‘আমাদের ভিক্ষুক ভাববেন না, বাবরি ম'সজিদ মু'সলিম'দের বৈধ অধিকার’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- কয়েক দশকের আইনি ল'ড়াইয়ের পর শনিবার উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় বাবরি ম'সজিদ মা'মলার রায় দিয়েছে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট। এতে প্রায় পাঁচশ বছর আগে নির্মিত ম'সজিদটির জমি মন্দির নির্মাণে হিন্দুদের দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর ম'সজিদটি ভেঙে মাটিতে মিশিয়ে দেয় দেশটির হিন্দুত্ববাদীরা। আর ম'সজিদ নির্মাণে মু'সলমানদের শহরের অন্যত্র পাঁচ একরের একখণ্ড জমি দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে ভারত সরকারকে।

এদিকে বাবরি মসিজদ মা'মলার রায় নিয়ে দেশ-বিদেশে চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। দেশটির সর্বোচ্চ আ'দালতের রায় ঘোষণার পরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়ে রায় প্রত্যাখ্যান করেছিলেন সর্বভারতীয় মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মু'সলিমিনের প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি।

ম'সজিদ নির্মাণে বিকল্প পাঁচ একর জমির প্রস্তাব দিয়ে মু'সলমানদের অ'পমানিত করা হয়েছে বলে মনে করেন মজলিস-ই-ইত্তেহাদুলের এ নেতা। ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষ্যে রোববার এক সমাবেশে তিনি বলেন, বাবরি ম'সজিদ আমাদের বৈধ অধিকার। আম'রা ভূমির জন্য ল'ড়াই করিনি। আম'রা দান কিংবা অনুগ্রহ চাইনি। আমাদের ভিক্ষুক ভাববেন না। আম'রা দেশের সম্মানিত নাগরিক।

তিনি বলেন, আজ মু'সলমানরা কী' দেখতে পাচ্ছেন? সেখানে একটি ম'সজিদ ছিল, কয়েকশ বছর ধরে, সেটি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এখন সেখানে মন্দির নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছেন আ'দালত। জমিটি এখন রাম লালার অধিকারে চলে যাবে।

ওয়াইসি বলেন, কোনো এক ব্যক্তি যদি আপনার বাড়ি ভেঙে ফেলেন, আপনি সালিশে গেলেন, কিন্তু বিচারক আপনার বাড়িটি তাকেই দিয়ে দিলেন, যিনি সেটি গুঁড়িয়ে দিয়েছেন। আর আপনাকে বিকল্প একখণ্ড ভূমি দিলেন। তখন আপনার কেমন লাগবে?

হায়দরাবাদের এই এমপির প্রশ্ন হচ্ছে- যদি ম'সজিদটি অ'বৈধভাবেই স্থাপিত হয়ে থাকে, তা হলে এল কে আদভানিসহ অন্যদের কেন বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে। আর বৈধ জায়গায় হলে কেন সেই জমি তাকে দেয়া হলো।

বিচার না মানায় যারা তার সমালোচনা করেন, তাদের তুলাধোনা করলেন ওয়াইসি। তিনি বলেন, রায়ের বিরোধিতা করার গণতান্ত্রিক অধিকার তার রয়েছে।

ম'সজিদের পক্ষ হয়ে সুপ্রিমকোর্টে আইনি ল'ড়াই চালিয়ে যাওয়া আইনজীবীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি। অশীতিপর আইনজীবী রাজীব দেওয়ান ঘণ্টার পর ঘণ্টা ধরে আ'দালতে যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। তিনি বলেন, রাজীব সাহেবকে ধন্যবাদ জানানোর মতো ভাষা আমা'র জানা নেই। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে- তিনি মা'মলা'টি নিয়েছেন এবং কঠিন সময় ল'ড়াই করে গেছেন।

বিজেপি ও সংঘ পরিবার যখন ম'সজিদের একটি তালিকা বানিয়েছে, তখন বাবরি ম'সজিদের জন্য ল'ড়াই করে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ বলে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, সংগঠন দুটি বলতে চাচ্ছে, তারা কোনো তালিকা করেনি। যদি না-ই করত, তবে কাশি ও মাথুরা ম'সজিদের মা'মলা কেন তারা প্রত্যাহার করছে না।

ভারতের ধ'র্মনিরপেক্ষ দলগুলো মু'সলমানদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে বলেও জানান তিনি। সুপ্রিমকোর্টের রায় নিয়ে কংগ্রেসের প্রতিক্রিয়ারও নিন্দা জানিয়েছেন এ রাজনীতিবিদ।