সিঙ্গাপুরে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে বর্ণাঢ্য আয়োজন

ওমর ফারুকী শিপন ও মো:শরীফ উদ্দীন, সিঙ্গাপুর: গতকাল ১লা মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস উপলক্ষে সিঙ্গাপুর বাংলাদেশ সোসাইটি (এসবিএস) আয়োজন করেছিল অভিবাসী কর্মীদের মাঝে সচেতনতামূলক ক্যাম্পেইন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও বইমেলা। পেঞ্জুরু ডরমিটরিতে স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে সাতটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত চলে এই অনুষ্ঠান। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হাইকমিশনার মান্যবর মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান। অনুষ্ঠানটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত সুন্দর ও সাবলীল উপস্থাপনায় আকর্ষণ ধরে রেখেছিলেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমিরুল ইসলাম সোহেল।

শুরুতেই এসবিএসের সভাপতি মিষ্টভাষী মোঃহাফিজুর রহমান তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে সংগঠনটির বিভিন্ন কার্যক্রম ও আগামী দিনের পরিকল্পনাগুলো তুলে ধরেন যা উপস্থিত প্রবাসীদের মাঝে প্রচুর আগ্রহের সৃষ্টি হয়।

মে দিবসের ইতিহাস ও তাৎপর্য উঠে আসে সম্মানিত অতিথিদের মূল্যবান বক্তব্যের মাধ্যমে। রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের গুরুত্ব ও অবদানের কথা বারবার স্মরণ করে তাদের সম্মান জানানো হয়। নতুন কাউন্সিলর মোঃআতাউর রহমান প্রবাসীদের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তুলে ধরেন সিঙ্গাপুরের বর্তমান অবস্থান। বর্তমানে সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশী শ্রমিকদের টিকে থাকাটা সত্যিই একটা চ্যালেন্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে দুই হাজার পঁচিশ সালের মধ্যে অনেকগুলো বড় প্রজেক্ট হ্যান্ডওভার হয়ে যাওয়ার পর কনস্ট্রাকশন সেক্টরে কাজ করার যেই শূন্যতা দাঁড়াবে তা সত্যিই ভাবনার বিষয়।

এ সময় কাউন্সিলর মো: আতাউর রহমান উপস্থিত প্রবাসীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।তিনি উপস্থিত প্রবাসীদের পরামর্শ দেন যেকোন সমস্যায় প্রবাসীরা যাতে হাইকমিশনে উপস্থিত হয়ে সমস্যার কথা অভিহিত করে।যেকোন তথ্যের জন্য ফোন কল কিংবা হাইকমিশনের ওয়েভ সাইটে ভিসিট করার জন্য অনুরোধ করেন।তিনি প্রবাসীদের যেকোন সমস্যায় পাশে থাকার অঙ্গীকার করেন৷

এছাড়া অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানোর ভয়াবহ ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরে ব্যাংকের মাধ্যমে বৈধভাবে টাকা পাঠাতে উৎসাহিত করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের অংশ গ্রহণে গানে গানে উঠে আসে দেশ প্রেম আর ভালোবাসার অনুভূতি। প্রবাসে কর্মক্ষেত্রে দূর্ঘটনার উপর শিক্ষনীয় পর্বটির যেমন গুরুত্ব ছিলো।তেমনি গুরুত্বপূর্ন ছিলো প্রবাসীদের নিয়ে মোঃ নাজমুল খানের কেরিয়ার ডিভেলপম্যান্ট এন্ড সোস্যাল ইন্টিগ্র্যাশন পর্বটি। যা প্রতিটা প্রবাসীর জন্য গুরুত্ব বহন করে।

হাইকমিশন বইমেলার তিনটি স্টল পরিদর্শন করে সন্তোষ প্রকাশ করেন।তিনি অভিবাসী কর্মীদের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান৷ এই সময় হাইকমিশনার তিনটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন।বই তিনটি হলো, অভিবাসী কর্মীদের ও সিঙ্গাপুরের স্থানীয় কবিদের যৌথ কাব্যগ্রন্থ “কল এন্ড রেসপন্স” এবং অভিবাসী লেখক মোহাম্মদ সহিদুল ইসলামের “প্রেমের সমাধি ”ও “মাতৃভাষা’র কবিতা” নামের দুটি বই।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে “জিরো ইফেক্ট মিউজিক্যাল ব্যান্ড” মন মাতানো কিছু গান পরিবেশন করে যা উপস্থিত প্রবাসীদের মাঝে এক ধরনের ভালোলাগার মোহ তৈরী হয়। সর্বশেষে সংগঠনের পক্ষ থেকে উপস্থিত প্রবাসীদেরকে মাঝে বিভিন্ন উপহার ও খাবার পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।