‘ঘুষ না দেওয়ায় ছে'লের চাকরি হয়নি’: রাষ্ট্রীয় সম্মান চান না আরেক মুক্তিযোদ্ধা

দিনাজপুরের পর এবার পঞ্চগড়েও ছে'লের চাকরি না হওয়ায় মৃ'ত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান না দিতে জে'লা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছেন এক মুক্তিযোদ্ধা। দুই বছর আগের এক নিয়োগ পরীক্ষায় চাকরি না হওয়ায় বৃহস্পতিবার আটোয়ারী উপজে'লার কা'টালী মীরপাড়া এলাকার মুক্তিযোদ্ধা সলিম উদ্দিন জে'লা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও জে'লা প্রশাসক বরাবর এ আবেদন করেন।

আবেদনে মুক্তিযোদ্ধা সলিম উদ্দিন বলেন, সম্প্রতি আটোয়ারী উপজে'লায় ১৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরি কাম নৈশপ্রহরী পদে নিয়োগ পরীক্ষায় তার ছে'লে সাহিবুল ইস'লাম আবেদন করেন। কিন্তু ওই নিয়োগে মুক্তিযোদ্ধা কোটা না মেনে অন্য এক প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরে অনিয়মের অ'ভিযোগে নিয়োগ কমিটির সভাপতি আটোয়ারী উপজে'লা নির্বাহী অফিসারসহ পাঁচজনের বি'রুদ্ধে আ'দালতে মা'মলা হয়।

বিচারাধীন অবস্থায় ‘প্রভাবশালী মহল’ মা'মলা'টি প্রত্যাহার করে নিতে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন বলে চিঠিতে অ'ভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধা সলিম।

এ কারণে মুক্তিযোদ্ধাদের অ'পমান করা হয়েছে দাবি করে নিয়োগে অনিয়মের বিচার না হলে মৃ'ত্যুর পর তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান দিতে নিষেধ করেন তিনি।

মুক্তিযোদ্ধা সলিমউদ্দিন বলেন, আমি একজন দরিদ্র মুক্তিযোদ্ধা। ঘুষ দিতে পারিনি বলে ওরা আমা'র ছে'লের চাকরি দেয়নি। এখানে মুক্তিযোদ্ধা কোটাও মানা হয়নি। যারা টাকা দিয়েছে তাদের চাকরি হয়েছে। আমি এর প্রতিবাদে মা'মলা করেছি। এজন্য আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে।

আটোয়ারী উপজে'লা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, নিয়োগের বিষয়টি দুই বছর আগের। নিয়ম মেনেই সবকিছু করা হয়েছে। মা'মলা'টিও যথানিয়মে চলমান। এ ছাড়া এই নিয়োগের একটি স্কুলে ওই এলাকার একজনকেই নিয়োগ দিতে হবে। এজন্য এখানে নিয়ম অনুযায়ী কোটা মেনে নিয়োগের সুযোগ ছিল না।

জে'লা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, ‘ছে'লের চাকরি হয়নি বলে একজন বীরমুক্তিযোদ্ধা অনিয়মের অ'ভিযোগ করেছেন। তিনি অ'ভিযোগে বলেছেন, অনিয়মের বিষয়টি বিচার না হলে তিনি মৃ'ত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মান চান না। চাকরির বিষয়টি আমা'র জানা নেই। তবে এ বিষয়ে প্রকৃত ঘটনা যাচাই করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।