অনিক ভাইদের কাছে আবরারকে হাসপাতালে নেয়ার কথা বলি, তারা শোনেননি

নিউজ ডেস্কঃ ‘মিজান পানি আনতে বললে পানি এনে আবরারকে খাওয়ানো হয়। আমা'র সঙ্গে মোর্শেদ, আফাদ, তোহা ও শামীম বিল্লাহ আরবারকে বাঁ'চানোর চেষ্টা করে। কিন্তু হলের নিয়ম অনুযায়ী আম'রা বড় ভাইদের জো'র করে কিছু বলতে পারিনি। অবস্থা খা'রাপ হওয়ায় অনিক ভাইদের কাছে আবরারকে হাসপাতালে নেয়ার কথা বলি। কিন্তু তারা শোনেননি। পরে অবস্থা আরো খা'রাপ হলে সিঁড়ির কাছে নিয়ে রাখতে বলে।

মোয়াজ, তামিম ও জেমি কোলে করে সিঁড়ির কাছে নিয়ে যায়। পিছে পিছে আমিও ছিলাম। তাই সিসি টিভিতে আমাকে দেখা গেছে। সিঁড়ির কাছে নেয়ার উদ্দেশ্য ছিল- আবরারকে শিবির বলে পু'লিশের কাছে ধরিয়ে দেয়া। পু'লিশকে ডা'কাও হয়েছিল। কিন্তু আবরার মা'রা যাওয়ায় তাকে পু'লিশে দিতে পারেনি। রাত ৩টার দিকে আবরার মা'রা যায়।’ এভাবেই (১২ অক্টোবর) রি'মান্ড শুনানির আগে বিচারক এজলাসে ওঠার আগে আবরার হ'ত্যার বর্ণনা দেন আবরার হ'ত্যা মা'মলার আ'সামি মাজেদুর রহমান মাজেদ।

মাজেদ আরও বলেন, ‘রাত সাড়ে ১০টার দিকে গালিবের সঙ্গে ২০১১ নম্বর রুমে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি, হলের বড় ভাই অনিক আবরারকে মা'রছে। জুনিয়র হিসেবে ঠেকানোর কোনো উপায় আমাদের ছিল না। তার আগে রবিনসহ কয়েকজন আবরারকে মে'রেছে বলে শুনেছি। পরে অবস্থা খা'রাপ হওয়ায় সেখান থেকে আবরারকে ২০০৫ নম্বর রুমে নিয়ে যায়। সেখানে আবরারের শরীরে মলম লাগায়।’ উল্লেখ্য, শুক্রবার (১১ অক্টোবর) ভোর ৪ টার দিকে সিলেটের শাহ কিরন এলাকা থেকে মাজেদকে গ্রে'ফতার করে গোয়েন্দা পু'লিশের ধানমন্ডি জোনাল টিম। মাজেদ বুয়েটের উপকরণ ও ধাতু বিদ্যা প্রকৌশল (এমএমই) বিভাগের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র।