ছিলেন মেম্বার, এখন ৯১ কোটি টাকার মালিক আ.লীগ নেতা

সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের পর এবার সুনগামগঞ্জের তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁ ও সাধারণ সম্পাদক অমল করের বি'রুদ্ধে দু'র্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) অ'ভিযোগ দেয়া হয়েছে।

সোমবার (১২ নভেম্বর) বিকেলে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এ অ'ভিযোগ জমা দেন তাহিরপুর উপজে'লার ভাটি তাহিরপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এম'দাদ নূর। অ'ভিযোগে তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অমল করের সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের দাবি জানানো হয়।

তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁ ও সাধারণ সম্পাদক অমল করকে বিতর্কিত ও দু'র্নীতিবাজ উল্লেখ করে অ'ভিযোগে বলা হয়, ২০০৮ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দলীয় পদ ব্যবহার করে বিতর্কিত কর্মকা'ণ্ড করেছেন দুজন। চাদাঁবাজি করে কোটি কোটি টাকা সম্পত্তির মালিক হয়েছেন তারা। বড়ছড়া, চারাগাঁও, বাগলী শুল্ক স্টেশনে স'ন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ব্যাপক চাঁদাবাজি করেছেন, এখনো করছেন।

উপজে'লার নতুন বাজারে মা'র্কে'টের নামে ১৬টি দোকান করেছেন আবুল হোসেন খাঁ, ছে'লে আবুল কাশেমের নামে ছয়টি দোকান ঘরের একটিতে মা'র্কেট নির্মাণ করেছেন, নতুন বাজারে আরও ছয়টি দোকান ঘর, দোতলা একটি ভবন নির্মাণসহ উপজে'লার বিভিন্ন বাজারে ও হাওরে কোটি কোটি টাকার সম্পদ নিজের এবং ছে'লেদের নামে কিনেছেন।

আয়ের সঙ্গে সম্পদের সামঞ্জস্য নেই তার। তিনি দলের বড় পদে আসীন থাকায় তার ছে'লেরাও ব্যবসার নামে ব্যাপক লুটপাট ও চাঁদাবাজি করেছেন, করছেন। বড় ছে'লে পারুল মিয়ার আনুমানিক ১০ কোটি ও ছোট ছে'লে নয়ন মিয়ার নামে আট কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। সবমিলে আবুল হোসেন খাঁর নামে এবং পরিবারের নামে ৯১ কোটি ৪০ লাখ টাকার সম্পত্তি রয়েছে।

অ'ভিযোগে আরও বলা হয়, ২০১২ সালের ৮ ডিসেম্বর মানবতাবিরোধী অ'প'রাধের অ'ভিযোগে তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁসহ চারজনের বি'রুদ্ধে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আ'দালতে মা'মলা করেন সাফির উদ্দিন নামে এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। মা'মলা'টি আমলে নিয়ে আন্তর্জাতিক অ'প'রাধ ট্রাইব্যুনালে পাঠান আ'দালত। ওই মা'মলা'টি ত'দন্তাধীন।

এরই মধ্যে আবুল হোসেন খাঁকে চাঁদাবাজির একটি মা'মলায় দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদ'ণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপরও দলীয় পদবি ব্যবহার করে লুটপাট ও চাঁদাবাজি করছেন তিনি।

দুদকে দেয়া অ'ভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, ২০০৪-২০১৫ সাল পর্যন্ত আবুল হোসেন খাঁ ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ২০১৫-২০১৯ সাল পর্যন্ত তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি থাকাবস্থায় উপজে'লার নতুন বাজারে অ'বৈধভাবে আবুল হোসেন মা'র্কেট দিয়ে ১৬টি দোকান করেছেন, যার মূল্য চার কোটি টাকা।

অ'বৈধপথে অর্জিত সম্পদ দিয়ে মৃ'ত ছে'লে আবুল কাশেমের নামে ছয়টি দোকান ও একটি মা'র্কেট নির্মাণ করেন আবুল হোসেন, যার মূল্য দুই কোটি টাকা। নতুন বাজারে আবুল হোসেনের আরও ছয়টি দোকান রয়েছে, ওই বাজারে আবুল হোসেন অফিস হিসেবে ব্যবহারের জন্য দোতলা ভবন নির্মাণ করেছেন, যার মূল্য চার কোটি টাকা। বাজারে আবুল হোসেনের দুটি দোকান রয়েছে, যার মূল্য ৪০ লাখ টাকা।

পাশাপাশি আবুল হোসেনের রয়েছে অটো রাইস মিল, সমিল ও আইসক্রিম ফ্যাক্টরি। যার মূল্য তিন কোটি টাকা। উপজে'লার বাগলী বাজারে একটি মা'র্কেট রয়েছে, যার মূল্য দুই কোটি টাকা। জয়বাংলাবাজারে একটি দোকান রয়েছে, যার মূল্য এক কোটি টাকা।

এছাড়া তাহিরপুর উপজে'লার বড়ছড়া এলাকায় এক একর জমির ওপর একটি ডাম্প, চারগাঁও এলাকায় এক একর জমির ওপর একটি ডাম্প এবং বাগলী এলাকায় এক একর জমির ওপর একটি ডাম্প রয়েছে তার। এসবের মূল্য তিন কোটি টাকা। তার রয়েছে একটি বাগানবাড়ি। বাগলী এলাকায় আট একর জমির ওপর এই বাগানবাড়ির মূল্য আট কোটি টাকা। সুনামগঞ্জ সদর উপজে'লায় আবুল হোসেন, তার ছে'লে পারুল মিয়া এবং মে'য়ের জামাইয়ের নামে তিনটি বাসা রয়েছে। যার মূল্য আট কোটি টাকা। আবুল হোসেনের ব্যাংকে বর্তমানে ৩০ কোটি টাকা রয়েছে। পাশাপাশি রয়েছে ১৮ কোটি টাকার নামে-বেনামে সম্পত্তি।

দুদকে অ'ভিযোগকারী মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এম'দাদ নূর বলেন, একজন ইউপি সদস্য থেকে কাজ শুরু করেছিলেন আবুল হোসেন খাঁ। ওই সময় তার পরিবারের কোনো সম্পদ ছিল না। ২০০৮ সালের পর থেকে দলীয় পরিচয় ব্যবহার করে কোটি কোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়েছেন আবুল হোসেন খাঁ। এখন প্রায় ১০০ কোটি টাকার মালিক আবুল হোসেন খাঁ। এজন্য তার বি'রুদ্ধে দুদকে অ'ভিযোগ দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে তার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের আবেদন করা হয়েছে।

জানতে চাইলে তাহিরপুর উপজে'লা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খাঁ বলেন, এসব অ'ভিযোগ মিথ্যা। উপজে'লা সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের বহিরাগত কিছু লোক আমা'র বি'রুদ্ধে মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে। দুদক আসুক, ত'দন্ত করুক। আমি মুক্তিযু'দ্ধের পক্ষের লোক। কিন্তু মিথ্যা মা'মলা দিয়ে আমাকে যু'দ্ধাপরাধী বানানোর চেষ্টা করছে কিছু লোক।