ছাতকে দুই গ্রামবাসীর সং'ঘর্ষে নি'হত ১, আ'হত দুই শতাধিক

ছাতক প্রতিনিধি::ছাতকে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই গ্রামবাসীর দফায় দফায় সং'ঘর্ষে ব্যবসায়ী, পথচারীসহ দুই শতাধিক ব্যক্তি আ'হত ও একজন নি'হত হয়েছে। গুরুতর আ'হত ২০ জনকে ভর্তি করা হয়েছে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইয়াকুব আলী নামের এক ব্যক্তির মৃ'ত্যু ঘটে।

সং'ঘর্ষ চলাকালে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের সাদা ব্রিজ এলাকায় এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সং'ঘর্ষে সিলেট-সুনামগঞ্জ ও ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় গোবিন্দগঞ্জের সাদা ব্রিজ এলাকায় এ সং'ঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সং'ঘর্ষকারীরা সাদা ব্রিজ এলাকায় কয়েকটি সিএনজি-ফোরষ্ট্রোক ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করে। সং'ঘর্ষে ব্যাপক ইট-পাট'কেল ও কাঁচের বোতল ব্যবহার করা হয়।

উভ'য় পক্ষ কয়েক রাউন্ড গু'লি বিনিময়ও করেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে অন্তত ৩০ রাউন্ড টিয়ারশেল ও ফাঁকা গু'লি নিক্ষেপ করে পু'লিশ। খবর পেয়ে উপজে'লা নির্বাহী কর্মক'র্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোহাম্ম'দ গোলাম কবির ঘটনাস্থলে পৌঁছে গোবিন্দগঞ্জ পুলের মুখ ও আশপাশ এলাকায় আজ রাত ৮ থেকে পর দিন সকাল ৮ পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করেন। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার রাতে রেলওয়ের লালপুল এলাকায় ম'দ্যপ অবস্থায় শিবনগর গ্রামের প্রতিপক্ষদের উদ্দেশ্য করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে দিঘলী গ্রামের হারুন মিয়ার ছে'লে ফয়সল আহম'দ। গ্রামের লোকজনকে গালিগালাজ করতে বাধা দেয় শিবনগর গ্রামের সিরাজ মিয়ার ছে'লে সাজু মিয়া ও স্থানীয় দোকানি ফরিদ মিয়া।

এ সময় তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় ও হাতা-হাতির ঘটনা ঘটে। বুধবার বিকেলে সিএনজি যোগে যাওয়ার পথে সাদা ব্রিজ এলাকায় গাড়ির গতিরোধ করে গাড়ি থেকে নামিয়ে সাজু মিয়াকে বেধড়ক মা'রপিট করে ফয়সল ও তার সহযোগীরা।

এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন গুরুতর আ'হত অবস্থায় তাকে উ'দ্ধার করে সিএনজিতে তুলে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে দেন।

এ ঘটনার জের ধরে সন্ধ্যায় শিবনগর ও দিঘলী গ্রামবাসী দেশীয় অ'স্ত্র নিয়ে তুমুল সং'ঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী দফায় দফায় সং'ঘর্ষ চলাকালে কয়েক রাউন্ড গু'লি বিনিময় হলে গোটা এলাকা পরিণত হয় রণক্ষেত্রে।

আশপাশের সকল দোকান-পাট বন্ধ করে দেওয়া হয়। পথচারীরা দিকবিদিক ছুটাছুটি করে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়। খবর পেয়ে দাঙ্গা পু'লিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

সং'ঘর্ষে গুরুতর আ'হত মোহাম্ম'দ আলী, শাহনুর, ইকবাল, সুজন, শিপন, সাজু মিয়া, আওলাদ, সুমন, জাহির উদ্দিন, আব্দুল মজিদ, মঞ্জুর আলম, আহম'দ আলীসহ ২০ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মোস্তফা, জায়েদ, , ফরিদ, লায়েক জহির তোফায়েল, খুরশীদ, হারুনসহ অন্য আ'হতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

রাতে গুরুতর আ'হত শিবনগর গ্রামের খুরশিদ আলীর পুত্র ইয়াকুব আলী (৩০) সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃ'ত্যু ঘটে।

ছাতক থা'নার ওসি (ত'দন্ত) আমিনুল ইস'লাম জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি পু'লিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ঘটনাস্থলে অ'তিরিক্ত পু'লিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে পু'লিশের গু'লি ও টিয়ারশেল ছোঁড়ার বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।