হাওরে কৃষকের কপাল পুড়ছে আর ফড়িয়ারি ও রাইস মিল মালিকদের কপাল খুলেছে

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:হাওরে কৃষকের কপাল পুড়ছে আর ফড়িয়ারি ও রাইস মিল মালিকদের কপাল খুলেছে। কারন রাইস মিল মালিকদের সিন্ডিকেটকে সুবিধা দিতেই ধানের চেয়ে চালের লক্ষ্যমাত্রা প্রায় পাঁচগুণ বেশি ধরা
হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন হাওর পাড়ের লাখ লাখ কৃষক। খাদ্য বিভাগ কৃষকবান্ধব বলা হলেও বাস্থবে মিল মালিকবান্ধব আর ফড়িয়ারীদের হয়ে উঠেছে প্রতি বছরেই। ফলে সেন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান ও চাল সংগ্রহ করে লাভবান হচ্ছে খাদ্য গোদাম কর্মকর্তাগন। কারন কৃষক বান্ধব হলে কৃষকদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে সরকারী ভাবে ধান ও চাল সংগ্রহ করত। তাই আগামী বছর ধান আবাদ করা না করা নিয়ে কৃষক ও হাওরপাড়ের বাসীন্দাগন হতাশায় ভুগছে।

এদিকে ধানের দাম নিয়েও হতাশা এখন হাওরজুড়ে। এক বিঘা জমি আবাদে যে পরিমাণ টাকা ব্যয় হয়,সেই জমিতে পাওয়া ধান বিক্রি করে তার খরচই উঠছে না দাবী কৃষকদের। কৃষকদের পক্ষ থেকে সরকারিভাবে ধান মূল্য ও ক্রয়ের পরিমাণ বাড়ানোর দাবি জানালেও তা হয়নি।

আক্ষেপ করে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার শনির হাওর পাড়ের কৃষক সাদেক আলীসহ অনেক কৃষক জানান,ধার-দেনা করে ধান রোপণ,সার ও আর একজন শ্রমিকের মজুরি ৫০০-৫৫০টাকা দিয়ে ধান কেটেছি। সরকারী ভাবে ন্যায মূল্যে ধান ক্রয় শুরু না করায় ও ধাম বাড়ানোর দাবী না রাখায় উৎপাদিত ধান বাধ্য হয়েই পানির দামে বিক্রি করছি ফরিয়াড়িদের কাছে। কয়েক দিন আগেও প্রতি মণ বিক্রি করেছি ৫৫০-৬৫০টাকায়। এখন প্রতি মণ ধান  ৫০০টাকায় বিক্রি করে লছে আছি। আগামীতে আবাদ করব কি না তা নিয়ে ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এদিকে সুনামগঞ্জের হাওরে ধান কাটা এখন শেষ পর্যায়ে। জেলায় এবার ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৯লাখ ৭৫হাজার মেট্রিক টন। বরং বছর বছর কমেছে। এবার মাত্র ৬হাজার ৫০৮ মেট্রিক টন ধান ক্রয়ের বরাদ্দ
এসেছে। অথচ ২০১৬সালে ১৫হাজার,২০১৮সালে ৬হাজার ৮৮৭মেট্রিক ধান কেনা হয়। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী,জেলার ১১টি উপজেলায় চলতি মৌসুমে সাড়ে ছয় হাজার মেট্রিক টন ধান এবং ৩১হাজার ৯৭৭মেট্রিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। চালের মধ্যে ১৪হাজার ১৭০মেট্রিক টন সিদ্ধ এবং ১৭হাজার ৭৯৮মেট্রিক টন আতপ চাল সংগ্রহ করা হবে। ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি ২৬টাকা এবং সিদ্ধ চাল ৩৬ ও আতপ চাল ৩৫টাকা কেজি। ধান সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে সংগ্রহ করলেও চাল সংগ্রহ করা হবে রাইস মিল মালিকদের কাছ থেকে।

হাওর পাড়ের কৃষক সজল দাস,সোহাগ মিয়া বলেন,চলতি বোরো মৌসুমে কপাল পুড়েছে কৃষকদের আর কপাল খুলেছে ফড়িয়াদেরও মিল মালিকদের। কারণ সাধারণ কৃষকরা গুদামে ধান বিক্রি করতে গিয়ে হয়রানির শিকার হয়। আর সময় মত ধান ক্রয় না করায় লোকসান দিয়ে ফড়িয়াদের(মৌসুমী ধান ক্রয় করে যারা)কাছে ধান বিক্রি করে। এদিকে গোদাম কতৃপক্ষের যোগসাজোসে গুদামে চাল বিক্রি করে একটি সিন্ডিকেট প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। ওই সিন্ডিকেটের জন্য প্রতি বছরের মতো এবারও ধানের চেয়ে চালের লক্ষ্যমাত্রা বেশি নির্ধারণ করাই প্রমান করে খাদ্য বিভাগ কৃষকদের নয় খাদ্য বিভাগ আসলে মিল
মালিকবান্ধব হয়ে পড়েছে।

খাদ্য গুদামে ধান বিক্রি করতে গিয়ে কৃষকদের হয়রানির শিকার হয় বিষয়টি অস্বীকার করে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জাকারিয়া মোস্তফা বলেন,আমরা ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু করব। ধান সংগ্রহ শুরু হলে কৃষকরা সরকার নির্ধারিত ন্যায্য মূল্যে খাদ্য গুদামে ধান বিক্রি করতে পারবেন এবং লাভবান হবেন। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বশির আহম্মদ সরকার বলেন,কৃষি বিভাগ এতদিন হাওরের কৃষকদের ঘরে ধান তোলা নিয়ে ব্যস্ত থাকায় তালিকা তৈরী করা হয় নি। দ্রুত কৃষকদের তালিকা তৈরি করে খাদ্য বিভাগে পাঠাব। ধান কেনা শুরু হলে কৃষকরা লাভবান হবে।