আ'লোচিত সাগর-রুনি হ'ত্যার আলামত এখনও যুক্তরাষ্ট্রে

নিউজ ডেস্কঃ সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হ'ত্যা মা'মলায় কারা জ'ড়িত তা খুঁজে বের করার জন্য হ'ত্যার আলামত ডিএনএ টেস্ট করতে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে বলে হাইকোর্ট'কে জানিয়েছেন মা'মলার (আইও) ত'দন্ত কর্মক'র্তা খন্দকার সফিকুল আলম। তাই মা'মলার ত'দন্তের কোনো অগ্রগতি নেই।

হাইকোর্টের তলবে ত'দন্ত কর্মক'র্তা খন্দকার সফিকুল আলম আ'দালতে উপস্থিত হয়ে সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে সোমবার এমন তথ্য জানিয়েছেন। যেসব আলামত জ'ব্দ করা হয়েছে সেসব আলামতের ডিএনএ পরীক্ষার রিপোর্ট যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে।

এ বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দিন ঠিক করেছেন আ'দালত। এদিকে সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হ'ত্যা মা'মলার ত'দন্ত আট বছরেও শেষ না হওয়াই হতাশা প্রকাশ করেছেন আ'দালত।

সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আ'দালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন।

সারওয়ার হোসেন সাংবাদিকদের জানান, হাইকোর্টের তলবে উপস্থিত হয়ে সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে এমন তথ্য জানিয়েছেন ত'দন্ত কর্মক'র্তা খন্দকার সফিকুল আলম। যেসব আলামত জ'ব্দ করা হয়েছে সেসব আলামতের ডিএনএ পরীক্ষার রিপোর্ট যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে। তাই মা'মলার ত'দন্তের কোনো রকম অগ্রগতি নেই।

এর আগে গত ২০ অক্টোবর সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হ'ত্যা মা'মলার ত'দন্ত কর্মক'র্তাকে তলব করেছিলেন হাইকোর্ট। সে অনুযায়ী মা'মলার সিডিসহ ত'দন্ত কর্মক'র্তা আজ আ'দালতে হাজির হন। ওই ঘটনায় স'ন্দেহভাজন হিসেবে অ'ভিযোগ ওঠা তানভীর রহমানের নামের এক ব্যক্তির মা'মলা বাতিল চেয়ে করা আবেদনের শুনানিতে এ আদেশ দেয়া হয়েছিল।

পরে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. সারওয়ার হোসেন বলেন, দীর্ঘ আট বছরে মা'মলার ত'দন্ত শেষ না হওয়ার বিষয়টি আ'দালতের নজরে এসেছে। আ'দালত বলেছেন, ত'দন্ত শেষ হবে কবে। ত'দন্ত কি অনন্তকাল ধরে চলবে। শুনানি নিয়ে আ'দালত তানভীরের ক্ষেত্রে মা'মলা'টির কার্যক্রম কেন বাতিল করা হবে না এ ম'র্মে রুল দিয়েছেন। মা'মলার ত'দন্ত কর্মক'র্তাকে তলব করেন।

সাগর-রুনি হ'ত্যা মা'মলায় গ্রে'ফতারের ২৬ মাস পর জামিনে কারাগার থেকে বরে হন তানভীর রহমান। তানভীরের বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমা'রীতে। তিনি ঢাকায় উত্তরার ১৩ নম্বর সেক্টরে থাকেন। তানভীর রহমান ২০১২ সালের ১ অক্টোবর তার কর্মস্থল স্কলাসটিকা স্কুলের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হয়ে নি'খোঁজ হন।

এ ঘটনায় উত্তরা থা'নায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে তার পরিবার। এরপর ৯ অক্টোবর তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর সংবাদ সম্মেলনে জানান, সাগর-রুনি হ'ত্যা মা'মলায় তানভীরকে গ্রে'ফতার করা হয়েছে। পরে ২০১৪ সালে হাইকোর্ট থেকে তিনি জামিন পান। একই বছরের ডিসেম্বরে তিনি মুক্তি পান।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়াবাড়িতে সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনির ক্ষতবিক্ষত ম'রদেহ উ'দ্ধার করা হয়। সাগর তখন মাছরাঙা টিভিতে আর রুনি এটিএন বাংলায় কর্ম'রত ছিলেন। হ'ত্যাকা'ণ্ডের সময় বাসায় ছিল তাদের সাড়ে চার বছরের ছে'লে মাহির সরওয়ার মেঘ। হ'ত্যাকা'ণ্ডে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। হ'ত্যাকা'ণ্ডের পর রুনির ভাই নওশের আলম রোমান শেরেবাংলা নগর থা'নায় একটি হ'ত্যা মা'মলা করেন।

এ মা'মলায় মোট আটজন স'ন্দেহভাজনকে গ্রে'ফতার করা হয়েছে। তারা হলেন- রফিকুল ইস'লাম, বকুল মিয়া, মো. সাইদ, মিন্টু, কাম'রুল হাসান ওরফে অরুণ, সাগর-রুনির ভাড়াবাসার নিরাপত্তা প্রহরী এনামুল, পলা'শ রুদ্র পাল এবং নি'হত দম্পতির বন্ধু তানভীর রহমান। তাদের মধ্যে প্রথম পাঁচজনই মহাখালীর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের চিকিৎসক নারায়ণ চন্দ্র হ'ত্যার ঘটনায় র্যাব ও গোয়েন্দা পু'লিশের (ডিবি) হাতে গ্রে'ফতার হন। প্রথম পাঁচজন ও নিরাপত্তারক্ষী এনামুল এখনও এ মা'মলায় কারাবাস করছেন।