কত সুখের সংসার তাদের ভেঙে গেল আজ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজে'লায় দুই ট্রেনের সং'ঘর্ষে নি'হতের সংখ্যা বেড়ে ১৬ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে হবিগঞ্জেরই সাতজন। এদের মধ্যে রয়েছে নারী ও শি'শু। নি'হতদের কেউ চাকরির সন্ধানে, কেউ সমুদ্র দেখতে, আবার কেউ কর্মস্থলে ফিরছিলেন। নি'হতদের পরিবারে চলছে শোক। স্বজনদের কা'ন্নায় ভারি হয়ে উঠেছে এলাকার পরিবেশ।

নি'হত সাতজন হলেন হবিগঞ্জ শহরতলীর বড় বহুলা গ্রামের আলমগীর আলমের ছে'লে ইয়াছিন আরাফাত (১২), আনোয়ারপুর এলাকার বাসিন্দা ও জে'লা ছাত্রদলের সহসভাপতি আলী মোহাম্ম'দ ইউসুফ (৩২), বানিয়াচং উপজে'লার তাম্বুলিটুলা গ্রামের সোহেল মিয়ার আড়াই বছরের মে'য়ে আদিবা আক্তার সোহা ওরফে সোহা মনি ও ম'দনমুরত গ্রামের আল-আমিন (৩০), চুনারুঘাট উপজে'লার উবাহাটা গ্রামের পশ্চিম তালুকদার বাড়ির ফটিক মিয়া তালুকদারের ছে'লে রুবেল মিয়া তালুকদার (২০), মিরাশী ইউনিয়নের পাকুড়িয়া গ্রামের আবুল হাসিম মিয়ার ছে'লে সুজন মিয়া (৩০) ও একই উপজে'লার আহম'দাবাদ গ্রামের পিয়ারা বেগম (৩২)। উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে করে চট্টগ্রাম যাচ্ছিলেন তারা।

ট্রেন দুর্ঘ'টনায় নি'হত ইয়াছিন আরাফাতের বাবা আলমগীর আলম আ'হত হন। তিনি হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও বহুলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি। তার ছে'লে ওই বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত। সে স্টুডেন্ট কাউন্সিলের নির্বাচিত সদস্য ছিল। ইয়াছিন বাবার সঙ্গে চট্টগ্রামে যাচ্ছিল সাগর ও দর্শনীয় স্থান দেখতে। ট্রেন দুর্ঘ'টনায় ছে'লেকে হারিয়ে তার মা হাসিনা আক্তার বার বার মূর্ছা যাচ্ছেন।

এদিকে, অনেক আগেই বাবা-মাকে হারিয়েছিলেন নি'হত আল-আমিন। কোনো ভাই-বোনও ছিল না তার। বিয়ে করেছিলেন। সংসারে ছিল দুই মে'য়ে, রনিহা (৬) ও নুছরা (৮)। ১৯ দিন আগে একটি ছে'লে হয় তার। সেই ছে'লের নাম রেখে আর কর্মস্থলে ফিরতে পারেননি আল-আমিন।

নি'হত আল-আমিনের চাচা বানিয়াচংয়ের বড়ইউড়ি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য কুতুব উদ্দিন জানান, আল-আমিন চট্টগ্রামে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করতেন। ১৯ দিন আগে তার এক ছে'লের জন্ম হয়। ছে'লের নাম রাখতে সম্প্রতি বাড়িতে আসেন। একমাত্র ছে'লের নাম রাখেন ইয়ামিন। ছে'লের নাম রেখে চাচা মনু মিয়া ও ফুফাতো ভাই শামীমকে নিয়ে সোমবার রাতে উদয়ন ট্রেনে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হন। কিন্তু রেল দুর্ঘ'টনায় তিনি মা'রা যান। অ'পর দুজন মনু মিয়া ও শামীম গুরুতর আ'হত হন।

বন্ধুদের নিয়ে কক্সবাজারে বেড়াতে যাচ্ছিলেন চুনারুঘাটের উবাহাটা গ্রামের রুবেল মিয়া তালুকদার। তিনি ওই গ্রামের পশ্চিম তালুকদার বাড়ির ফটিক মিয়া তালুকদারের ছে'লে। পড়তেন স্থানীয় শানখলা মাদরাসায়। কিন্তু কক্সবাজার আর যাওয়া হয়নি রুবেলের।

চুনারুঘাটের উবাহাটা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. রজব আলী জানান, রুবেলসহ একই এলাকার চার বন্ধু সোমবার রাতে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে জংশন থেকে উদয়ন এক্সপ্রেসে করে কক্সবাজারে বেড়ানোর উদ্দেশ্যে রওনা হন। ট্রেন দুর্ঘ'টনার কবলে পড়ে ঘটনাস্থলেই মা'রা যান রুবেল। বাকি চার বন্ধুর মধ্যে একজন গুরুতর আ'হত এবং বাকিরা অক্ষত রয়েছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মেঝেতে পড়ে ছিল শি'শুটির নিথর দেহ। ফুটফুটে সুন্দর শি'শুটি। পোশাক-আশাক পরিপাটি। শি'শুটিকে একনজর দেখতে এসে অনেকেই চোখের পানি ছাড়েন। শি'শুটির পাশে কেউ ছিল না। তার মা-বাবা ও ভাই ভ'য়াবহ ট্রেন দুর্ঘ'টনায় আ'হত হয়ে ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি।

শি'শুটির নাম আদিবা আক্তার সোহা। বয়স তিন বছর। সে হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজে'লার বড়বাজারের তাম্বুলিটুলা গ্রামের সোহেল মিয়া ও নাজমা বেগমের মে'য়ে। সোহেল, নাজমা ও তাদের আ'হত ছে'লেকে প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, পরে হবিগঞ্জ এবং সেখান থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়।

সোহেল মিয়া জানান, তিনি ও তার স্ত্রী' নাজমা বেগম চট্টগ্রামের একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। গত বৃহস্পতিবার তারা হবিগঞ্জের বাড়ি আসেন। কর্মস্থলে যেতে সোমবার রাতে স্ত্রী' ও দুই সন্তানকে নিয়ে তারা সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রাম অ'ভিমুখী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে ওঠেন। পথে ট্রেন দুর্ঘ'টনায় তার মে'য়ে সোহা মা'রা যায়। আ'হত হন তিনি, তার স্ত্রী' ও সাড়ে চার বছর বয়সী ছে'লে নাছির। তারা এখন ঢাকায় চিকিৎসাধীন।

হবিগঞ্জ শহরের আনোয়ারপুর গ্রামের আবদুল আহাদ জানান, তার চাচাতো ভাই আলী মোহাম্ম'দ ইউসুফ বৃন্দাবন সরকারি কলেজ থেকে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে মাস্টার্স সম্পন্ন করে স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্টেনে অধ্যক্ষ হিসেবে কর্ম'রত ছিলেন। তার স্ত্রী' চিশতিয়া বেগম চট্টগ্রামে স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে কর্ম'রত। স্ত্রী' ও দেড় বছর বয়সী একমাত্র মে'য়ে ইশা আক্তারকে বাড়িতে আনতে চট্টগ্রামে যাচ্ছিলেন। ট্রেন দুর্ঘ'টনায় তিনি ঘটনাস্থলেই মা'রা যান।

ট্রেন দুর্ঘ'টনায় জে'লা ছাত্রদলের সহসভাপতি আলী মোহাম্ম'দ ইউসুফের নি'হত হওয়া প্রসঙ্গে কমিটির সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমেদ চৌধুরী বলেন, নি'হত আলী মোহাম্ম'দ ইউসুফ জে'লা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি চার ভাই বোনের মধ্যে তৃতীয়। তার বাবা মা'রা গেছেন ২০১১ সালে। আর বড় ভাই উসমান গনি ২০১৭ সালে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মা'রা যান। ইউসুফই ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী।

চুনারুঘাট উপজে'লার পাকুড়িয়া গ্রামের সুজন মিয়া চাকরির ইন্টারভিউ দিতে চট্টগ্রামে যাচ্ছিলেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রেন দুর্ঘ'টনায় তিনি নি'হত হয়েছেন। তিনি হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজের স্নাতকের ছাত্র ছিলেন। পাশাপাশি তিনি হবিগঞ্জ আ'দালতে মোহরার হিসেবে কাজ করতেন। তিনি ওই গ্রামের আবুল হাসিম মিয়ার ছে'লে। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট।

চুনারুঘাটের আহম'দাবাদ ইউনিয়নের ছয়শ্রী গ্রামের আবদুস সালামের স্ত্রী' পিয়ারা বেগম সোমবার রাতে বাবার বাড়ি যাচ্ছিলেন। একাই তিনি বাড়ি থেকে রওনা হন। পথে ট্রেন দুর্ঘ'টনায় তিনি মা'রা যান। তার চার সন্তান রয়েছে। খবর পেয়ে সকালে তার স্বামী আব্দুস সালাম লা'শ আনতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যান। এ বিষয়টি জানিয়েছেন আহম'দাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত চৌধুরী।

এদিকে, নি'হতদের পরিবারকে তাৎক্ষণিক ১৫ হাজার টাকা করে সহায়তা দিয়েছে জে'লা প্রশাসন। আর এক ছাত্রদল নেতা নি'হত হওয়ায় বিএনপি পরিবারেও নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

হবিগঞ্জের জে'লা প্রশাসক (ডিসি) মো. কাম'রুল হাসান বলেন, আম'রা এখন পর্যন্ত হবিগঞ্জের সাতজন নি'হত হওয়ার খবর নিশ্চিত হয়েছি। নি'হতদের পরিবারের খোঁজখবর রাখার জন্য প্রত্যেক উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আ'হতদের বিষয়ে তথ্য নিতে বলা হয়েছে। তাৎক্ষণিক নি'হতদের দাফনের জন্য ১৫ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে। আ'হতদের তথ্য সংগ্রহের পর চিকিৎসা সহায়তা দেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। জে'লা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়েছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে গউছ বলেন, ট্রেন দুর্ঘ'টনা এমনিতেই হয়নি। কারও না কারও গাফিলতি ছিল। বিষয়টি সুষ্ঠু ত'দন্তের মাধ্যমে দোষীদের বি'রুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হোক। এমন মৃ'ত্যুতে আম'রা গভীরভাবে শোকাহত।

হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, ছাত্রদল নেতা ইউসুফের মৃ'ত্যুতে আমি এবং আমা'র পৌর পরিষদ শোকাহত। তার পরিবারের যে ক্ষতি হয়েছে তা কারও পক্ষে পূরণ করা সম্ভব নয়। ট্রেন দুর্ঘ'টনায় নি'হত সবার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।