সুনামগঞ্জের মেয়ে ডাঃ শান্তার জীবন অকালেই নিভে গেলো

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি সুনামগঞ্জের মেয়ে উদীয়মান ডাঃ প্রিয়াঙ্কা তালুকদার শান্তার জীবনপ্রদীপ অকালেই নিভে গেলো। মেয়েকে হারিয়ে শোকের মাতম চলছে পরিবারে। সিলেট পার্কভিউ মেডিকেল কলেজের প্রভাষক ছিলেন প্রিয়াংকা। তিনি সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার গঙ্গাধরপুর গ্রামের হৃষীকেশ তালুকদারের মেয়ে। ঋষিকেশ তালুকদার এখন সুনামগঞ্জ শহরের নতুনপাড়ায় স্থায়ী ভাবে বসবাস করেন।

গত শনিবার(১১মে)রাতে ডাঃ প্রিয়াঙ্কা তালুকদার শান্তা সিলেটের পাঠানটুলার পনিটুলা এলাকার পল্লবী সি ব্লকের,২৫নাম্বার স্বামী বাসায় বসতঘর আত্বহত্যা করে। এমন অকাল মৃত্যুতেও মর্মাহত স্বজন ও এলাকাবাসী। নিহত শান্তার ভাই পলাশ তালুকদার দাবী করেন,স্বামীর বাড়িতে পারিবারিক নির্যাতনের শিকার ছিলেন শান্তা। তিনি পরিবারকেও মাঝে মধ্যে বিষয়টি অবগত করেছেন। শান্তাকে প্রায়ই নির্যাতন করা হতো বলে জানিয়েছেন।

এর জের ধরেই শনিবার(১১মে)রাতে ডাঃ প্রিয়াঙ্কা তালুকদার শান্তাকে হত্যা করে লাশ স্বামীর বসতঘর ঝুলিয়ে রাখা হয়। পরে খবর রোববার(১২)সকাল সাড়ে ৯টার দিকে জালালাবাদ থানার ওসি শাহ মোহাম্মদ হারুনুর রশিদের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা এসে ডাঃ প্রিয়াংকাকে ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন। তবে এ ঘটনাটে আত্বহত্যা বলে দাবি করেছে প্রিয়াঙ্কার স্বামীর বাড়ির লোকজন। এদিকে হত্যা বা আত্মহত্যায় বাধ্য করা হয়েছে কিনা এ নিয়েও পুলিশ নিশ্চিত হতে পারেনি। এ নিয়ে পুলিশ কাজ করছে।

নিহতের বাবা হৃষীকেশ তালুকদার জানান,শান্তা পাঠানটুলার পনিটুলা এলাকার পল্লবী সি ব্লকের ২৫নাম্বার বাসায় স্বামী ও তার পরিবারের সঙ্গে থাকত। প্রিয়াংকার স্বামী দিবাকর দেব কল্লোল পেশায় স্থপতি। তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটির স্থাপত্য বিভাগে কমর্রত ছিলেন। শান্তা শ্বশুর বাড়ির লোকজনের নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এটা পরিকল্পিত হত্যাকা-বলে দাবি করেন তিনি। বিশেষ করে শাশুড়ি প্রায়ই তাকে নির্যাতন করতেন বলে জানান ঋষিকেশ তালুকদার। এঘটনায় জোরালো তদন্ত সাপেক্ষে তিনি দোষীদের কঠোর শাস্তি দাবি করেন। সিলেট জালালাবাদ থানার ওসি শাহ মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ জানান,ডাঃ প্রিয়াংকার বাবার দায়ের করা হত্যা মামলায় পুলিশ স্বামী,শ্বশুর ও শাশুড়িকে গ্রেপ্তার করেছে। সর্বশেষ বরিবার তাদের আটক দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করলে আদালত তাদের জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। আমরা এবিষয়ে তর্দন্ত করছি। এখন ময়নাতদন্তের পর ঘটনার আসল রহস্য বলা যাবে।