ভূমধ্যসাগরে স্বপ্ন বিলীন সিলেটের দশজনের

বিয়ানীবাজার টাইমস ডেস্কঃ উন্মত্ত সাগরে ছোট নৌকাটিতে তোলা হয়েছিল ৭৯ জনকে। ৪০ জন ধারণক্ষমতার বাহনে দ্বিগুণ যাত্রী তোলায় শঙ্কা ছিল যেকোনো সময় ডুবে যাওয়ার। শেষ পর্যন্ত বড় একটি ঢেউয়ের ধাক্কায় সেই আশঙ্কাই সত্যি হয়। নৌকাটি যখন ভূমধ্যসাগরে ডুবে যায় তখন অন্য সহযাত্রীদের মতো দুই সহোদর মাহফুজ আহমদ মাছুম ও কামরান আহমদ মারুফও বেঁচে থাকার আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু সাগরের হিম জলরাশিতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ভেসে থাকার একপর্যায়ে হাল ছেড়ে দেন ছোট ভাই মারুফ। মাসুমকে বলেন, ‘ভাইয়া, আমি আর পারছি না। অনেক পানি খেয়ে ফেলেছি। আমার জন্য তুমিও মারা যাবে। তুমি বাঁচার চেষ্টা কর।’ বলেই বড় ভাই মাসুমের হাত ছেড়ে দেন মারুফ। মুহূর্তে হারিয়ে যান সাগরের অতলে। প্রায় দশ ঘণ্টা ভেসে থাকার পর জেলেদের ট্রলার তাকে উদ্ধার করে।

লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে গত বৃহস্পতিবার রাতে তিউনিশিয়া উপকূলে নৌকাডুবিতে ভূমধ্যসাগরে ভাই হারানোর এই করুণ কাহিনি কালের কণ্ঠকে শোনান দেশে থাকা আরেক ভাই আশফাক আহমদ মাসুদ। তিন ভাইয়ের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। সিলেট নগরের মজুমদারি এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন তাঁরা। সেখানে গতকাল ছিল স্বজনদের ভিড়। চলছে শোকের মাতম। আগের রাতে ভাইয়ের মৃত্যু সংবাদ শোনার পর থেকে তিনি নিজেও বিধ্বস্ত। জানালেন, ‘সাগর থেকে উদ্ধার হওয়ার পর মাসুম ভাইয়ের সঙ্গে রাতে একবার কথা হয়েছে। তখন তিনি আমাকে বলেছেন যে আমাদের ছোট ভাই মারুফ আর বেঁচে নেই।’

গতকাল রবিবার পর্যন্ত এই দুর্ঘটনায় সিলেটের দশজনের প্রাণহানির খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

নৌকাডুবিতে নিহতদের মধ্যে রয়েছেন—গোলাপগঞ্জের শরীফগঞ্জ ইউনিয়নের কদুপুর গ্রামের কামরান আহমদ মারুফ (২৩), মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ভুকশিমইল গ্রামের আহসান হাবিব শামিম (১৯), ফেঞ্চুগঞ্জের মুহিতপুর গ্রামের আহমদ আলী (২৪), তাঁর ভাই লিটন আহমদ (২২) ও আব্দুল আজিজ (২৪), একই উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের কাশেম আহমদ (২২), ভাদেশ্বর ইউনিয়নের হাওরতলা গ্রামের আফজাল মাহমুদ (২২), উত্তর ফেঞ্চুগঞ্জ ইউনিয়নের ভেলকোনা গ্রামের আয়াজ মিয়া (২০), হবিগঞ্জ সদরের লোকড়া গ্রামের আবদুল কাইয়ুম (২২) ও আবদুল মোক্তাদির (২২)।

এদিকে নৌকাডুবির ঘটনার পর থেকে অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন। আবার অনেকের মৃত্যুর বিষয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

অনেকে দেশে পরিবারের সঙ্গে এখন পর্যন্ত আর যোগাযোগ করেননি।