আত্মহ'ত্যার আগে গণধ'র্ষণের কথা জানিয়েছিল পপি, তথ্য গো'পন করায় দুলাভাই গ্রে'ফতার

টাইমস ডেস্কঃ বড় বোনের বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে গণধ'র্ষণের শিকার হয়ে লজ্জা সইতে না পেরে সিলেটের বিশ্বনাথে পপি বেগম (১৯) আত্মহ'ত্যা করেছিল। এঘটনায় তথ্য গো'পন করায় তার ভগ্নিপতি (দুলাভাই) ফয়জুল ইস'লাম (২৮)’কে গ্রে'ফতার করেছে পু'লিশ। সে দক্ষিণ সুরমা উপজে'লার তেতলী চেরাগী গ্রামের মৃ'ত আব্দুল মন্নানের পুত্র।

সোমবার (১৪ অক্টোবর) রাতে তাকে গ্রে'ফতার করে থা'না পু'লিশ। এঘটনায় সোমবার রাতে নি'হত পপি বেগমের পিতা, বিশ্বনাথ উপজে'লার অলংকারী ইউনিয়নের লালটেক গ্রামের শুকুর আলী বাদী হয়ে নারী ও শি'শু নি'র্যাতন দমন আইন, গণধ'র্ষণ করত:, আত্মহ'ত্যার প্র'রোচনা এবং সাক্ষ্য ঘটনা আড়াল করার অ'প'রাধ আইনে বিশ্বনাথ থা'নায় একটি মা'মলা দায়ের করেছেন। মা'মলা-৫। মা'মলায় ফয়জুল ইস'লাম’সহ চার জনকে আসামী করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীরা হলো- তেতলী চেরাগী গ্রামের আজিজুর রহমানের ছে'লে জাহাঙ্গীর আলম (৩৫), একই গ্রামের আব্দুল মনাফের ছে'লে বারিক মিয়া (৩৭) ও মৃ'ত মতছির আলীর ছে'লে জাহেদ (২২)।

এদিকে নি'হত পপি বেগমের মা জোসনা বেগম জানিয়েছেন, তার বড় মে'য়ের বাড়িতে গণধ'র্ষণের শিকার হয়ে বাড়ি ফিরে পপি জানিয়েছিল তাকে কিভাবে তুলে নিয়ে পাশবিক নি'র্যাতন করা হয়েছিল। কিন্ত মে'য়ের ভবিষ্যৎ ও পরিবারের সম্মানের কথা চিন্তা করে তখন পরিবারের সকলেই ঘটনাটি গো'পন করেছিলেন। এরপর মে'য়ে পপি বেগমের ব্যবহৃত ভ্যানেটি ব্যাগ গত রবিবার যখন হাতে নিয়ে তিনি মে'য়ের রেখে যাওয়া স্মৃ'তি দেখছিলেন তখন ওই ব্যাগের মধ্যে পপির নিজ হাতে লেখা একটি কাগজ (চিরকুট বা সুই'সাইড নোট) দেখতে পান। এসময় তিনি প্রতিবেশী লোকজনকে ওই কাগজটি দেখান। তখন কাগজ পড়ে জানতে পারেন গণধ'র্ষণের শিকার হয়ে লজ্জা সইতে না পেরে তার মে'য়ে আত্মহ'ত্যা করেছে।

পপি বেগম (১৯) গত ৬ অক্টোবর বেড়াতে যায় বড় বোন হেপি বেগমের স্বামীর বাড়ি দক্ষিণ সুরমা উপজে'লার তেতলী ইউনিয়নের চেরাগী গ্রামে। সেখানে গত বুধবার দিবাগত রাতে গণধ'র্ষণের শিকার হয়ে পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে বোনের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফিরে পপি এবং ওই দিন দুপুরে ঘরের তীরে সঙ্গে গলায় ওড়না পেছিয়ে সে আত্মহ'ত্যা করে। খবর পেয়ে থা'না পু'লিশ লা'শ উ'দ্ধার করে ম'র্গে প্রেরণ করে। এরপর ময়না ত'দন্ত শেষে পরদিন শুক্রবার নি'হতের দাফন সম্পন্ন করা হয়। দাফনের দুই দিন পর পপির ব্যবহৃত ভ্যানেটি ব্যাগে চিরকুট বা সুই'সাইড নোট পান তার মা।

তিনি জানান, বোনের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফিরে তাকে পপি বলেছিল এবং ওই কাগজে (সুই'সাইড নোট) সে উল্লেখ করেছে, বুধবার (৯ অক্টোবর) দিবাগত রাতে বোনের বাড়িতে অবস্থানকালে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে পপি বেগম ঘরের বাহিরে যায়। তখন পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা বারিক ও জাহেদ তার (পপির) মুখ চেপে ধরে তাকে জো'রপূর্বক উঠিয়ে নিয়ে যায় বাড়ির পাশ্ববর্তী জঙ্গলে। তখন তাদের পায়ে ধরে কা'ন্না কাটি করতে থাকলে বারিক-জাহেদ ও তাদের সহযোগীরা মা'রধর করে পপিকে পাশবিক নি'র্যাতন করে। নি'র্যাতনের পর পপিকে বোনের বাড়িতে (যেখান থেকে উঠিয়ে নেওয়া হয়, সেই স্থানে) ফেলে রেখে যায় জাহাঙ্গীর।

এদিকে, একই রুমে বোন ও ভগ্নিপতির সাথে ঘুমিয়ে থাকা পপি রাতে বাহিরে গিয়ে পাশবিকতার শিকার হয়ে দীর্ঘক্ষণ পর ঘরে ফিরে আসা, গণধ'র্ষণের বিষয়টি আত্মহ'ত্যার পূর্বে জানতে পেরে, এমনকি আত্মহ'ত্যার পরও বিষয়টি গো'পন রাখা এবং বোনের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার কিছুক্ষণ পর বাড়িতে এসে পপির সঙ্গে একান্তে ফয়জুল ইস'লামের বড় ভাইয়ের কথা বলা নিয়ে রয়েছে নানান গুঞ্জন। তবে মূল আসামীরা গ্রে'ফতার হলে ওই দিন রাতে কিভাবে ঘটনা ঘটেছিল এবং এর সাথে আর কারা জ'ড়িত রয়েছে তা উদঘাটন হবে এমনটাই আশাবাদী পু'লিশ।

মা'মলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বিশ্বনাথ থা'নার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মূসা বলেন, তথ্য গো'পন করায় গ্রে'ফতারকৃত নি'হতের ভগ্নিপতি ফয়জুল ইস'লামকে মঙ্গলবার আ'দালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মূল অ'ভিযুক্তদের গ্রে'ফতারে পু'লিশের অ'ভিযান অব্যাহত রয়েছে।