অবশেষে ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় ফণী,পুরো এলাকা বিদ্যুৎহীন

যে আশঙ্কা করা হচ্ছিল, তাই হয়েছে। অবশেষে ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় ফণী। এই ঝড়ের তাণ্ডব চলতে পারে আরও ৩ ঘণ্টা। ফনির ফলে গোটা জগন্নাথধাম বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। এদিকে প্রশাসনের তরফে উচ্চ সতর্কতা জারি রয়েছে। ফণীর জেরে এখনও পর্যন্ত বাতিল ২৩৩টি ট্রেন। ওড়িশার পরেই বাংলায় আসবে ঝড়।

দিল্লির মৌসম ভবনের সাইক্লোন সতর্কতা কেন্দ্রের প্রধান মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র জানাচ্ছেন, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ১২টার মধ্যে কোনও এক সময়ে ফণী আছড়ে পড়বে পুরী সংলগ্ন গোপালপুরে (গঞ্জামের ‘গোপালপুর অন সি’ নয়)। এর পরে তটরেখা ধরে সেটি পশ্চিমবঙ্গে ঢুকে দক্ষিণবঙ্গের ওপর দিয়ে বাংলাদেশের দিকে চলে যেতে পারে।

আপাতত ফণীর মারের মোকাবিলায় সাজো সাজো রব ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে। জয়েন্ট টাইফুন ওয়ার্নিং সেন্টার-এর হিসেব অনুযায়ী গত ২০ বছরে এই অঞ্চলের সব চেয়ে ভয়ঙ্কর সামুদ্রিক ঝড়ে পরিণত হয়েছে ফণী। এর আগে ১৯৯৯-এ এই মাত্রায় পৌঁছনো সুপার সাইক্লোনে প্রায় ১০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছিলেন, ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল বিপুল।

দানবীয় রূপ নিয়ে ক্রমশ এগিয়ে যাচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ফণী। বঙ্গোপসাগরে গত ৪৩ বছরে এপ্রিল মাসে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে ‘ফণী’ সবচেয়ে শক্তিশালী বলে জানিয়েছে ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। শুক্রবারসন্ধ্যায় ঝড়টি বাংলাদেশে হানা দেবার কথা রয়েছে।

সাগর থেকে ধেয়ে আসা এ ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় নিচু এলাকায়গুলোয় স্বাভাবিকের চেয়ে ৪ থেকে ৫ ফুট বেশি উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা রয়েছে।