ট্রেন দুর্ঘ'টনা: মুয়াজ্জিনের মাইকের ডাকে ছুটে আসেন উ'দ্ধারকর্মীরা

হঠাৎ বিকট শব্দ, নারী-পুরুষের কা'ন্নার আওয়াজ, আহাজারি। ম'সজিদের মুয়াজ্জিন সোহরাব হোসেন এ সব শব্দ শুনে হতবাক ও আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন। তিনি এ সময় বুঝতে পারেন কিছু একটা ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় মাইকে ঘোষণা দেন লোকজনকে ঘর থেকে বের হতে। তিনিও ছুটে যান ঘটনাস্থলে। মুহূর্তের মধ্যেই আশপাশের লোকজন ও যুবকরা ঘুম থেকে উঠে দৌড়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান।

মঙ্গলবার রাত পৌনে ৩টার দিকে মন্দভাগ এলাকার ম'সজিদের মুয়াজ্জিন সোহরাব হোসেন উ'দ্ধারের জন্য সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

এ সময় ফায়ার সার্ভিস, পু'লিশ ও অন্যান্য উ'দ্ধারকারী দল আসার আগেই প্রথমে এগিয়ে আসেন এলাকার লোকজন।

উ'দ্ধারকারী যুবক মো. রফিকুল ইস'লাম যুগান্তরকে জানান, মুয়াজ্জিন সোহরাব হোসেন এ সময় ঘুম থেকে উঠে আজানের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ওজু করার আগেই তিনি দুর্ঘ'টনার আওয়াজ পেয়ে মাইকে ঘোষণা দেন। বারবার মাইকের আওয়াজ শুনে এলাকাবাসী ঘুম থেকে উঠে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন।

এলাকাবাসী ট্রেনের ভেতর থেকে শত শত যাত্রীকে বের করে আনেন। কেউ আ'হত, কেউ নি'হত আবার কেউ ট্রেনের ভেতর আ'ট'কা- এই দৃশ্য দেখে লোকজন নিজের জীবন বাজি রেখে ট্রেন থেকে যাত্রীদের উ'দ্ধার করেন। এই হৃদয়বিদারক ঘটনায় এলাকার লোকজন হতভম্ব হয়ে পড়েন।

এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে আসার আধা ঘণ্টা পর ফায়ার কর্মী, পু'লিশ ও রেলওয়ের কর্মক'র্তা এবং অন্যান্য উ'দ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে এসে উ'দ্ধার কাজ শুরু করে বলে জানান রফিকুল ইস'লাম।

মুয়াজ্জিন সোহরাব হোসেন জানান, এত বড় বিকট আওয়াজ আমা'র জীবনে কখনও শুনিনি। প্রথমে আওয়াজ শুনে আমি ভ'য় পেয়ে যাই। পরে বাইরে বের হয়ে দেখি ট্রেন দুর্ঘ'টনা ঘটেছে। ঘটনাস্থলটি ছিল ম'সজিদের কাছেই। তাই আওয়াজ পেয়ে যায় তখনই।