্ছে তখন খা'রাপ লাগে, ক'ষ্ট লাগে। এছাড়া আর কিছু বলার নেই।’

এ প্রসঙ্গে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘আমি ও আম'রা চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি আম'রা কাঞ্চন ভাইয়ের পাশে আছি। তিনি চাইবেন আম'রা তার সঙ্গে আছি। যারা নোংরামি করছেন তারা দেশের ও সমাজের শত্রু। শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে তীব্র প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানাই। কাঞ্চন ভাই দীর্ঘদিন ধরে মানুষকে সচেতন করে আসছেন, এটা আমাদের গর্বের বিষয়। তার এই সুন্দর কাজের সঙ্গে শিল্পীরা থাকবেন এবং শিল্পী সমিতি আছে।’

ইমন বলেন, ‘কাঞ্চন ভাইকে নিয়ে যারা কটূক্তি করছেন আমি আমা'র জায়গা থেকে তাদের ধিক্কার জানাই। কারণ কাঞ্চন ভাই আমাদের সিনিয়র পার্সন। নিরাপদ সড়ক প্রত্যেকটা মানুষের অধিকার। কাঞ্চন ভাইয়ের স্ত্রী' সড়ক দুর্ঘ'টনায় মা'রা গিয়েছেন। এরপর থেকে তিনি সড়ক দুর্ঘ'টনা রোধে ভূমিকা রেখে আসছেন। আমাদের দেশে বড় গাড়িগুলো রাস্তায় নামলে প্রাইভেট'কার, রিকশা- এগুলোকে কিছুই মনে করে না। আমি ফেসবুকে দেখেছি কাঞ্চন ভাইকে নিয়ে বাজে ছবি পোস্ট করা হচ্ছে। আমি মনে করি কাঞ্চন ভাইয়ের সঙ্গে আমাদেরও একাত্মতা প্রকাশ করা উচিত।’

উল্ল্যেখ্য, গত ১ নভেম্বর থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়ন হয়। এর পরেই নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংশোধন হয়।