ব্রেকিং নিউজঃ নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূসের বি'রুদ্ধে গ্রে'ফতারি পরোয়ানা

নিউজ ডেস্কঃ প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন গঠন করায় চাকরিচ্যুতের অ'ভিযোগে দায়ের করা তিন মা'মলায় নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্ম'দ ইউনূসের বি'রুদ্ধে গ্রে'ফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আ'দালত। আজ (বুধবার) ঢাকার তৃতীয় শ্রম আ'দালতের চেয়ারম্যান রহিবুল ইস'লাম এ গ্রে'ফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এদিন তিন মা'মলায় ড. ইউনূসের সমনের জবাব দেওয়ার জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তিনি আ'দালতে উপস্থিত হননি।

তার পক্ষে হয়ে আইনজীবী রাজু আহম্মেদ আ'দালতকে বলেন, ড. ইউনূস সম্মানিত ব্যক্তি। তিনি ব্যবসার কাজে বিদেশ অবস্থান করছেন। তিনি দেশে আসলে আ'দালতে উপস্থিত হবেন। যদিও তিনি বিদেশে থাকায় আমাকে পাওয়ার দেননি তবুও আপনার কাছে অনুরোধ করছি তার বি'রুদ্ধে গ্রে'ফতারি পরোয়ানা জারি না করার জন্য।

মা'মলার বাদী প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম বলেন, প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন গঠন করায় চাকরিচ্যুতের করায় আম'রা ড. ইউনূসের বি'রুদ্ধে মা'মলা করি। তিনি আজ আ'দালতে উপস্থিত না হওয়ায় আ'দালত তার বি'রুদ্ধে গ্রে'ফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

অ'পরদিকে প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন আত্মসম'র্পন করে জামিন আবেদন করলে আ'দালত তা মঞ্জুর করেন।

আ'দালতের পেশকার নুরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ৩ জুলাই ঢাকার তৃতীয় শ্রম আ'দালতে ড. মুহাম্ম'দ ইউনূসসহ তিন জনের বি'রুদ্ধে মা'মলা করেন তার প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের সদ্য চাকরিচ্যুত সাবেক তিন কর্মচারীর। আ'দালত ৮ অক্টোবর তাদের হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করেন। অ'পর দুই জন হলেন-ড. ইউনূস ছাড়াও একই দিন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা ও উপ-মহাব্যবস্থাপক খন্দকার আবু আবেদীন।

যারা মা'মলা করেছেন

১. আব্দুস সালাম, কুষ্টিয়া জে'লার কুমা'রখালী থা'নার চড়াইকোল গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছে'লে। তিনি প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক। ২০০৫ সালের ২৭ জুন গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সে স্থায়ী পদে জুনিয়র এমআই'এস অফিসার (কম্পিউটার অ'পারেটর) হিসেবে যোগদান করেন তিনি।

২. শাহ আলম, নীলফামা'রী জে'লার এলাহী ম'সজিদপাড়ার নজরুল ইস'লামের ছে'লে। প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের প্রচার সম্পাদক তিনি। ২০১১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সে স্থায়ী পদে জুনিয়র এমআই'এস অফিসার (কম্পিউটার অ'পারেটর) হিসেবে যোগদান করেন।

৩. এম'রানুল হক, হবিগঞ্জ জে'লার বাহুবল থা'নার নারিকেলতলা গ্রামের সফর আলী ছে'লে। তিনি প্রস্তাবিত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সদস্য। তিনি ২০১৩ সালের ১৪ মা'র্চ গ্রামীণ কমিউনিকেশান্সে স্থায়ী পদে জুনিয়র এমআই'এস অফিসার (কম্পিউটার অ'পারেটর) হিসেবে যোগদান করেন।

যে অ'ভিযোগে ড. ইউনূসের বি'রুদ্ধে তিন মা'মলা

মা'মলার বাদীরা গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সে স্থায়ী পদে এমআই'এস অফিসার (কম্পিউটার অ'পারেটর) হিসেবে কাজে যোগদান করেন। শ্রমিক হিসেবে নিজেদের সংগঠিত হওয়া ও নিজেদের কল্যাণের জন্য ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের বিষয়ে সিদ্বান্ত গ্রহণ করেন। সে অনুযায়ী নিজেরাসহ অন্যান্য শ্রমিক সহকর্মীদের নিয়ে ‘গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন’ (প্রস্তাবিত) নামে একটি ইউনিয়ন গঠন করেন এবং তা আইন অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশনের জন্য আবেদন করেন।

২০১৯ সালের ১৬ এপ্রিল ট্রেড ইউনিয়নটি রেজিস্ট্রেশনের জন্য মহাপরিচালক ও রেজিস্ট্রার অব ট্রেড ইউনিয়নে আবেদন করেন তারা। ৯ জুন তা প্রত্যাখ্যান করা হয়। মা'মলার বাদী আব্দুস সালাম প্রস্তাবিত ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক, শাহ আলম প্রচার সম্পাদক ও এম'রানুল হক সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন এবং মা'মলার আ'সামিরা ইউনিয়নের বিষয় জানতে পারলে তাদের সঙ্গে খা'রাপ আচরণ করতে থাকেন। স্বাভাবিক দায়িত্ব পালনেও তারা বাধা প্রদান করেন।

বাদীর প্রতি এরূপ অন্যায় আচরণের প্রতিবাদ করায় প্রকাশ্যে নানা ধরনের হুমকি ও ভ'য়-ভীতি প্রদর্শন করতে থাকেন আ'সামিরা। আ'সামিদের নির্দেশে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার বেআইনিভাবে বাদীদের প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কাজ থেকে বিরত রাখেন এবং কোনো কারণ ছাড়াই বাদীদের চাকরি হতে টার্মিনেট করেন।

বিষয়টি লিখিতভাবে শ্রম অধিদফতরের মহাপরিচালকে অবগত করেন বাদীরা। পরবর্তীতে কাজের বিষয় বহুবার যোগাযোগ ও অনুনয়-বিনয় করলেও তাদের (বাদীদের) প্রতিষ্ঠানে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। শুধুমাত্র ইউনিয়ন গঠন করার কারণে আ'সামিরা তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা প্রদান করে কাজ থেকে বিরত রাখেন এবং বেআইনিভাবে চাকরিচ্যুত করেন।

ইউনিয়ন করার কারণে চাকরিচুত্যির বিষয়টি সম্পূর্ণ বেআইনি বিধায় চলতি বছরের ২৩ জুন আ'সামি নাজনীন সুলতানা ও খন্দকার আবু আবেদীনের বরাবর রেজিস্টার্ড ডাকযোগে অনুযোগপত্র প্রদান করেন তারা।

সেখানে উল্লেখ করা হয়, আ'সামিরা তাদের প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়ন গঠনের কারণে বাদীদের বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ১৯৫ (ঘ) ধারা লঙ্ঘন এবং অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত করেছে। বাদীরা শ্রমিক হিসেবে বাংলাদেশ শ্রম আইন ৩১৩ ধারার তাদের ন্যায়সংগত অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য ও ইউনিয়ন গঠন এবং তার কার্যকলাপ পরিচালনার জন্য আ'সামিদের বি'রুদ্ধে বাধ্য হয়ে বাংলাদেশ শ্রম আইনের ৩৯১ (১) ধারা মোতাবেক মা'মলা করতে বাধ্য হয়েছে।

সারাদেশে আইটি সেবা দেয় গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের কর্মীরা। নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্ম'দ ইউনূস কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত (ISO 9001:2015) সার্টিফাইড, গ্রামীণ ব্যাংকের একমাত্র আইটি প্রতিষ্ঠান ‘গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স’। সারাদেশে ২৫৬টি তথ্য ব্যবস্থাপনা কেন্দ্র এ আইটি সেবা দিয়ে থাকে। গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সে ১ হাজার কর্মী রয়েছেন।

দীর্ঘদিন যাবত গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের মাঠ পর্যায়ের কর্মীদের বেতন-ভাতাসহ বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার হওয়ায় সবার মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করে। কমিউনিকেশন কর্তৃপক্ষ বারবার মৌখিক আশ্বা'স দিয়েও তা বাস্তবায়ন করেনি।

গত ১৬ এপ্রিল প্রায় ৫৫০ জন কর্মী সংগঠিত হয়ে ঢাকার শ্রম অধিদফতরের ট্রেড ইউনিয়নের শাখায়, ‘গ্রামীণ কমিউনিকেশন’ শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন (প্রস্তাবিত) ইউনিয়ন জমা দেন।

সূত্রঃ জাগো নিউজ