বিশ্বনাথে মানব পাচারকারী আশিক আলী গ্রে'ফতার

টাইমস ডেস্কঃ প্রতারণা-জালিয়াতির অ'ভিযোগে দায়ের করা মা'মলার প্রধান অ'ভিযুক্ত মানব পাচারকারী আশিক আলী (৪৫)’কে গ্রে'প্তার করেছে সিলেটের বিশ্বনাথ থা'না পু'লিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গো'পন সংবাদের ভিত্তিতে উপজে'লার রামপাশা এলাকা থেকে থা'নার এসআই মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পু'লিশ তাকে (আশিক) গ্রে'প্তার করে। গ্রে'প্তারকৃত মানব পাচারকারী আশিক আলী উপজে'লার রামপাশা ইউনিয়নের শেখপাড়া-ধলীপাড়া গ্রামের মৃ'ত আবদুল মান্নানের পুত্র।

উপজে'লার কাউপুর গ্রামের আকবর আলীর পুত্র ফয়ছল আহম'দ বাদী হয়ে ১৫.০৮.১৮ইং তারিখে জালিয়াতী-প্রতারণা ও পাসপোর্ট আ'ট'কে রাখার অ'ভিযোগ এনে গ্রে'প্তারকৃত মানব পাচারকারী আশিক আলী ও তার ভাই আমির শাহ'জাহান (৩৫)’কে অ'ভিযুক্ত করে সিলেট সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৩য় আ'দালতে মা'মলা'টি দায়ের করে ছিলেন। মা'মলা নং সি.আর ১৮৯/২০১৮ইং। বিশ্বনাথ থা'নার এসআই মিজানুর রহমান ওই মা'মলার ত'দন্ত করেন। ত'দন্তে বাদীর লিখিত অ'ভিযোগের সত্যতা পেয়ে ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা এসআই মিজানুর রহমান ২২.০৬.১৯ইং তারিখে আ'দালতে মা'মলার চার্জশিট দাখিল করেন।

আশিক আলীকে গ্রে'প্তারের সত্যতা স্বীকার করে মা'মলার ত'দন্তকারী কর্মক'র্তা ও বিশ্বনাথ থা'নার এসআই মিজানুর রহমান বলেন, মা'মলার অ'পর অ'ভিযুক্ত পলাতক আমির শাহ'জাহানকে গ্রে'প্তারে পু'লিশী অ'ভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বাদী তার লিখিত অ'ভিযোগে উল্লে করেছেন, গ্রে'প্তারকৃত মানব পাচারকারী আশিক আলী ‘বাদী ও তার বন্ধু’কে ইউরোপের দেশ ফ্রান্সে পাঠানোর জন্য স্বাক্ষীদের সম্মুখে জনপ্রতি ১৩ লাখ টাকা করে মৌখিক চুক্তি করে। সেই মৌখিক চুক্তি অনুযায়ী বাদী ও তার বন্ধুর কাছ থেকে ৪ লাখ করে মোট ৮ লাখ টাকা অগ্রিম নেয় আশিক আলী ও তার ভাই আমির শাহ'জাহান। এসময় আশিক ও আমির ফ্রান্সের ভিসা লাগানোর জন্য তাদের (বাদী ও বাদীর বন্ধু) ২টি পাসপোর্ট নেয়।

একাধিকবার বাদী ও তার বন্ধুকে বিদেশ পাঠানোর নামে ঢাকাতে নিলেও চুক্তির সময় সীমা ফেরিয়ে যাওয়ার পরও তাদেরকে ফ্রান্সে পাঠাতে সম্পুর্ণরুপে ব্যর্থ হয় মানব পাচারকারী আশিক আলী ও তার ভাই আমির শাহ'জাহান। এনিয়ে একাধিক বার এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতি সালিশ বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু তাতেও বিষয়টির সুষ্ঠ সমাধান হয়নি। অবশেষে মানব পাচারকারী আশিক আলী ২০.০২.১৮ইং তারিখে মা'মলার স্বাক্ষীগণের উপস্থিতিতে নিজের কৃতকর্মের জন্য বাদী ও তার বন্ধুর কাছে ক্ষমা চেয়ে অগ্রিম হিসেবে তাদের কাছ থেকে নেওয়া ৮ লাখ টাকা ফেরৎ দেওয়ার জন্য নিজের (আশিক) স্বাক্ষরিত দুটি চেক দেয় এবং বাদী ও তার বন্ধুর পাসপোর্ট দুটি আরোও ১ মাস পর ফেরৎ দিবে বলে অঙ্গিকার করে।

কিন্তু ৫.০৩.১৮ইং তারিখে নগদায়নের জন্য বাদী ব্যাংকে মানব পাচারকারী আশিক আলীর দেওয়া চেক ব্যাংকে উপস্থাপন করলে জানতে পারেন চেকে উল্লেখিত ব্যাংক হিসাব নম্বরটি আশিক আলীর নয়। এটি অন্য আরেক জনের ব্যাংক হিসাব নাম্বার। চেকের পাতা জালিয়াতির মাধ্যমে সৃজন করে অন্য লোকের হিসাব নম্বর লিখিয়া নিজে স্বাক্ষর করে প্রতারণা করেছে মানব পাচারকারী আশিক আলী। এর মূল কারণ বাদী ও তার বন্ধুর কাছ থেকে অগ্রিম দেওয়া ৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ করা এবং তাদের ২টি পাসপোর্ট এখনও উ'দ্ধার হয়নি বলে জানা গেছে।