সুনামগঞ্জে লিচুর বাম্পার ফলন গাছে- গাছে ঝুলছে পাকা লিচু

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি‘ মধুমাসের রসাল মিষ্টি ফল লিচু। বৈশাখ-জৈষ্ঠ্য মাসে গাছে-গাছে পাকা লিচুর ছড়া বাতাসে দুল খেয়ে রঙিন ঝলকানী এক মনোমুগ্ধকর অপূর্ব এ দৃশ্য দেখা যায় লিচুর গ্রাম নামে পরিচিত মানিকপুর গ্রাম। এ গ্রামে লিচু চাষের অপার সম্ভাবনা বিরাজ করছে। গ্রামের মানুষ যুগ- যুগ ধরে লিচু উৎপাদন করে উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রতিকূল অবস্থা,কঠিন যোগাযোগ ব্যবস্থার মধ্যেও কঠোর পরিশ্রম করে চাষীরা উৎপাদিত এসব লিচু দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ ও বিক্রির জন্য এখন ব্যস্থ এখানকার লিচু চাষিরা।

সুনামগঞ্জের ছাতকে উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও লিচুর বাম্পার ফলন হওয়ায় উৎপাদিত লিচু বাজারজাতকরণে ব্যস্থ হয়ে পড়েছেন চাষিরা। নোয়ারাই ইউনিয়নের মানিকপুর ছাড়াও কচুদাইড়,বড়গল্লা,চাঁনপুর,উলুরগাও,গোদাবাড়ি গ্রামে রয়েছে লিচু বাগান।

তবে মানিকপুর লিচুর গ্রাম হিসেবেই পরিচিতি লাভ করেছে। এখান থেকে লিচু চাষ ছড়িয়ে পড়েছে দোয়ারার লামাসানিয়াসহ কটি গ্রামে। এই মানিকপুর গ্রামের ৩শতাধিক(মানিকপুর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমান,ডাঃ মমিন,আরব আলী,জয়নাল আবেদীন,রইছ মিয়া,রবি মিয়া,শওকত আলী,শকুর আলী,গোদাবাড়ি গ্রামের ফরিদ মিয়া,চাঁনপুর গ্রামের আছাব আলী,বড়গল্লা গ্রামের আব্দুস সালাম)পরিবার সুস্বাদু লিচু উৎপাদন করে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে।

জেলার ছাতক উপজেলা থেকে প্রায় ৩কিলোমিটার পশ্চিমে নোয়ারাই ইউনিয়নের চৌমুহনীবাজার পরেই মানিকপুর গ্রামের লিচু বাগানগুলো।

সরেজমিনে নোয়ারাই ইউনিয়নের মানিকপুর গ্রামের বিভিন্ন লিচু বাগান মালিকদের সাথে আলাপকালে জানা যায়,শতাধিক বছর পূর্বে গৌরিপুরের জমিদারী এষ্টেটের নায়েব হরিপদ রায় ও শান্তিপদ রায় মানিকপুর গ্রামে তাদের কাচারী বাড়িতে কয়েকটি লিচু গাছ রোপন করেছিলেন। শতবর্ষী এসব লিচু গাছ এখনো কালের স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। কালান্তরে এসব লিচু গাছ থেকেই ক্রমে-ক্রমে বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে গোটা গ্রামেই লিচুর গাছ ছড়িয়ে পড়েছে।

বাণিজ্যিক ভিত্তিতে এখানের বাড়ি ও বিভিন্ন টিলায় গড়ে উঠেছে লিচুর বাগান। মানিকপুর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমান,ডাঃ মমিন,আরব আলী,জয়নাল আবেদীন জানান,প্রতিবছরই যথা সময়ে লিচু গাছের পরিচর্যা দিয়ে
ভাল ফলনের উপযোগী করে তোলা হয়। শ্রম ও পরিচর্যার কারনে এখানে লিচুর ফলনও আশানুরূপ হচ্ছে। কিন্তু লিচু পাকা শুরু হলেই বাঁদুর,কটা,চামচিকা জাতীয় পাখির কারনে লিচুর ক্ষতি হয়। এসব পাখির উপদ্রব থেকে পাকা লিচু রক্ষা করতে চাষিদের বিভিন্ন স্থানীয় প্রযুক্তি ব্যবহারসহ রাত জেগে পাহারা দিতে হচ্ছে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেই ঝাকে-ঝাকে এসব পাখি বাগানের লিচু গাছে এসে হানা দেয়। এসময় তারা গাছের মগ ডালে টিন বাজিয়ে,ফাঁদ তৈরিসহ লিচু রক্ষায় জাল দিয়ে লিচু গাছ মুড়িয়ে রাখা হয়। এরপরও শতকরা ৩০ভাগ লিচু
পাখির উপদ্রবের কারনে নষ্ট হয়ে যায়।

রইছ মিয়া,রবি মিয়া,শওকত আলী,শকুর আলী,গোদাবাড়ি গ্রামের ফরিদ মিয়া,চাঁনপুর গ্রামের আছাব আলী,বড়গল্লা গ্রামের আব্দুস সালামসহ অনেকেই জানান,অনুন্নত যোগাযোগের কারনে উৎপাদিত লিচু বাজার মূল্যের তুলনায় কম মুল্যে বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের। এবছর বিদ্যুৎ সুবিধা হয়েছে,উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা হলে এলাকায় লিচু চাষে আরো লোকজন আগ্রহী হয়ে উঠবে।

ছাতক উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তৌফিক হোসেন খাঁন জানান,মানিকপুর গ্রামসহ আশপাশ এলাকার মাটি লিচু চাষের উপযোগী। এখানের উৎপাদিত লিচু অত্যন্ত সুস্বাদু। কৃষি অধিদপ্তর থেকে লিচু উৎপাদনের ক্ষেত্রে চাষিদের যাবতীয় পরামর্শ ও প্রযুক্তিগত সহায়তা আমরা দিয়ে যাচ্ছি। বিভিন্ন সময়ে সরকারিভাবে উন্নত
জাতের লিচু গাছের চারা চাষিদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।